• রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ০১:৩৬ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে নতুন আক্রান্ত ২ সুস্থও হয়েছেন ১০ জন ভৈরবে একজন মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে ব্যাংকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ মিঠামইনে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ ১০, ঢাকায় রেফার্ড ৮ জন শরীফুল ইসলামের ডিজিটাল এ্যাপস উদ্ভাবন, পরিবার পরিকল্পনা আর প্রজনন সেবায় প্রসূতি কিশোরীদের দিশা ভৈরবে র‍্যাবের হাতে দুই বিদেশি নাগরিক গ্রেফতার। কিশোরগঞ্জে নতুন করোনা রোগি ৮ জন সুস্থ হলেন ৭ জন, সুস্থতা ৯৪.৯৬ ভাগ কিশোরগঞ্জ আ’লীগের সাবেক সম্পাদক মহিউদ্দিন আহাম্মদের ১৭ তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত ভৈরবে মাদক উদ্ধার করে বিক্রির দায়ে এসআইসহ ২ পুলিশ সদস্য ক্লোজড কিশোরগঞ্জে নতুন করোনা রোগি ৭ সবাই সদর উপজেলার, সুস্থ ৮ জন কিশোরগঞ্জে প্রতিবন্ধী স্কাউটকে প্রণোদনা

ভৈরবে শারদীয় দুর্গোৎসবের সকল প্রস্তুতি শেষ, করোনা ভাইরাসের কারণে পালিত হবে সীমিত পরিসরে

ভৈরব পৌর শহরের কমলপুর ঠাকুর বাড়ির ডা. বাবুল আচার্যের পূজামণ্ডপ। ছবিটি আজ শনিবার বেলা ১২টার দিতে তোলা। -পূর্বকণ্ঠ

ভৈরবে শারদীয় দুর্গোৎসবের সকল প্রস্তুতি শেষ
করোনা ভাইরাসের কারণে
পালিত হবে সীমিত পরিসরে

# মোস্তাফিজ আমিন :-

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব আগামী ২২ অক্টোবর বৃহস্পতিবার ষষ্ঠি পূজার মধ্য দিয়ে শুরু হবে। ভৈরবে সকল প্রস্তুতি ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। পূজা উৎসবটিকে নির্বিঘ্ন করতে প্রশাসনিকভাবেও নেওয়া হয়েছে নানা উদ্যোগ। তবে করোনা ভাইরাসের কারণে সীমিত আকারে পালনের সিদ্ধান্ত হয়েছে।
ষষ্ঠির দিন শ্রী শ্রী শারদীয় দুর্গাদেবীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভ, বোধন ও আমন্ত্রণ এবং অধিবাসের মধ্যদিয়ে পূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। ঢাক-ঢোল, শাখ, শঙ্খ,কাসা, মৃদঙ্গ বাজিয়ে ও আরতি করে পূজা অর্চনার মাধ্যমে ভক্তপ্রাণ হিন্দু নর-নারীরা দুর্গা মাকে বরণ করে নিবেন। ২৬ অক্টোবর সোমবার বিজয়া দশমীর দিন প্রতিমা বিষর্জনের মধ্যদিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসব শেষ হবে।
মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে এবারের দুর্গোৎসবকে সীমিত আকারে উদযাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বাদ দেওয়া হয়েছে মেলাসহ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানাদি। এ বছর ভৈরবে ১৮টি পূজামণ্ডপে পূজা উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রেখে শান্তিপূর্ণভাবে দুর্গোৎসব সম্পন্ন হবে বলে আশাবাদ সকলের।
আনন্দের পূর্ব আগমনী বার্তা ও প্রাণের স্পন্দনকে স্পন্দিত করতে দরজায় কড়া নাড়ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব। চারিদিকে কাঁশ ফুলের উপস্থিতিই জানান দিচ্ছে মা দুর্গা মর্তলোকে আসছেন। এবার ধরণীতে মা আসবেন দোলা অর্থাৎ পালকিতে চড়ে। আর বিজয়া দশমিতে শ্বশুরালয়ে আবার ফিরে যাবেন গজে মানে হাতিতে চড়ে।
দেবীর দোলায় চড়ে আসা এবং গজে চলে যাওয়ার অন্তর্হিত অর্থ হলো-দোলায় চড়ে আসার মানে ধরনীতে মহামারি, রোগ-বালায় হবে। যা ইতোমধ্যে বিশ্বব্যাপী চলছে। অর্থাৎ করোনা ভাইরাস। আর গজে চড়ে যাওয়া মানে পৃথিবীতে প্রচুর শষ্য ফলবে। সেই শষ্যে করোনার ক্ষতি পুষিয়ে মা দুর্গার সন্তানরা আবার ঘুরে দাঁড়াবেন, এমনটি প্রত্যাশা তাদের। জানালেন ভৈরব বাজারের শ্রী শ্রী কালীমন্দিরের শেবায়েত শ্রী সুমন চক্রবর্তী।
শারদীয় দুর্গা পূজাকে ঘিরে ভৈরবের মন্দির ও মণ্ডপগুলোতে এখন চলছে শেষ প্রস্তুতি। ১৮টি পূজা মণ্ডপে পূজার আয়োজন চলছে। অধিকাংশ মণ্ডপে প্রতিমা নির্মাণের কাজ শেষ। কোথাও কোথাও কেবল প্রতিমা শিল্পীদের রংতুলির কাজ বাকী। রংতুলির শিল্পীরা শ্রদ্ধা আর ভালোবাসার সাথে রাত দিন সমান তালে কাজ করছেন। নিখুঁতভাবে মনের মাধুরী মিশিয়ে ফুটিয়ে তুলছেন দুর্গা দেবীর আকৃতি গড়নের পাশাপাশি লক্ষ্মী, স্বরসতী, গণেশ ও কার্তিকের প্রতিমা।
তবে মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রভাবে এবার সীমিত আকারে পূজা উদযাপনের কারণে মনে সুখ নেই প্রতিমা তৈরির কারিগরদের। তাদের সারা বছরের আয়-রোজগারে এবার টান পড়েছে। জানালেন প্রতিমার কারিগর শ্রী ক্ষীতিশ পাল ও নগেন্দ্র চন্দ্র পাল।
প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্বিঘ্নে পূজা উদযাপনের সার্বিক সহায়তার আশ্বাস পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ ভৈরব উপজেলা শাখার সভাপতি উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক জিতেন্দ্র চন্দ্র দাশ। করোনা ভাইরাসের কারণে এবার পূজার আনুষ্ঠানিকতায় আনা হয়েছে স্বল্পতা।
অপরদিকে মেলাসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানাদি বন্ধের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। তবে প্রতি বছরের মতো এবারও পূজা উদযাপনে সরকারি সহায়তা পেয়েছেন বলেও তিনি জানান।
শারদীয় দুর্গোৎসব সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে পুলিশ, র‌্যাব ও সিনিয়র কর্মকর্তাদের মোবাইলটিমের সমন্বয়ে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ শাহিন।
ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা জানিয়েছেন, মহামারি করোনা ভাইরাসকে মাথায় রেখে শারদীয় দুর্গোৎসব পালনে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে মন্দির কমিটির নেতাদের সাথে পূজা উদযাপন কমিটির সভা হয়েছে। যেখানে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিসহ সকল আইন শৃংখলা রক্ষাবাহিনীর প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও পূজামণ্ডপগুলিতে সরকারি সহায়তার ৫০০ কেজি করে চাল এবং স্থানীয় সাংসদের পক্ষ থেকে আর্থিক সহায়তার বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে।
পূজামণ্ডপগুলিতে ধর্মীয় আচারানুষ্ঠানের বাইরে যেকোনো কিছু অতিরিক্ত করলে এবং মোবাইল ফোনে লাইভের নামে অশালীনতার অভিযোগ পেলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণের কথাও জানালেন তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!