• মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০১:৪০ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

কিশোরগঞ্জে নতুন করোনা রোগি ৬ জন জেলায় সুস্থতা ৮৯, দেশে ৬২.৯৪ ভাগ

ইদানিং জেলাব্যাপী করোনা সংক্রমণ কিছুটা কমে এসেছে

কিশোরগঞ্জে নতুন করোনা রোগি ৬ জন
জেলায় সুস্থতা ৮৯, দেশে ৬২.৯৪ ভাগ

# মোস্তফা কামাল :-

কিশোরগঞ্জে নতুন করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে ৬ জনের। এবার সদর উপজেলায় মাত্র একজন। সুস্থ হয়েছেন নতুন ৮ জন। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ৫ জন। ইদানিং সংক্রমণে কিছুটা নিম্নগতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কিশোরগঞ্জে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সুস্থতার হার ছিল শতকরা ৮৯ ভাগ। আর জতীয়ভাবে সুস্থতার হার প্রায় ৬৩ ভাগ।
সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান জানিয়েছেন, কিশোরগঞ্জের সৈয়দ নজরুল মেডিক্যাল কলেজ ল্যাব থেকে বৃহস্পতিবার রাতে পাওয়া ৯৪টি নমুনার পরীক্ষার ফলাফলে দেখা গেছে, নতুন আক্রান্ত ৬ জনের মধ্যে ভৈরবে ২ জন, আর সদর উপজেলা, কটিয়াদী, বাজিতপুর ও অষ্টগ্রামে একজন করে। পুরনো চারজন করোনা রোগির নমুনাও আবার পজিটিভ এসেছে। ফলে নেগেটিভ হয়েছে ৮৪টি নমুনা। জেলায় সুস্থ হওয়া নতুন ৮ জনের মধ্যে সদর উপজেলায় ৫ জন, কুলিয়ারচরে ২ জন, আর বাজিতপুরে একজন।
কিশোরগঞ্জের ১৩ উপজেলায় এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ২,৪৮৪ জন, মারা গেছেন ৪৩ জন, আর সুস্থ হয়েছেন ২,২১১ জন। বৃহস্পতিবার জেলায় করোনায় চিকিৎসাধীন ছিলেন ২৩০ জন। জেলায় বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সুস্থতার হার ছিল শতকরা ৮৯ ভাগ। অথচ জাতীয়ভাবে সুস্থতার হার প্রায় ৬৩ ভাগ। এ পর্যন্ত উপজেলাওয়ারি আক্রান্তের চিত্র হচ্ছে, সদর উপজেলায় ৮৩৫ জন, ভৈরবে ৬০৩ জন, বাজিতপুরে ১৯৯ জন, কটিয়াদীতে ১৪৬ জন, পাকুন্দিয়ায় ১৩৯ জন, করিমগঞ্জে ১৩১ জন, কুলিয়ারচরে ১২২ জন, তাড়াইলে ১০৫ জন, হোসেনপুরে ৬২ জন, নিকলীতে ৫১ জন, মিঠামইনে ৪২ জন, ইটনায় ৩৩ জন এবং অষ্টগ্রামে ১৬ জন। তবে অধিকাংশ রোগি সুস্থ হওয়ার পর বৃহস্পতিবার করোনায় চিকিৎসাধীন ছিলেন সদর উপজেলায় ১০৩ জন, ভৈরবে ৩১ জন, কটিয়াদীতে ১৮ জন, বাজিতপুরে ১৭ জন, পাকুন্দিয়ায় ১৫ জন, তাড়াইলে ৯ জন, কুলিয়ারচরে ৯ জন, হোসেনপুরে ৮ জন, করিমগঞ্জে ৭ জন, নিকলীতে ৫ জন, মিঠামইনে ৪ জন, অষ্টগ্রামে ৩ জন এবং ইটনায় একজন। এ পর্যন্ত জেলায় করোনায় মারা যাওয়া ৪৩ জনের মধ্যে ভৈরব উপজেলায় মারা গেছেন ১৪ জন, আর সদর উপজেলায় মারা গেছেন ১৩ জন। পাকুন্দিয়া ও অষ্টগ্রামে কেউ মারা যাননি। আর অন্যান্য উপজেলার মধ্যে ৩ জনের বেশি কোন উপজেলায় মারা যাননি।
গত কোরবানির ঈদের আগে-পরে সংক্রমণ বেশ উর্ধমুখি হয়ে উঠেছিল। আর এক্ষেত্রে প্রতিদিনই সদর উপজেলা শীর্ষে ছিল। তবে স্বাস্থ্য বিভাগ, প্রশাসন ও আইন শৃংখলা বাহিনীসহ বিভিন্ন মহলের তৎপরতায় ইদানিং সংক্রমণ কিছুটা স্তিমিত লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে সংক্রমণ আরো কমে আসবে বলে অভিজ্ঞজনদের অভিমত।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!