• বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৯:৩৪ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

ভৈরবে পরিত্যক্ত পলিথিন বর্জ্য থেকে তৈরি হচ্ছে পেট্রোল ডিজেল ও গ্যাস

ভৈরবে পরিত্যক্ত পলিথিন বর্জ্য থেকে তৈরি
হচ্ছে পেট্রোল ডিজেল ও গ্যাস

মোস্তাফিজ আমিন :

ভৈরবে পরিত্যক্ত পলিথিন বর্জ্য থেকে তৈরি হচ্ছে ডিজেল, পেট্রোল, ও গ্যাস। দেশের পরিবেশের জন্য মারাত্মক হুমকি এই পলিথিন থেকে রক্ষা পাওয়ার এই উদ্যোগে বেশ খুশি স্থানীয় লোকজন, জনপ্রতিনিধিসহ উপজেলা প্রশাসন। তাঁরা প্রত্যেকেই যার যার অবস্থান থেকে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন উদ্যোক্তাকে। গত ৩ মার্চ মঙ্গলবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানাসহ অন্যান্য অতিথিরা আনুষ্ঠানিকভাবে “আহিল পেট্রোলিয়াম লি.” নামের এই শিল্প কারখানারটির উদ্বোধন করেন। যেখানে বর্তমানে প্রতিদিন ১৬০ কেজি পরিত্যক্ত পলিথিন পুড়িয়ে উৎপাদন হচ্ছে ১০০ কেজি জ্বালানি তেল।
বর্তমান সময়ে আমাদের সমাজ ও দেশের জন্য হুমকি দাঁড়িয়েছে পলিথিন বর্জ্য। আমাদের দৈন্দিন জীবনে পলিব্যাগ ও পলিপ্যাকেট অত্যবশ্যকীয় উপকরণ হওয়ায় এইসব পরিত্যাগ করা যাচ্ছে না। আবার সহজে পঁচনশীল না হওয়ায় ব্যবহৃত পরিত্যাক্ত পলিথিন ও প্লাস্টিক যত্রতত্র ফেলার ফলে আমাদের চারপাশের নদী-নালা, খাল-বিলসহ ড্রেনেজ ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। উর্বরা শক্তিসহ নানাভাবে চারপাশের ভূমিকে হুমকির দিকে ঠেলে দিচ্ছে। ফলে আমাদের চারপাশের সামাজিক পরিবেশ আজ মারাত্মক হুমকির মুখে এই পলিথিন বর্জ্যরে কারণে।

এই হুমকি থেকে সামাজিক পরিবেশ রক্ষায় এবং পেট্রোল, ডিজেল ও গ্যাসের মতো প্রকৃত সম্পদ উৎপাদনসহ অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হওয়ার মতো এই শিল্পপ্রতিষ্ঠানের অগ্রযাত্রাকে সাধুবাদ জানিয়েছেন স্থানীয়রা। সম্পূর্ণ বৈজ্ঞানিক উপায়ে পরিত্যক্ত পলিথিন ও প্লাস্টিক থেকে জ্বালানি তেল ও গ্যাস উৎপাদন দেখতে প্রতিদিন তাই হাজারও মানুষ ভীড় করছে ওই আহিল পেট্রোলিয়াম নামের নতুন এই শিল্পকারখানাটিতে।
কারখানাটির উদ্যোক্তা ইউসুফ আহমেদ গালিব জানান, ২০১৮ সালের আগস্ট মাস থেকে এই প্রকল্পটির কাজ শুরু করেন তিন। থাইল্যান্ড ব্যাজ সেপকো কোং প্যাটার্ন অনুসারে, বাংলাদেশের এক্সেস টু ইনফরমেশন এটুআই এর দিকনির্দেশনায় এবং বাংলাদেশ শিল্প গবেষণা পরিষদ (বিসিএসআইআর) এর সম্পূর্ণ ব্যবস্থাপনায় তিনি এই প্রকল্পটি শুরু করেছেন। থাইল্যান্ড বর্তমানে ফিফথ জেনেরেশনে কাজ করছে। আর তিনি শুরু করেছে প্রথম জেনারেশনে।
বর্তমানে কারখানাটিতে প্রতিদিন ১৬০ কেজি পরিত্যাক্ত পলিথিন পুড়িয়ে ১০০ কেজি জ্বালানি তেল সংগ্রহ করছেন। যার মধ্যে পেট্রোল, ডিজেল ও গ্যাস আছে। তবে গ্যাস বর্তমানে সংগ্রহ না করে কারখানায় জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে।
পলিথিনকে সামাজিক পরিবেশ, মাটি, পানি ও বায়ূ দূষণের অন্যতম কারণ উল্লেখ করে তিনি জানান, সেই পলিথিন বর্জ্যকে উচ্চ মাত্রায় হিট দেওয়ার ফলে পলিথিনের হাইড্রো কার্বনের চেইন ভেঙে যায়। হাইড্রো কার্বনের চেইন ভেঙে যাওয়ার ফলে লিকোয়েড গ্যাস তৈরি হয়। সেই লিকোয়েড গ্যাস ধীরে ধীরে চেঞ্জ হয়ে প্রতিটি চেম্বার হয়ে কলিন কনডেনসারে প্রবেশ করে আস্তে আস্তে ঠাণ্ডা হয়ে পেট্রোল এবং ডিজেল আলাদা হয়ে যায়। পেট্রোল ডিজেল আলাদা হয়ে যে গ্যাসটা থেকে সেটি ওয়াটার ফিল্টারের মাধ্যমে পরিস্কার হয়ে চেম্বারের যে জ্বালানির জায়গা আছে, সেখানে গিয়ে জমা হয়।
তিনি জানান,পলিথিন থেকে জালানি তেল উৎপাদন প্রক্রিয়াটিকে বলা হয় (ঢ়ুৎড়ষুংরং ঢ়ৎড়পবংং) পাইরোলাইসিস প্রসেস। এই প্রক্রিয়ায় পলিথিন বা প্লাস্টিককে উচ্চ তাপমাত্রায় বিক্রিয়া ঘটিয়ে পলিথিন এর অনুগুলো আলাদা করা হয়। যার মাধ্যমে তরল গ্যাস উৎপন্ন হয়। এই তরল গ্যাস আস্তে আস্তে তাপমাত্রা হ্রাস হওয়াতে ঘনীভূত হতে শুরু করে। নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় পৌঁছানোর পর এই তরল গ্যাস প্রথমে পেট্রোল ও পরে ডিজেলে পরিণত হয়ে আলাদা আলাদা পাত্রে জমা হতে থাকে। অবশিষ্ট তরল গ্যাস পরিশোধিত হয়ে জ্বালানী গ্যাসে পরিণত হয়। এই প্রক্রিয়ায় এক কেজি পলিথিন থেকে প্রকারভদে ৩০০-৪০০ মি.লি. ডিজেল ও ২৫০-৩০০ মি.লি. পেট্রোল উৎপাদন হয়। প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হওয়ার পর অবশিষ্টটুকু সংগ্রহ করা হয় এবং এগুলো ছাপা কালিতে পরিণত করা যায়। প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ চলমান একটি প্রক্রিয়া। তাই এতে গ্যাস জমে দুর্ঘটনা ঘটার তেমন কোন সম্ভবনা নেই।
বর্তমানে কারখানাটিতে প্রতিদিন ১৫০-১৬০ কেজি পরিত্যাক্ত পলিথিন থেকে ৪০-৫০ কেজি ডিজেল ও ২৫-৩০ কেজি পেট্রোল এবং ৩০-৩৫ কেজি কালি উৎপাদন হচ্ছে। সম্পূর্ন প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হতে ৭-৮ ঘন্টা সময় লাগে। আর এই পরিমাণ উৎপাদনে সর্বমোট উৎপাদন খরচ হয় ৪,৬০০ টাকা। আর উৎপাদিত জ্বালানি বিক্রি করে আয় হয় ৭,০০০ টাকারও বেশী। ফলে খরচ বাদে নীট মুনাফা থাকছে প্রতিদিন আড়াই থেকে তিন হাজার টাকা। তবে প্রজেক্ট ভালোভাবে চলমান হওয়ার পর উৎপাদন খরচ আরও কমে মুনাফার পরিমাণ আরও বেশী হবে বলে তিনি জানান। তিনি পরবর্তীতে তার কারখানাটি আরও বৃহৎ পরিসরে গড়ে তুলবেন, যেখানে প্রতিদিন দেড় টন জ্বালানি তেল উৎপাদন করা সম্ভব বলেও তিনি জানান।
বাংলাদেশ শিল্প ও বিজ্ঞান গবেষণা পরিষদ (বিসিএসআইআর) এর মান নির্ণয়ের ফলাফলে পলিথিন থেকে উৎপাদিত এই জ্বালানি তেলের মান হচ্ছে ৯৩.৫৬। যা নর্মাল জ্বালানি থেকে ১.৫৬ পার্সেন্ট জ্বালানি ক্ষমতা বেশী এবং পুরোপরি লো কার্বনের জ্বালানি। এতে করে নরমাল জ্বালানির চেয়ে বেশী রান করবে যানবাহন। আর এই জ্বালানি পরিবেশের জন্য সম্পূর্ণই ক্ষতিমুক্ত।

তিনি আরও জানান, উন্নত বিশ্বের বহু দেশে এই প্রকল্পের মাধ্যমে বিকল্প জ্বালানি তেল উৎপাদিত হচ্ছে। তিনি ২০১৮ সালে পরীক্ষামূলকভাবে প্রথমে প্রকল্পটি গ্রহণ করে সফল হন। পরে তিনি উৎপাদিত নমুনা জ্বালানি তেল বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ (বিসিএসআইআর) এ গুণগতমান পরীক্ষার পর পজেটিভ রিপোর্ট পাওয়ার পর ২০১৯ সালের আগস্ট মাস থেকে স্বল্প পরিসরে উৎপাদন শুরু করে বাণিজ্যিকভাবে বাজারজাত করছেন।
বর্তমানে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় কর্তৃক পরিচালিত (অপপবংং ঞড় ওহভড়ৎসধঃরড়হ (অ২ও) এর দিক নির্দেশনায় এবং বাংলাদেশ শিল্প ও বিজ্ঞান গবেষণা পরিষদ (বিসিএসআইআর) এর মান নির্ণয়ের ভিত্তিতে পরিত্যাক্ত পলিথিন বর্জ্য থেকে বাণিজ্যিকভাবে জ্বালানী তেল ও গ্যাস উৎপাদন কল্পে ভৈরব শহরের চণ্ডিবের এলাকায় “আহিল পেট্রোলিয়াম লিমিটেড” নামের এই প্রতিষ্ঠান শুরু করেছেন। এই প্রকল্পের মাধ্যমে পরিত্যাক্ত পলিথিন ও প্লাস্টিক থেকে মাটি, পানি ও বায়ূ দূষণের পরিমাণ হ্রাস করে জ্বালানি তেল উৎপাদনের মাধ্যমে জাতীয় অর্থনীতিকে ত্বরান্বিত করতে বিশেষ ভূমিকা রাখার আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।
পলিথিনকে বাংলাদেশের জন্য সমস্যা উল্লেখ করে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা জানান, এই সমস্যা থেকে উত্তরণে এই উদ্যোগটিকে তিনি স্বাগত জানান। তিনি এর আইনগত অনুমোদন এবং আরও বড় পরিসরে করতে সরকারের সাথে যোগাযোগে তিনি সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন। এ সময় এক সুধী সমাবেশে উপস্থিত নারীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আজ থেকে আপনারা ঘরে ঘরে দুটি করে ঝুড়ি রাখবেন। একটি ময়লা আর অপরটিতে পলিথিন জাতীয় দ্রব্য রাখবেন। আর এই পলিথিনের ঝুড়িগুলি আহিল পেট্রোলিয়ামের লোকজন গিয়ে নিয়ে আসবেন। এতে করে আমরা সবাই লাভবান হবেন। আর আমাদের চারপাশের পরিবেশ হবে দূষণমুক্ত।
কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা মির্জা মো. সুলায়মান বলেন, পরিবেশ বান্ধব এমন একটি শিল্পকারখানা গড়ে তোলায় উদ্যোক্তা ইঊসুফ আহমেদ গালিবকে ধন্যবাদ জানাই। আশা করি ভৈরব পৌর কর্তৃপক্ষ পলিথিন বর্জ্য সরবরাহ করে কারখানাটিকে সহযোগিতা করবে। তাদের পরিচ্ছন্নকর্মীদের প্রতিদিনের সংগ্রহকৃত পলিথিন বর্জ্য এই কারখানা কর্তৃপক্ষকে সরবরাহের উদ্যোগ নিলে কারখানাটি যেমন তার কাঁচামাল পাবে, পৌর কর্তৃপক্ষও পলিথিন বর্জ্য ধ্বংস করার একটা উপায় পাবে।
স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর আরেফিন জালাল রাজিব সওদাগর তাঁর ওয়ার্ডে এমন একটি কারখানা গড়ে ওঠায় উল্লাস প্রকাশ করে বলেন, তিনি তার পক্ষ থেকে কারখানা কর্তৃপক্ষকে সার্বিক সহযোগিতা দিয়ে যাবেন।
সমাজকর্মী মাহিন ছিদ্দিকী ও ইকরাম বক্স বলেন, পলিথিন বর্জ্য আমাদের চারপাশের পরিবেশকে প্রতিদিন যেভাবে দূষণ করছে, তা ভয়াবহ। নদী-নালা, খাল-বিল, ভূমি ও ড্রেনেজ ব্যবস্থাকে এক ভয়ংকর হুমকির মাঝে ফেলেছে। আমরা যখন এই ভয়াবহতা থেকে পরিত্রাণের পথ খোঁজছিলাম, তখন এমন উদ্যোগ সত্যিই প্রশংসার দাবী রাখে। তারা আরও জানান, এই প্রক্রিয়ায় শুধু পলিথিন বর্জ্য ধ্বংসই হবে না, উৎপাদিত হবে জ্বালানী ও গ্যাসের মতো মূল্যবান প্রাকৃতিক সম্পদ।

 

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!