• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:০৯ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

ফার্মেসিতে ভুয়া অভিযান, শেষে জনতার হাতে ধরা

ফার্মেসিতে ভুয়া অভিযান, শেষে জনতার হাতে ধরা

# নিজস্ব প্রতিবেদক #

৩০ মার্চ সোমবার রাত ১০টা। দুজন পুরুষ সহযোগী নিয়ে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীর বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় অবস্থিত একটি ফার্মেসিতে হানা দেন এক নারী। গিয়ে নিজেকে ম্যাজিস্টেট পরিচয় দেন। সঙ্গের দুই পুরুষ তার অফিসের কর্মচারী বলে জানান। এতে কিছুটা ভীত হয়ে পড়েন ফার্মেসি মালিক ইসমাইল মিয়া।
তল্লাশি চালিয়ে তেমন কোনো ভুল শনাক্ত করতে না পেরে ম্যাজিস্ট্রেট রূপী নারী অভিযোগ আনেন, দোকান পরিষ্কার নয়। করোনার এই পরিস্থিতিতে ওষুধের দাম বেশি রাখা হচ্ছে। এ সময় দোকানির কোনো কথাই শোনেননি ওই নারী। দণ্ডাদেশ থেকে বাঁচতে হলে দোকানিকে নগদ ৩০ হাজার টাকা দিতে বলেন।
দোকানি টাকা দিতে গড়িমসি করলে ওই অভিযান পরিচালনাকারী নারী নিজেই ক্যাশবাক্স খোলেন এবং দেখেন দেড় হাজার টাকা আছে। ক্যাশ থেকে ওই টাকা হাতিয়ে নেন সঙ্গে থাকা দুই পুরুষ সহযোগী। বাকি ২৮ হাজার ৫০০ টাকা আদায়ের জন্য দাঁড়িয়ে থাকার সময় জনতার রোষানলে পড়েন ম্যাজিস্টেট ও সঙ্গে থাকা দুজন। পরে প্রমাণ হয় তিনি আসল ম্যাজিস্ট্রেট নন, ভূয়া ম্যাজিস্ট্রেট। তিনজনকেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
পুলিশ জানায়, গ্রেফতার হওয়া নারীর নাম সাবরিনা সুলতানা। সহযোগী দুজন হলেন এইচ এম আব্বাস ও শাজিদুল হক। সাবরিনা ঢাকার নবাবগঞ্জের বাসিন্দা, আর আব্বাস ও শাজিদুল কটিয়াদীর স্থানীয়।
ফার্মেসি মালিক ইসমাইল বলেন, ফার্মেসিতে এসে এমন ভাব নিয়েছেন, তখন মনে হয়েছে ম্যাজিট্রেটই এসেছে। পরে টাকা নিয়ে কথা বলার পর সন্দেহ জাগে এবং লোকজনও জড়ো হতে থাকে।
আটক সাবরিনা বলেন, নিজের সংগঠনের তহবিল গঠনের জন্য ওই দোকানির কাছে চাঁদা চেয়েছিলেন। ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় কেন দিলেন, জিজ্ঞাসা করতেই তিনি বলেন, ‘ ভুল হয়ে গেছে।’
কটিয়াদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুল জলিল বলেন, তিনজনের নামে দ্রুত বিচার আইনে মামলা হয়েছে। তিনজনকেই ৩১ মার্চ মঙ্গলবার কিশোরগঞ্জ কারাগারে পাঠানো হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *