• বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০৬:৫৭ অপরাহ্ন |
  • English Version

বিবাহের প্রথম শর্ত: পাত্র এবং পাত্রী উভয়ে মুসলিম হওয়া : সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

বিবাহের প্রথম শর্ত: পাত্র এবং
পাত্রী উভয়ে মুসলিম হওয়া

সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

একজন মুসলিম বিবাহের জন্য দ্বীনদার ও সৎ স্ত্রীর অনুসন্ধান করবে, যাতে করে সে তার দ্বীনি ব্যাপারে সাহায্যকারীর ভূমিকা পালন করতে পারে। এতে করে তাদের সন্তানদেরও দ্বীনদার হওয়ার সুযোগ মিলবে। আর এই কারণেই রাসূল (সা.) বলেছেন, চারটি বিষয়ের প্রতি লক্ষ্য রেখে মেয়েদেরকে বিয়ে করা হয়, তার সম্পদ, তার বংশমর্যাদা, তার সৌন্দর্য ও তার দ্বীনদারী। সুতরাং তুমি দ্বীনদারীকেই প্রাধান্য দিবে। (বুখারী: ৫০৯০)
অর্থাৎ যেই সব কারণে একজন পুরুষ একটি মেয়েকে স্ত্রীরূপে বরণ করার জন্য উৎসাহিত ও আগ্রহান্বিত হতে পারে তা হচ্ছে চারটি। (১) সৌন্দর্য (২) সম্পদ (৩) বংশ (৪) দ্বীনদারী। এই চারটি গুণের মধ্যে সর্বশেষে উল্লেখ করা হয়েছে দ্বীনদারী ও আদর্শবাদিতার গুণ। আর এই গুণটিই ইসলামের দৃষ্টিতে সর্বাগ্রগণ্য ও সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ। দ্বীনদারীর গুণসম্পন্না কনে পাওয়া গেলে তাকেই যেন স্ত্রীরূপে বরণ করা হয়, তাকে বাদ দিয়ে অপর কোন গুণসম্পন্না মহিলাকে বিয়ে করতে আগ্রহী হওয়া উচিত নয়। কেননা দ্বীনদারী ব্যতীত শুধুমাত্র স্ত্রীদের রূপ-সৌন্দর্য দেখে বিয়ে করলে অনেক সময় সৌন্দর্যই তাদের ধ্বংসের কারণ হতে পারে। এমনকি সে অহংকারীও হয়ে যেতে পারে। আবার তাদের ধন-মালের লোভে পড়েও বিয়ে করা ঠিক নয়। কেননা দ্বীনদারী না থাকলে ধন-সম্পদের কারণে তারা বিদ্রোহী ও অনমনীয় হয়ে যেতে পারে। এই কারণে স্ত্রীদের দ্বীনদারীর গুণ দেখেই বিয়ে করা উচিত। একবার নবী (সা.) কে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল, বিয়ের জন্য কোন ধরণের মেয়ে উত্তম? জবাবে তিনি বলেছিলেন, যেই স্ত্রীকে দেখলে সে তার স্বামীকে আনন্দ দেয়, তাকে যেই কাজের আদেশ করা হয় তা সে যথাযথ পালন করে এবং তার নিজের স্বামীর ধন-মালের ব্যাপারে স্বামীর পছন্দের বিপরীত কোন কাজই করে না। (মুসনাদে আহমাদ) নবী (সা.) আরো বলেছেন, দুনিয়ার সব জিনিসই ভোগ সামগ্রী আর সবচেয়ে উত্তম সামগ্রী হচ্ছে নেক চরিত্রের স্ত্রী। (মুসনাদে আহমাদ)
উল্লেখিত আলোচনা থেকে যেই কথাটি স্পষ্ট হয়ে উঠেছে তা হল, ইসলামের দৃষ্টিতে তাক্বওয়া, পরহেযগারী, দ্বীনদারী ও উন্নত চরিত্রই হচ্ছে জীবন সঙ্গিনী পছন্দ করার ক্ষেত্রে সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিবেচ্য বিষয়। অথচ আজকে অনেকেই বিবাহের বেলায় দ্বীনদারীকে প্রাধান্য দেন না। এমনকি কেউ কেউ (দ্বীনের সঠিক জ্ঞান না থাকার কারণে) অনেক বিধর্মী ছেলে বা মেয়েদের সাথে বৈবাহিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়তেছেন। এমনিভাবে যেই ছেলে বা মেয়েকে প্রকাশ্যভাবে মুসলিম মনে করা হয়, কিন্তু তার আক্বীদা কুফর পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছেছে অথবা সে বড় শিরকে (যা একজন মুসলিমকে ইসলামের গণ্ডি থেকে বের করে দেয় এবং তাকে চিরস্থায়ী জাহান্নামী বানিয়ে দেয়) লিপ্ত আছে,তাদের সম্পর্কে খোঁজ-খবর ভালভাবে না নিয়েই তাদের সাথে বৈবাহিক সম্পর্কে আবদ্ধ হইতেছেন, যা সম্পূর্ণভাবে ইসলাম বিরোধী কাজ। কেননা মহান আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, মুশরিকা (অমুসলিম) নারীরা ঈমান না আনা পর্যন্ত তোমরা তাদেরকে বিবাহ করো না। মূলতঃ মু’মিন ক্রীতদাসী মুশরিকা (অমুসলিম) নারী হতে উত্তম, ওদেরকে তোমাদের যতই ভাল লাগুক না কেন। ঈমান না আনা পর্যন্ত মুশরিক (অমুসলিম) পুরুষদের সাথে (কোন মুসলিম রমণীকে) বিবাহ দিও না, বস্তুতঃ মুশরিককে (অমুসলিমকে) তোমাদের যতই ভাল লাগুক না কেন, মু’মিন গোলাম তার চেয়ে উত্তম। ওরা অগ্নির দিকে আহবান করে আর আল্লাহ নিজের অনুগ্রহে জান্নাত ও ক্ষমার দিকে আহবান করেন। তিনি মানুষদের জন্য নিজের হুকুমগুলো বিস্তারিতভাবে বর্ণনা করছেন যাতে তারা শিক্ষা গ্রহণ করে। (সূরা বাকারা: ২২১)
উপরোল্লিখিত আয়াত থেকে স্পষ্ট হয়ে যায় যে, বিবাহের বেলায় পাত্র এবং পাত্রী উভয়কে অবশ্যই মুসলিম হতে হবে। অন্যথায় বিবাহ শুদ্ধ হবে না। কাজেই বিবাহের ক্ষেত্রে সবাইকে এই শর্তের দিকে খেয়াল রেখেই বিবাহের সম্পর্কে জড়াতে হবে। আল্লাহ আমাদের সবাইকে তাওফীক দিন। আমীন
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!