• বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০২:১৯ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

হাওরের অলসিজন সড়কে জীবিকার দিগন্ত উন্মোচন

অলসিজন রোডে মিঠামইনের জিরো পয়েন্টের হাওর সৈকতে নৌ রেস্টুরেন্ট। - পূর্বকণ্ঠ

হাওরের অলসিজন সড়কে
জীবিকার দিগন্ত উন্মোচন

# মোস্তফা কামাল :-

দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় ৬ জেলা কিশোরগঞ্জ, সিলেট, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও নেত্রকোনার বিস্তীর্ণ হাওরাঞ্চল বিশ্বের এক নয়নাভিরাম নৈসর্গিক লীলাভূমি। এখানে রয়েছে ধান উৎপাদনের বিশাল ক্ষেত্র, রয়েছে বিশাল প্রাকৃতিক মৎস্যক্ষেত্র। কিন্তু যোগাযোগ ব্যবস্থার দিক থেকে শত শত বছর ধরে ছিল অবহেলিত। বর্ষাকালে নৌযান, আর শুকনো মৌসুমে পায়ে হাটা ছাড়া কোন বিকল্প ব্যবস্থা ছিল না। গভীর হাওরে বর্ষায় অন্তু ৩০ ফুট থেকে ৫০ ফুট পানি থাকে। আর পুরো হাওরাঞ্চলই মূলত বোরো চাষের জমি। ফলে এখানে সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার পরিকল্পনা কল্পনারও অতীত। তবে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের প্রচেষ্টায় কিশোরগঞ্জের তিনটি হাওর সমৃদ্ধ উপজেলা ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রামকে সুউচ্চ ও সুদৃশ্য ‘অলসিজন’ সড়কের নেটওয়ার্কে সংযুক্ত করা হয়েছে। নির্মাণ করা হয়েছে ২২টি দৃষ্টিনন্দন সেতু। এর ফলে সড়ক পথে এখন প্রতিদিন যেমন অসংখ্য যানবাহন চলাচল করছে, আবার দেশের নানা প্রান্ত থেকে হাজার হাজার পর্যটক বা ভ্রমণ পিপাসু নারী-পুরুষ ছুটে যাচ্ছেন এই হাওরের অপরূপ দৃশ্য আর সড়ক দর্শন করতে। যেই হাওরের মানুষ বর্ষার ৬ মাস বেকার থাকতো, এরাই এখন এই সড়কে চালাচ্ছেন অটোরিকশা, রিকশা, সিএনজি আর মিশুক। মিঠামইনের যে জায়গায় মিঠামইন, ইটনা এবং অষ্টগ্রামের সংযোগ সড়ক এসে যুক্ত হয়েছে, সেখানে একটি সুপরিসর গোল চত্বর নির্মাণ করে এর নাম দেয়া হয়েছে ‘জিরো পয়েন্ট’। আর পর্যটকদের প্রধান আকর্ষণ থাকে এই জিরো পয়েন্টের দিকে। এখানে দাঁড়ালেই তিন দিকে চলে যাওয়া সুদৃশ্য প্রশস্ত সড়কের অনেকটা অংশই দেখা যায়। আর জিরো পয়েন্ট এলাকাটাও বেশ সুন্দর করে সাজানো হচ্ছে। আর এই জিরো পয়েন্টে বসেছে সারিবদ্ধ দোকান। এখানে পর্যটকরা চটপটি, চা, কফি, কোল্ডড্রিংস, বিস্কুট, চকলেটসহ নানা জাতের খাবার পাচ্ছেন। মিঠামইন সদরের মৌলভীপাড়া গ্রামের আব্দুল আজিজ এখানে বসিয়েছেন নৌকার আদলে একটি ভ্রাম্যমাণ চা-কফির দোকান। দোকানটি যেমন নৌকার আদলে নির্মাণ করেছেন, দোকানের ওপরের দিকটিও সজ্জিত করেছেন নৌকা দিয়ে। নৌকার তলায় টায়ারের চাকা লাগিয়েছেন। প্রয়োজনমত বিভিন্ন জায়গায় দোকানটি স্থানান্তর করতে পারেন। তার আশপাশে আরো বেশ ক’টি দোকান রয়েছে। উন্মুক্ত হাওরের তীরে গড়ে ওঠা এই সড়কের কিনারে পাতা হয়েছে সমুদ্র সৈকতের মত বড় বড় রঙিন ছাতা আর সুদৃশ্য বেঞ্চ। পর্যটকরা এখানে বসে হাওরের বিশুদ্ধ বাতাস খান, আর সঙ্গে চা-কফিও খেতে পারেন। উপর্যুপরি সিলফি তো আছেই। এরকম দুর্লভ স্মৃতিময় ছবির স্পট আর কোথায়ই বা পাবে। আব্দুল আজিজ জানালেন, অলসিজন সড়কটি নির্মাণ হবার কারণে এই বর্ষাকালের অলস সময়টাকে রোজগারের কাজে লাগাতে পারছেন। দৈনিক ৫-৬ হাজার টাকা বিক্রি হয়। তাতে সংসারে একটা ভাল আর্থিক যোগান হচ্ছে। মিঠামইন-অষ্টগ্রামের অটো ভাড়া জনপ্রতি ৭০ টাকা। আর মিঠামইন-ইটনার ভাড়া জনপ্রতি ৬০ টাকা। চার ঘণ্টার পথ এখন ২০ মিনিট বা আধা ঘণ্টাতেই পাড়ি দেয়া যাচ্ছে। ৮৭৪ কোটি ৮ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত ২৯ দশমিক ৭৩২ কিলোমিটার এ সড়কটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ৮ অক্টোবর গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!