• বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০৫:০১ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে ডিম বিক্রি অর্ধেকে নেমে এসেছে, আস্ত ডিম ছেড়ে অনেকে খাচ্ছে আধাখানা ডিম পাকুন্দিয়ার আলতাফ সড়ক দুর্ঘটনায় কাপাসিয়ায় নিহত কিশোরগঞ্জে এক সপ্তাহ পর করোনায় আক্রান্ত ১ জেলায় চিকিৎসাধীন ২ বিএনপি-জামাত জোট সরকারের শাসনামলে সংগঠিত দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে ভৈরবে বিক্ষোভ সমাবেশ কিশোরগঞ্জে সৎ মেয়ের জামাতা হত্যায় পিতার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পাকুন্দিয়ায় কিশোরীকে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ৩ পাকুন্দিয়ায় পুকুরের পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু কিশোরগঞ্জে পটাশ সারের তীব্র সঙ্কটে ১৬ টাকার সার বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকায় শিক্ষার্থীদের কে খোলা চিঠি দিয়ে প্রশংসিত অষ্টগ্রামে ইউএনও পাকুন্দিয়ায় অবৈধ সিসা কারখানায় অভিযান চালিয়ে মালিককে কারাদ-

ভৈরবে দুই দিন ব্যাপী পিঠা উৎসব উদ্বোধন

# আফসার হোসেন তূর্জা :-

শীত মানেই পিঠা-পুলির খাওয়ার আয়োজন। পিঠা-পুলির স্বাদ ছড়িয়ে দিতে ও ঐতিহ্য ধরে রাখতে পিঠা উৎসব উদযাপন পরিষদ ভৈরব এর আয়োজনে দুই দিনব্যাপী ভৈরবে চতুর্থ পিঠা উৎসব ১৪২৮ শুরু হয়েছে। শুক্রবার (৪ মার্চ) সন্ধ্যা ৭টায় ভৈরব বাজারের রাজকাচারী প্রাঙ্গণে আয়োজিত এ পিঠা উৎসব উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ সুপ্রীমকোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন বাদল।
এছাড়া অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, পিঠা উৎসব উদযাপন পরিষদ ভৈরব এর প্রধান উপদেষ্টা ও সাবেক পৌর মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট ফখরুল আলম আক্কাছ, ভৈরব উপজেলা আওয়ামী লীগ সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবুল মুনসুর, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি আলহাজ্ব মো. জিল্লুর রহমানের সাবেক একান্ত সচিব সাখাওয়াত হোসেন মোল্লা, ভৈরব উপজেলা বিএনপি আহবায়ক রফিকুল ইসলাম, পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি এস এম বাকি বিল্লাহ, পিঠা উৎসব উদযাপন পরিষদ ভৈরব এর উপদেষ্টা ও পৌর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আতিক আহমেদ সৌরভ প্রমুখ।অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথিরা বলেন, আবহমানকাল থেকে গ্রামীণ ঐতিহ্যের অংশ হরেক রকমের পিঠা বাঙালি পরিবারের রসনা বিলাসে গুরুত্বপূর্ণ জায়গা দখল করে থাকলেও বর্তমান যান্ত্রিক নগর জীবনে সেই ঐতিহ্য আজ অনেকটায় ম্রিয়মান হয়ে উঠছে। আর বর্তমান এই যান্ত্রিক নগর জীবনে পিঠার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতেই ছিল এই পিঠা উৎসব।
এসব পিঠার নাম হয়ত অনেকের জানা নেই। গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী এসব পিঠা পরিবেশন করে সবাইকে পরিচয় করিয়ে দেওয়াই উৎসবের উদ্দেশ্য।
এছাড়া এমন উৎসবকে অত্যন্ত ইতিবাচক হিসেবে আখ্যায়িত করেন অতিথিরা। তাই তারা আকুণ্ঠ সমর্থন জানিয়ে সাধুবাদ জানান পিঠা উৎসব আয়োজক কমিটিকে। তারা এই আয়োজনের ধারাবাহিকতাও প্রত্যাশা করেন তাদের বক্তব্যে।
আলোচনা শেষে অতিথিরা নানা ধরনের পিঠার পসরা নিয়ে সাজানো স্টলগুলো ঘুরে দেখেন। পিঠার চিত্রতা আগত দর্শক ও ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় দেখে তারা মুগ্ধ হন। এছাড়া রকমারি পিঠা পরিবেশন করতে পেরে আনন্দিত অংশগ্রহণকারীরাও। এবারের উৎসবে মোট ১১ টি স্টল স্থান পেয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!