• বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৯:৪৭ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

কিশোরগঞ্জে বিশ্ব খাদ্য দিবসে আলোচনা সভা

কিশোরগঞ্জে বিশ্ব খাদ্য দিবস উপলক্ষে জেলা কালেক্টরেট সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখছেন জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী

কিশোরগঞ্জে বিশ্ব খাদ্য
দিবসে আলোচনা সভা

# মোস্তফা কামাল :-

কিশোরগঞ্জে বিশ্ব খাদ্য দিবস উপলক্ষে জেলা কালেক্টরেট সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে এবার বিশ্ব খাদ্য সংস্থা প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করেছে ‘সবাইকে নিয়ে একসাথে বিকশিত হোন, শরীরের যত্ন নিন, সুস্থ থাকুন। আমাদের কর্মই আমাদের ভবিষ্যত’। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে এবারের দিবসটিতে কৃষি মন্ত্রণালয় আজ ১৬ অক্টোবর সকাল ১১ টায় রাজধানীর হোটেল সোনার গাঁয়ে একটি আন্তর্জাতিক সেমিনারের আয়োজন করেছিল। গণভবন থেকে ভিডিও কনাফারেন্সের মাধ্যমে সেমিনারটি প্রধান অতিথি হিসেবে উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাকের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ১৯৯৬ সালে আমরা যখন সরকার গঠন করি, তখন দেশে খাদ্য ঘাটতি ছিল ২৪ লাখ মেট্রিকটন। ক্ষমতায় বসেই আমরা কৃষি উৎপাদনে জোর দেই। সারের দাম কমানোসহ কৃষকদের প্রনোদনা দেই। কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি পায়। এই কারণে আমরা যখন ক্ষমতা ছাড়ি, তখন খাদ্য উদ্বৃত্ত ছিল ২৬ লাখ মেট্রিকটন। কৃষকদের মোবাইল ফোনে চাষাবাদে পরামর্শ ও নানারকম সেবা দেয়ার জন্য কলসেন্টার ‘৩৩৩১’ ও ‘১৬১২৩’ এবং ওয়েভসাইট ‘কৃষি জানালা’ চালু করা হয়েছে। কৃষকদেরকে উপকরণ কার্ড দেয়া হয়েছে। ১০ টাকার ব্যাংক হিসাবে প্রনোদনার টাকা চলে যাচ্ছে। আমরা খাদ্য নিরাপত্তার সঙ্গে পুষ্টি নিরাপত্তার চেষ্টা করছি। আমাদের দেশের কৃষি বিজ্ঞানীরা খরা সহিষ্ণু, জলমগ্নতা সহিষ্ণু এবং লবনাক্ততা সহিষ্ণু ধানের জাত উদ্ভাবন করছেন। সারের সঙ্কট দূর করার জন্য ৮০ টাকার টিএসপির দাম করা হয়েছে ২২ টাকা। করোনার মধ্যেও খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য প্রনোদনা দেয়া হচ্ছে। ২ হাজার ৫০৩ কোটি টাকার কৃষি সহায়তা দেয়া হচ্ছে। ৩ হাজার ২২০ কোটি টাকা ভর্তুকি দিয়ে কৃষির যান্ত্রিকীকরণ করা হচ্ছে। করোনাকালে জিডিপি’র ৪ শতাংশ প্রনোদনা দেয়া হচ্ছে। হত দরিদ্রদের বিনামূল্যে খাদ্য দেয়া হচ্ছে। যারা বিনামূল্যে চাল নিতে সঙ্কোচ বোধ করেন, তাদেরকে ১০ টাকা কেজি দরে চাল দেয়া হচ্ছে। দেশের একটি মানুষও না খেয়ে মারা যাবে না। কেউ গৃহহীন থাকবে না। খাদ্যের পাশাপাশি পুষ্টিরও নিশ্চয়তা বিধান করতে হবে।
অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রী অ্যাডভোকেট শ.ম রেজাউল করিম, সাবেক কৃষি ও খাদ্যমন্ত্রী কৃষি মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বেগম মতিয়া চৌধুরী এমপি এবং কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব মেসবাউল ইসলাম। ভিডিও কনফারেন্সে দেশের অন্যান্য জেলার সঙ্গে কিশোরগঞ্জও সংযুক্ত ছিল।
প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও কনাফারেন্স শেষ হবার পর জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে কালেক্টরেট সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভা করা হয়। এতে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন)) মো. মিজানুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এমএ আফজাল, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সাইফুল আলম, জেলা মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান মানছুরা জামান নূতন, জেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোস্তফা কামাল এবং সনাক সভাপতি সাইফুল হক মোল্লা দুলু।
জেলা প্রশাসক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর বড় চমক হচ্ছে করোনাকালে প্রনোদনা প্যাকেজ। তিনি গ্রামীণ অর্থনীতির ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন। এখন দেশে কোন খাদ্য ঘাটতি নেই। বরং আমরা খাদ্যে উদ্বৃত্ত। কিশোরগঞ্জ জেলাও উদ্বৃত্ত খাদ্য উৎপাদন করে। এবার দেশের অন্যান্য জেলায় বন্যায় ফসলের ক্ষতি হলেও কিশোরগঞ্জে তেমন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। বোরোর বাম্পার ফলনের পর আউশেরও ভাল ফলন হয়েছে। আমনের যে লক্ষণ দেখা যাচ্ছে, সেখানেও বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। কৃষি বিজ্ঞানীরা যেমন নতুন নতুন উন্নত জাতের ফসল উদ্ভাবন করছেন, সেগুলি আবার আমাদের দেশের কৃষকরা অক্লান্ত পরিশ্রম করে মাঠে চাষ করে ফসল ফলাচ্ছেন। এরই মানুষকে খাইয়ে বাঁচিয়ে রেখেছেন। আর সেই কারণেই তাদেরকে বলা হচ্ছে ‘ফুড হিরো’। অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. গোলাম মোস্তফা ছাড়াও প্রাণী সম্পদ বিভাগ এবং জেলা খাদ্য বিভাগসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!