• বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৮:৫৩ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

হাজার কোটি টাকা লোকসানের আশংকায় ভৈরবের পাদুকা কারখানা সীমিত আকারে খুলে দেওয়ার দাবি

ভৈরবের গোধূলিসিটির রপ্তানিমূখি গ্রেট ফুটওয়্যার নামের এই পাদুকা কারখানায় ৪ থেকে ৫ কোটি মূল্যের পাদুকার মজুদ পড়ে আছে। উৎপাদন বন্ধ থাকায় ১০ থেকে ১৫ কোটি টাকার লোকসানে পড়বে বলে কারখানা কর্তৃপক্ষের দাবি। - পূর্বকণ্ঠ

হাজার কোটি টাকা লোকসানের আশংকায় ভৈরবের
পাদুকা কারখানা সীমিত আকারে খুলে দেওয়ার দাবি

# মোস্তাফিজ আমিন :-

বর্তমান মহামারি করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সরকারি নির্দেশনায় কারখানা বন্ধ থাকায় হাজার কোটি টাকা লোকসানের কারণে ধ্বংস হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে কিশোরগঞ্জের ভৈরবের বিকাশমান পাদুকাশিল্প। কারণ রমজানের ঈদকে কেন্দ্র করেই এখানকার পাদুকাশিল্পের অর্থনীতির চাকা ঘুরে। তাই আসন্ন রমজানের ঈদকে সামনে রেখে কারখানাগুলি সীমিত আকারে খুলে দেয়া ও উৎপাদিত পাদুকা দেশব্যাপী বিক্রির সুযোগ দাবি সংশ্লিষ্টদের।
রাজধানী শহর ঢাকার পরেই দেশের পাদুকাশিল্পের সবচেয়ে বেশী বিকাশ ঘটেছে নদীবন্দর ভৈরবে। অবিভক্ত ভারতের বিভক্তির পর তৎকালীন পূর্ববাংলার রাজধানী কলকাতা শহরে পাদুকাশিল্পে কাজ করা এখানকার কারিগররা নিজ এলাকায় এসে অল্প পরিসরে গড়ে তুলেছিলো পাদুকাশিল্প কারখানা। তখন ভৈরব অঞ্চল ছিলো তাঁতশিল্পের জন্য প্রসিদ্ধ।
১৯৭১ সালে দেশের স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে দেশের তাঁতশিল্পের বিপর্যয়ের ঢেউ ভৈরবেও লাগে। পর্যায়ক্রমে এখানকার তাঁতশিল্পগুলি বন্ধ হয়ে যায়। ফলে কর্ম হারা তাঁতশিল্পের মালিকরা তাদের শ্রমিকদের নিয়ে গড়ে তুলেন পাদুকা কারখানা। যেগুলি বর্তমানে ফুলে-ফেঁপে ছোট-বড় মিলিয়ে ১০/১২ হাজার কারখানায় রূপ নিয়েছে। যারমধ্যে আধুনিক যন্ত্রপাতি সমৃদ্ধ রপ্তানিমূখি ৮/১০টি বড় পরিসরের কারখানাও আছে। আর এইসব কারখানায় এক লাখেরও বেশী শ্রমিক কাজ করেন। নারী শ্রমিক কাজ করন ১৫/২০ হাজার। ফলে কৃষির পরে এখানকার মানুষের কর্ম ও অর্থনীতি এই শিল্পকে ঘিরেই।
ভৈরবের পাদুকা কারখানার মালিকরা জানান, সারা বছর তাদের উৎপাদন এবং বিক্রি অল্প স্বল্প হলেও, রমজানের দুই আড়াই মাস আগে থেকে পুরোদমে শুরু হয়। এ সময় প্রতিটি কারখানা কর্মমূখর হয়ে ওঠে। শ্রমিক-মালিকরা দিন-রাতের প্রায় ১৮ থেকে ২০ ঘণ্টা কাজ করে থাকেন। যত বেশী শ্রম, তত বেশী উৎপাদন। আর যত বেশী উৎপাদন, তত বেশী মজুরি আর মুনাফা। তাই তারা দিন-রাতের ব্যবধান ভুলে যান।
কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে বর্তমানে সেই কর্মমূখর কারখানাগুলি বন্ধ থাকায় সেগুলিতে এখন বিরাজ করছে সুনসান নীরবতা। কাঁচামাল আর যন্ত্রপাতিগুলিতে মিশে আছে ধূলো-বালি। কাজ হারিয়ে শ্রমিকরা দিন যাপন করছেন অর্ধ আহার, অনাহারে। আর মালিকরা কষছেন লোকসানের ধারাবাহিক অংক। কারখানার ভাড়া, বিদ্যুৎ-জেনারেটর, গ্যাস বিল। ব্যক্তি, ব্যাংকসহ বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে আনা ঋণের সুদ।
তারা আরও জানান, কারখানার আকার অনুযায়ী, সেগুলিতে লাখ থেকে কোটি টাকার উৎপাদিত পাদুকার মজুদ পড়ে আছে। যা দেশ-বিদেশের বিভিন্ন মোকামে সরবরাহ করে গত মৌসুমের ৫০ থেকে ৭০ শতাংশ বকেয়া পাওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু এই ঈদে যদি সরবরাহ বন্ধ থাকে, তবে বকেয়া পাওয়ার সম্ভাবনা বন্ধ হয়ে যাবে। এতে করে বড় রকমের লোকসানের মুখে পড়বেন কারখানার মালিকরা। আর্থিক লোকসানের কারণে বন্ধ হয়ে যাবে কারখানাগুলি। কর্ম হারিয়ে বেকার হয়ে আর্থিক অভাব অনটনে পড়বেন এই শিল্পের সাথে জড়িত হাজার হাজার শ্রমিক-মালিক।

ভৈরবে ভরা মৌসুমেও বন্ধ থাকায় পাদুকা কারখানাগুলিতে এখন সুনসান নীরবতা। -পূর্বকণ্ঠ

ভৈরব শহরের গোধূলিসিটি এলাকার গ্রেটফুটওয়্যারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সহিদ মিয়া জানান, তাঁর কারখানায় প্রায় ৪ কোটি টাকার উৎপাদিত পাদুকার মজুদ পড়ে আছে। আর এই মওসুমে তার কারখানায় আর ৪ থেকে ৫ কোটি টাকার পাদুকা তৈরি হতো। এইসব উৎপাদিত পাদুকা বিপণনের মাধ্যমে তার কমপক্ষ্যে ৪ কোটি টাকা মার্কেট থেকে তহবিলে আসতো।
কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতির কারণে সবই শূণ্যের কোটায়। উৎপাদন, বিক্রি এবং আয়-সবই স্থবির। ফলে ১০ থেকে ১২ কোটি টাকার লোকসানের মুখে পড়েছেন তিনি। অন্যদিকে তাঁর কারখানায় কর্মরত ৩শ শ্রমিককে মার্চ মাসের বেতন দিয়েছেন লোন করে। এপ্রিলের বেতন পরিশোধ নিয়ে আছেন দুশ্চিন্তায়।
একই বিপর্যয়ের কথা জানালেন শহরের বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এয়ারমেক্স ফুটওয়্যারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আমির হোসেন। তিনি দাবি করেন, বর্তমান সামাজিক দূরত্ব মেনে তাদের কারখানাগুলি সীমিত আকারে খুলে দেওয়ার। তিনি জানান, তাঁর রপ্তানিমূখি এই কারখানা থেকে দেশের বিভিন্ন এলাকাসহ সৌদী আরব, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ ও ভারতে পাদুকা রপ্তানি করে থাকেন। বর্তমান পরিস্থিতিতে সব বন্ধ। সীমিত আকারে কিছু পাদুকা উৎপাদন করা গেলে শ্রমিকদের বেতনাদি পরিশোধ করা যেতো।
কমলপুর এলাকার ঐশী সেন্ডেল কারখানা ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. নাছির উদ্দিন জানান, তাঁর কারখানায় ১৫০জন শ্রমিক কাজ করেন। তাদের মাসিক বেতন আসে প্রায় সাড়ে ২২ লাখ টাকা। কারখানা বন্ধ থাকায় উৎপাদন বন্ধ। বিক্রি বন্ধ থাকায় আয় বন্ধ। কিন্তু শ্রমিকের বকেয়া বেতন, কারখানা ভাড়া, বিদ্যুৎ বিল, ব্যাংক ঋণের সুদ, সব বেড়ে চলছে। তিনি দাবি করেন, সরকার ঘোষিত প্রণোদনা যদি না পান, তবে পরিস্থিতি ভালো হলেও তার কারখানা চালু করা সম্ভব হবে না।
একই এলাকার সবুজ ফুটওয়্যারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও ভৈরব পাদুকা কারখানা মালিক সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. সবুজ মিয়া জানান, পাদুকা হলো নিত্য নতুন ডিজাইন নির্ভর। এই মৌসুমের ডিজাইনটি পরের মৌসুমে ক্রেতাদের নজর কাড়বে না। তাই এই মৌসুমকে উপলক্ষ্য করে তারা উৎপাদনের যে মজুদ সারা বছর গড়ে তুলেছেন, সেটি আগামী মৌসুমে আর টিকবে না বাজারে। আর বাজারে বিক্রি না করতে পারলে গত মৌসুমের বকেয়া আর উঠানো সম্ভব হবে না। ফলে তারা বড় রকমের লোকসানে পড়ে যাবেন। যা কাটিয়ে উঠা কঠিন হয়ে পড়বে।
ভৈরব বাজারের বাগানবাড়ি এলাকার সাগর ফুট ইন্ডাস্ট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং ভৈরব চেম্বারের সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, পাদুকা শিল্পের বিপর্যয় ঘটলে ভৈরবের অর্থনীতিতে এক বিরাট বিশৃংখলা দেখা দেবে। কারণ এই পাদুকাকে কেন্দ্র করে এখানে কাগজ তৈরির বোর্ডমিল থেকে শুরু করে, র‌্যাকসিন, রং, চামড়া, বক্স ইত্যাদিসহ আনুসঙ্গিক অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। এইসব খাতে বিনিয়োগ হয়েছে কয়েক হাজার কোটি টাকা। কর্মসংস্থানসহ জীবন-জীবিকার চাকা ঘুরে কয়েক লাখ লোকের। তাই এই বিপর্যয় ঠেকাতে সরকারকে সঠিক সময়ে একটি সঠিক সিদ্ধান্তে আসতে হবে।
ভৈরব পাদুকা কারখানা মালিক সমবায় সমিতির সভাপতি মো. আল আমিন মিয়া দাবি করেন, প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাবনা অনুযায়ী সীমিত আকারে তাদের কিছু কারখানা যেনো খুলে দেওয়া হয়। যাতে করে তারা এই রমজানের ঈদের মৌসুমটাকে কাজে লাগাতে পারেন। ধান যেমন একটি জরুরি বিষয়, তেমনি পাদুকাকেও বিবেচনায় নিয়ে উৎপাদন এবং বিক্রির ব্যবস্থাও দাবি করেন তিনি।
এদিকে ভৈরব চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি আলহাজ্ব মো. হুমায়ুন কবির পাদুকা কারখানা মালিকদের দাবির সাথে একমত পোষণ করে জানান, ভৈরব চেম্বারের পক্ষ থেকে উপজেলা ও জেলা প্রশাসনের সাথে কথা বলে কিছু কিছু কারখানা খুলে দেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা জানান, পাদুকা কারখানা ভৈরবের একটি বড় শিল্প মাধ্যম। যেখানে বহু লোকের কর্মসংস্থান তৈরি করেছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে তিনি তাদের সমস্যার বিষয়ে অবগত আছেন। জেলা প্রশাসকের সাথে কথা বলে এই বিষয়ে তিনি একটি সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন।

ভৈরবের কারখানায় তৈরি পাদুকা। -পূর্বকণ্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!