• শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৪৯ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ও বৃত্তি প্রদান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিনের গীতিনৃত্য কিশোরগঞ্জে ট্রিপল ডিজিট রোগী একটি আর ডাবল ডিজিট দুই উপজেলায়, নতুন রোগী ১২, সুস্থ ১০ লায়ন মজিব-মুনা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে চায়না ইমপোর্ট এন্ড এক্সপার্ট কর্পোরেশনের মাস্ক বিতরণ শিক্ষানুরাগী মমতাজ মিয়ার রুহের মাগফেরাত কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত কিশোরগঞ্জ জেলা কর আইনজীবী সমিতির নতুন কার্যনির্বাহী কমিটি গঠিত কিশোরগঞ্জে আক্রান্ত ৯, সুস্থ হলেন ১০ জন সভাপতি আজিজ সম্পাদক অসীম, তাড়াইলে গণতন্ত্রী পার্টির সম্মেলনে নতুন কমিটি ভৈরবে বাদীই খুনী, আদালতে স্বীকারোক্তি হোসেনপুরে ১ হাজার পরিবার পেল খাদ্য সহায়তা

আমার কৈফিয়ত : এড. ফখরুল আলম আক্কাছ

আমার কৈফিয়ত

এড. ফখরুল আলম আক্কাছ

ভৈরব পৌর এলাকার একটি বিশেষ অঞ্চলের মানুষের মধ্যে দু’একটি বিষয়ে ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছে। আমি যতদূর জানতে পেরেছি সে এলাকাটি হচ্ছে কমলপুরের আমলাপাড়া ও মোল্লা বাড়ির মানুষ আমার প্রতি নাকি নাখোশ হয়েছেন। ইদানিং ফেসবুকের মাধ্যমে তাদের অসন্তোষ প্রকাশও করেছেন। অন্যদিকে আমি ফেসবুক নিয়ে চর্চা না করার কারণে এসব আমার চোখে পড়েনি। কিন্তু লোকমুখে শুনে আমি বিষয়টি অবগত হয়েছি। তাই আজ আমি এ ব্যাপারে আমার বক্তব্য তুলে ধরছি।
আমরা সবাই জানি আমাদের দেশের গ্রামগুলো মৌজা ভিত্তিক গ্রাম। ব্রিটিশ আমলে এসব সৃষ্টি হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতা আজও অব্যাহত আছে। মৌজার নামেই গ্রামের উৎপত্তি হয়েছে। আগে এসব গ্রামের লোক সংখ্যা অনেক কম ছিল। কিন্তু বর্তমানে প্রতিটি গ্রামেই লোক সংখ্যা বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এ কারণেই বর্তমানে মৌজা ভিত্তিক এসব গ্রামে কারও ঠিকানা খুঁজে পাওয়া দুস্কর। উদাহরণ হিসেবে উল্লেখ করছি, ধরুণ শুধুমাত্র কমলপুর মৌজার কথাই উল্লেখ করি। এ মৌজায় রয়েছে মূল কমলপুর থেকে বিচ্ছিন্ন ঘোড়াকান্দা, পঞ্চবটি, রেলওয়ে-স্টেশন ও রেল কলোনী। অন্যদিকে ভৈরব-কিশোরগঞ্জ রোডের পূর্ব পার্শ্বের একটা বিরাট এলাকা যা গাছতলা ঘাটে গিয়ে ঠেকেছে। উত্তর পশ্চিম দিকে সাতমুখী বিল পর্যন্ত বিস্তৃত একটা বিশাল আয়তনের জনবসতির নাম কমলপুর গ্রাম। এবার বলুন, এ গ্রামটি ভৌগলিক ভাবে কয়েকটি ভাগে বিভক্ত না করে উপায় কি? বিভক্ত করে ভিন্ন ভিন্ন নামে অভিহিত না করলে বসতিদের ঠিকানা খুঁজে পাওয়ার উপায় কি? আবার বিভক্তি বলতে আমি গ্রামটিকে টুকরা টুকরা করতে চাই না। চেনা-জানা এবং খুঁজে পাওয়ার সুবিধার্থে ভিন্ন, ভিন্ন অঞ্চলের ভিন্ন ভিন্ন নাম না রেখে উপায় কি? ইদানিং এ ধরণের জটিল সমস্যার সমাধান করার লক্ষ্যেই গ্রামগুলোকে ভিন্ন ভিন্ন অঞ্চলে বিভক্ত এবং চিহ্নিত করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। অপর দিকে অকারণে সৃষ্ট জটিলতা মুক্ত করে সহজ ভাষায় সকলের বোধগম্য শব্দ প্রয়োগ করে এলাকার নামগুলোকে ভিন্ন ভিন্ন অঞ্চলে বিভক্ত এবং চিহ্নিত করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। যেমন চণ্ডিবের গ্রামের উত্তর অংশটি কামাল সরকারের খালের উত্তর দিকে বিদ্যমান দড়ি চণ্ডিবের নামে অভিহিত হচ্ছিল এতকাল। এক্ষেত্রে আমি উদ্যোগ নিয়ে নামটি সংশোধন করে দড়ি কেটে দিয়েছি। বর্তমানে এ অঞ্চলের নামকরণ করা হয়েছে চণ্ডিবের উত্তর পাড়া। বর্তমানে ঐ এলাকার সর্বসাধারণ দড়ি চণ্ডিবের বলেও না লিখেও না। এবার আসুন, আমাদের নিজ গ্রাম ভৈরবপুরের দিকে। এতদিন গ্রামটি ২টি পাড়ায় বিভক্ত ছিল রেল সড়কের বদৌলতে। ঢাকা-চট্টগ্রাম রেল লাইনের কারণে রেলের দক্ষিণাংশটি হয়ে যায় ভৈরবপুর দক্ষিণ পাড়া আর উত্তর অংশটি ছিল ভৈরবপুর উত্তর পাড়া। এবার আসুন উত্তর পাড়ার দিকে নজর দেই। রেল সড়ক থেকে উত্তর দিকের বিশাল এলাকাটি শম্ভুপুর পর্যন্ত গিয়ে ঠেকেছে। বিরাট লম্বা এ এলাকাটিকে বর্তমানে বিভক্ত করে ২টি অঞ্চলে ভাগ করা হয়েছে। অর্থাৎ রেল লাইন থেকে ভৈরবপুর গাছতলা ঘাট পর্যন্ত অঞ্চলটিকে নতুন নামকরণ করা হয়েছে ভৈরবপুর মধ্যপাড়া। তারপর থেকে অর্থাৎ গাছতলা ঘাটের উত্তর অংশটির নামকরণ করা হয়েছে উত্তর পাড়া। আমাদের এ অঞ্চলের মানুষ স্বতঃস্ফুর্ত ভাবে এ বিভক্তি মেনে নিয়েছে।
এবার আসা যাক কমলপুরের দিকে। মূল গ্রাম কমলপুর থেকে বিচ্ছিন্ন এবং দুরবর্তী এক জন বসতির নাম পঞ্চবটি। এ এলাকার মানুষ পঞ্চবটিকেই গ্রাম বলতো এবং লিখতো। অন্যদিকে ঘোড়াকান্দার মানুষও ঘোড়াকান্দাকেই গ্রাম হিসেবে লিখতো এবং বলতো। আমি এসব পরিবর্তন করে পঞ্চবটির আগে কমলপুর ও ঘোড়াকান্দার আগেও কমলপুর লেখা বাধ্যতামূলক করে দিয়েছি। যার ফলে সর্বশ্রেণির মানুষ স্বতঃস্ফুর্তভাবে এটা কার্যকর করে ফেলেছে।
দক্ষিণ কমলপুর রেখে এবার আসি উত্তর কমলপুরের দিকে। ঢাকা-চট্টগ্রাম রেল সড়ক দ্বারা বিভক্ত কমলপুরের দিকে দৃষ্টিপাত করি। ভৈরব-কিশোরগঞ্জ রোডের পূর্বাংশের নামকরণ করা হয়েছে কমলপুর পূর্বপাড়া। কিশোরগঞ্জ রোডের পশ্চিম দিকে ঈদগা মাঠ পর্যন্ত কমলপুর মধ্য পাড়া এবং ঈদগা মাঠের পশ্চিম অংশ দক্ষিণ রেল স্টেশনের উত্তর অংশকে পশ্চিম পাড়া নামে অভিহিত করলে সুন্দর এবং যুক্তিপূর্ণ হয়। এতে করে ঠিকানা খুঁজে পাওয়া সহজ হবে। এহেন বিভক্তি ছাড়া এই জটিল সমস্যার সমাধান সম্ভব নয়। অর্থাৎ কাঙ্খিত মানুষকে খুঁজে পাওয়াও সহজ হবে আবার সময়ও বাঁচবে।
অতঃপর আসুন মোল্লা বাড়ি প্রসঙ্গে। কেউ কেউ নাকি বলে বেড়াচ্ছে আমি নাকি কমলপুর থেকে মোল্লা বাড়িকে বাদ দিয়ে ফেলেছি। এমন আজগুবি কথাও কেউ বলতে পারে? আমি বাদ দেয়ার কে? প্রত্যেক গ্রামেই তো মোল্লা বাড়ি, খাঁ বাড়ি, ভূঁইয়া বাড়ি ও মিয়া বাড়ি ইত্যাদি তো আছেই। এসব বাড়ি ঘর নিয়েই তো গ্রামের উৎপত্তি। কারও বাড়ি ঘর বা বংশ বাদ দেওয়ার আমি কে? আসলে এটা সম্পূর্ণ অযৌক্তিক ও অসম্ভব ব্যাপার। অহেতুক মিথ্যাচারের কোন অর্থ হয় না। প্রকৃতপক্ষে মোল্লা বাড়ি, খাঁ বাড়ি, ভূঁইয়া বাড়ি ইত্যাদি গ্রামের অলংকার। এসব বাদ দিয়ে গ্রাম হয় না। এসব নাম আবহমান কাল যাবত আছে এবং চিরকাল থাকবে এটাই চিরন্তন। যারা এসব বলে তারা মিথ্যাচার করে। গুজব রটিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করে আসলে কোন ফায়দা হয় না। সত্য চিরন্তনই থাকে। মিথ্যাচার দ্বারা কোন ফায়দা লুটা সম্ভব নয়।

লেখক:-
বীরমুক্তিযোদ্ধা এড. ফখরুল আলম আক্কাছ
মেয়র, ভৈরব পৌরসভা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!