• মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৭:০৫ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জের ৩ উপজেলার নির্বাচনে মোতায়েন ৭ প্লাটুন বিজিবি সদস্য নিকলীতে রাত পোহালেই ভোট, মোটরসাইকেল ও আনারসের মাঝে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস র‌্যাব হেফাজতে গৃহবধূর মৃত্যু ভৈরবের ৪ র‌্যাব সদস্যসহ নান্দাইলের এক এসআই প্রত্যাহার কুলিয়ারচর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আবুল হোসেন লিটন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় বিএনপির যুবদল নেতাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ বাজিতপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে মার্কা বিতরণ করিমগঞ্জে বারঘড়িয়া ফাজিলখালী ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসায় ৪ তলা নতুন ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন ক্যাম্পে এক নারীর মৃত্যুতে র‌্যাব কর্মকর্তা প্রত্যাহার কিশোরগঞ্জে ভোক্তা অধিকার আইন বাস্তবায়নে সেমিনার ঐতিহ্যবাহী লাঠিখেলার এখন চলছে দুর্দিন

ত্রাণভিত্তিক ব্যবস্থাপনা থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করা হচ্ছে —– আতিকুল হক

বক্তব্য রাখছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের মহাপরিচালক মো. আতিকুল হক -পূর্বকণ্ঠ

ত্রাণভিত্তিক ব্যবস্থাপনা
থেকে বেরিয়ে আসার
চেষ্টা করা হচ্ছে
—– আতিকুল হক

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-

কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চলে আগাম বন্যা সম্পর্কিত সতর্কিকরণ, আগাম প্রণোদনা ও ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলা বিষয়ে করণীয় সম্পর্কে আজ ৩০ আগস্ট মঙ্গলবার সকালে সার্কিট হাউজ সম্মেলন কক্ষে একটি কর্মশালা হয়েছে। এতে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের মহাপরিচালক মো. আতিকুল হক বলেছেন, বাংলাদেশ বিশ্বের কাছে প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় একটি মডেল। এক সময় উপকূলের জলোচ্ছ্বাসে লাখ লাখ মানুষ মারা যেত। এখন অধিকাংশ দুর্যোগে মৃতের সংখ্যা থাকে সিঙ্গেল ডিজিটে। দুর্যোগের পর সরকারসহ বিভিন্ন মহল ত্রাণ নিয়ে ছুটে যায় দুর্গত এলাকায়। তবে এখন ত্রাণভিত্তিক ব্যবস্থাপনা থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা চলছে। আগাম সতর্কতা দিয়ে কি করে ক্ষয়ক্ষতি এড়ানো যায় বা সর্বনিম্ন পর্যায়ে রাখা যায়, সেই চেষ্টা ও গবেষণা চলছে। তবে সিতাকুণ্ডে যে অগ্নিকাণ্ডের দুর্ঘটনাটি ঘটলো এটি বাংলাদেশে নজিরবিহীন। এখানে ১৪ জন উদ্ধারকর্মিকে আমাদের হারাতে হয়েছে, যা ইতোপূর্বে কখনই ঘটেনি। এ ধরনের দুর্ঘটনার পূর্ব সতর্কতা এবং মোকাবেলায় যে ঘাটতি ছিল, সেটি আমাদের ভাবনায় নাড়া দিয়েছে। তবে প্রধানমন্ত্রী ফায়ার সার্ভিস, কোস্টগার্ড, পুলিশ, বিজিবিসহ বিভিন্ন বিভাগকে ২৩শ’ কোটি টাকার উদ্ধার যন্ত্রপাতি দিচ্ছেন। আগামীতে যে কোন ধরনের দুর্যোগ মোকাবেলায় আমরা আরও সাফল্যের সঙ্গে কাজ করতে পারবো। তিনি এবারের সিলেট ও সুনামগঞ্জের নজিরবিহীন বন্যাকে মনুষ্য সৃষ্ট আখ্যায়িত করে বলেন, আমরা সুরমা-কুশিয়ারাকে মেরে ফেলেছি। ভারী বর্ষণের পানি দ্রুত নিষ্কাশনের ক্ষমতা নেই। এবারের বন্যা ১২৭ বছরের রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। এ ছাড়া সিলেট শহরে কখনও বন্যার পানি ওঠে না বলে সেখানে প্রয়োজনীয় ড্রেনেজ ব্যবস্থাও ছিল না। যে কারণে এই নজিরবিহীন বন্যাটি হয়েছিল। এ বন্যায় সেখানকার ১৭ হাজার ৫শ’ গাড়ির অস্তিত্বই খুঁজে পাওয়া যায়নি। এ ধরনের বন্যার অভিজ্ঞতা ছিল না বলে পর্যাপ্ত নৌকাও ছিল না। যে কারণে ত্রাণ বিতরণেও সমস্যা হয়েছে। দূরবর্তী এলাকায় ত্রাণ পৌঁছানো সম্ভব ছিল না বলেও তিনি জানিয়েছেন।
বেসরকারী সংস্থা পপির উদ্যোগে ও জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলমের সভাপতিত্বে পপির উপ-পরিচালক খলিলুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত কর্মশালায় আরও বক্তব্য রাখেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রকল্প পরিচালক নিতাই দে সরকার, জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. লুৎফর রহমান এবং ফাও’র জাতীয় কর্মসূচী বিশেষজ্ঞ সামছুন নাঈমা রহমান। এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) মো. মোস্তাক সরকার উপস্থিত ছিলেন।
কর্মশালায় জানানো হয়, ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থায়নে ফাও একযোগে এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের ৫টি দেশ বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ফিলিপাইন, ভিয়েতনাম ও লাওসে প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলার ওপর কাজ করছে। বিশেষ করে কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চলে আগাম বন্যার সতর্কিকরণ আভাস দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ পরিবারগুলোকে অর্থ ও গোখাদ্যসহ বিভিন্ন ধরনের প্রণোদনা ও সহায়তা দিয়ে কি করে বন্যার ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনা যায়, সেই লক্ষ্যে কাজ করা হচ্ছে। আর এই কাজগুলো বাস্তবায়ন করছে পপি এবং কেয়ার বাংলাদেশ। তদারকি করছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ। বন্যার সময় পরিবারগুলোকে গবাদি পশুসহ নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া, আইন শৃংখলা রক্ষার পর্যাপ্ত ব্যবস্থা করা, ভ্রাম্যমাণ স্বাস্থ্যকেন্দ্র চালু করা, পর্যাপ্ত ডুবুরি মোতায়েন রাখা, পর্যাপ্ত অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা রাখা, আশ্রয় নেয়া পরিবারগুলোর খাবারের নিশ্চয়তা দেয়াসহ যাবতীয় করণীয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।
কর্মশালায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সড়ক বিভাগের নির্বহী প্রকৌশলী রিতেশ বড়ুয়া, সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. কামরুজ্জামান খান, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান, মহিলা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মামুন-অর রশিদ, সিনিয়র জেলা তথ্য কর্মকর্তা মো. সামছুল হক, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সামছুন নাহার মাকছুদা, ভারপ্রাপ্ত ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. নাজমুল করিম, পপির জেলা সমন্বয়ক মুহাম্মদ ফরিদুল আলম, কেয়ার প্রতিনিধি মো. শাহাব উদ্দিন, কৃষি, মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ বিভাগের কর্মকর্তাগণ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *