• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৬:২৯ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

নতুন জাতের আলু , নতুন এক সম্ভাবনা

সারিবদ্ধভাবে রাখা হয়েছে আলুর ১৭টি জাতের নমুনা -পূর্বকণ্ঠ

নতুন জাতের আলু
নতুন এক সম্ভাবনা

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
দেশের বিভিন্ন জেলায় আলুর ব্যাপক আবাদ হচ্ছে বহুকাল আগে থেকেই। কিন্তু প্রচলিত জাতের আলুর যেমন ফলন কম, তেমনি রোগাবালাই বেশি, খরচও বেশি। কিন্তু দেশের কৃষি বিভাগের নিজস্ব উদ্যোগ আর গবেষণায় আলুর জাতে উন্নয়ন ঘটানো হয়েছে। এসব নতুন জাতের আবাদ করে কৃষকরা লাভবান হচ্ছেন।
আলুর নতুন ১৭টি জাত কৃষকদের সামনে তুলে ধরছে নতুন সম্ভাবনা। ফলন বেশি, খরচ কম। সার কীটনাশক লাগে কম। রোগবালাইও কম, দোষণও কম। দেশের চাহিদা পূরণ করে বহির্বিশ্বে রপ্তানির চাহিদাসম্পন্ন সব জাত। এগুলি আবাদ হয়েছে এবার কিশোরগঞ্জে। ফলনও হয়েছে ভাল। শতাংশে অন্যান্য জাতের আলুর ফলন হয় আড়াইমণ। নতুন জাতের আলুর ফলন হয়েছে সাড়ে ৩ থেকে ৪ মণ। এসব আলু মালয়েশিয়াসহ মধ্যপ্রাচ্যোর বিভিন্ন দেশে রপ্তানির চাহিদা রয়েছে। কৃষি কর্মকর্তাগণ আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন, এসব আলুর ফলন বাড়াতে পারলে ইপিজেডের মত কিশোরগঞ্জ হবে আলু রপ্তানি পল্লী।
মাঠ পর্যায়ে নতুন জাতের আলু আহরণ করে ফলন পরীক্ষা করার জন্য সোমবার সদর উপজেলার প্যারাভাঙা এলাকায় বিএডিসি আলুবীজ বিভাগের উদোগে মাঠদিবসের আয়োজন করা হয়। এতে সদর উপজেলা, পাকুন্দিয়া ও হোসেনপুরের আলু চাষীরা অংশ নেন। সেখানে আলীমুল সাহানের জমি থেকে কৃষি কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে সানসাইন এবং কুইন অ্যানি জাতের আলু উত্তোলন করা হয়। তাতে দেখা গেছে, সানসাইন আলু হেক্টরে ৪০ টন উৎপাদন ধরা হলেও এখানে ফলেছে ৫৮ টন। আর কুইন অ্যানি ৪০ টনের জায়গায় ফলেছে হেক্টরে ৪৮ টন।
আলু আহরণের পর সার ব্যবস্থাপনা বিভাগের উপপরিচালক মো. আক্তারুজ্জামান তালুকদারের সভাপতিত্বে মাঠ দিবসের আলোচনায় বক্তব্য রাখেন বিএডিসি প্রধান কার্যালয়ের মান নিয়ন্ত্রণ শাখার উপপরিচালক খায়রুল হাসাম শামীম, বীজ উৎপাদন বিভাগের উপপরিচালক একেএম মনিরুজ্জামান, কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের উর্ধতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, পাকুন্দিয়া আলু উৎপাদন জোনের উপপরিচালক হারুন-অর রশিদ, জেলা বীজ প্রত্যয়ন কর্মকর্তা তৌফিক আহম্মদ খান, কিশোরগঞ্জ আলুবীজ হিমাগারের উপপরিচালক রুহুল আমিন, আলুচাষী পাকুন্দিয়ার সুখিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আজিজুল হক, আলুচাষী বাবুল মিয়া, আলীমুল সাহান প্রমুখ।

ফলন পরীক্ষায় জমি থেকে তোলা হচ্ছে নতুন জাতের আলু -পূর্বকণ্ঠ

কৃষিবিদগণ বলেন, এতদিন ডায়মন্ড আর কার্ডিনাল জাতের আলুর আবাদ করা হতো। এগুলির ফলন কম, রোগবালাই বেশি। গায়ে দাদের মত দাগ হতো। নতুন জাতের আলুগুলোতে সার ও কীটনাশক কম লাগে। ফলন বেশি হয়। আবার রোগাবালাই নেই বললেই চলে। এগুলি দেখতে চকচকে। স্বাদেও উন্নত। চিপস কারখানায় এসব আলুর বেশ চাহিদা রয়েছে।
পাকুন্দিয়া উপজেলার সুখিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আজিজুল হক তোতা মিয়া জানিয়েছেন, তিনি পৈত্রিক সূত্রে একজন কৃষক। তিনি এবার তার এলাকায় ১৪ একর জমিতে নতুন জাতের আলুর আবাদ করে ভাল ফলন পেয়েছেন। এসব আলুর জমিতে প্রচলিত আলুর তুলনায় সার লাগে এক-তৃতীয়াংশ। ফলে এসব আলুর আবাদ অনেক সাশ্রয়ী। সদর উপজেলার প্যারাভাঙা এলাকার চাষী আলীমুল জাহান জানিয়েছেন, তিনি উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তার চাকরি করছেন। পাশাপাশি চাষাবাদও করেন। তিনি অন্যান্য চাষীদের উদ্বুদ্ধ করার জন্য এবার নতুন জাতের আলুর আবাদ করে ভাল ফলন পেয়েছেন। তার ফলন দেখে অন্য চাষীরাও আগ্রহ দেখাচ্ছেন। হোসেনপুরের চরজামাইল এলাকার চাষী খুররম জাহান মুরাদও ভাল ফলন পাওয়ার কথা জানিয়েছেন।
এদিকে পাকুন্দিয়া আলু উৎপাদন জোনের উপপরিচালক হারুন-অর রশিদ জানিয়েছেন, তিনি পাকুন্দিয়ার সরকারী আলুবীজ হিমাগারেরও দায়িত্বে আছেন। চুক্তিবদ্ধ কৃষকদের কাছ থেকে তিনি আলুবীজ কিনে হিমাগারে পরবর্তী মৌসুমের জন্য মজুদ করেন। তিনি জানান, বিএডিসির উন্নতমানের আলুবীজ আবাদ মৌসুমে ২৩ টাকা থেকে ৩৮ টাকা কেজি দরে কৃষকদের কাছে বিক্রি করা হয়। অথচ বিভিন্ন বেসরকারী কোম্পানীর বীজ বিক্রি হয় ৬০ টাকা থেকে ৬৫ টাকা কেজি। সেই কারণেও বিএডিসির পক্ষ থেকে নতুন জাতের আলুর আবাদ বৃদ্ধির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এছাড়া রপ্তানিকারক ডিলাররাও কৃষকদের উৎপাদিত আলু কিনে নিয়ে যান। তারা দেশের বিভিন্ন এলাকাসহ বিদেশেও রপ্তানি করে থাকেন। নতুন জাতের আলুর পরীক্ষামূলক আবাদ এবার তৃতীয় বছরে পা দিল। ফলাফল প্রত্যাশারও বেশি। ফলে নতুন জাতের উচ্চফলনশীল আলুর বিরাট সম্ভাবনা রয়েছে বলে তিনি মনে করছেন।
এবার জেলায় নতুন জাতের আলু ৩৫ একর জমিতে আবাদ করা হয়েছে। এতে বাড়তি ১০ হাজার মণ আলু পাওয়া যাবে। বর্তমানে দেশে ১ কোটি ২০ লাখ টন আলু উৎপন্ন হয়। এর মধ্যে দেশের চাহিদা আছে ৭০ লাখ টনের মত। বাকি আলু রপ্তানি করা সম্ভব। নতুন জাত আবাদ করলে মোট উৎপাদন আরও বেড়ে যাবে। আমন ধান কাটার পর কৃষকরা একই জমিতে এসব আলুর আবাদ করতে পারেন। এরপর একই জমিতে ভুট্টার আবাদ করতে পারেন। ভুট্টার পর পাট আবাদ করতে পারেন বলে কৃষিবিদরা ধারণা দিয়েছেন। ফলে একটি জমিতে সহজেই চারটি ফসল ফলানো সম্ভব। এতে কৃষকরা অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হতে পারেন। মাঠ দিবসের মঞ্চে তিন উপজেলায় উৎপাদিত নতুন ১৭ জাতের আলু সারিবদ্ধভাবে সাজিয়ে রাখা হয়। এগুলির মধ্যে ছিল সানসাইন, কুইন অ্যানি, ক্যারোলাস, রাশিদা, বারি আলু-৪০, বারি আলু ৪১, বারি আলু-৬২, বারি আলু-৭৯, লেবেলা, এস্টারিক্স, লেবেলা সানতানা ইত্যাদি। এর মধ্যে অনেকগুলো জাত জার্মানি, নেদারল্যান্ডস এবং পেরু থেকে আমদানি করে কৃষি বিজ্ঞানিরা টিস্যু কালচার করে এদেশের তাপমাত্রার উপযোগী জাত উদ্ভাবন করেছেন। এলাকার কৃষকরা এসব আলুর দৃশ্য দেখে আগামীতে আবাদের আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *