• বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৯:৫৯ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে নতুন করোনা রোগি ১৩, সুস্থ হলেন ১৯ জন লকডাউন প্রাকৃতিক বিধান কিশোরগঞ্জে করোনা সঙ্কটে বিপর্যস্তদের সঙ্গে অভিনব ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি ভৈরবে এতিম ও পথশিশুদের মাঝে জামা কাপড় ও খাবার বিতরণ করলেন ছাত্রলীগ সভাপতি প্রভা হোসেনপুরে ঝড়ে বিধ্বস্ত কুঁড়ে ঘরটি সংষ্কারের জন্য ঢেউটিন প্রদান কিশোরগঞ্জ ৩৫ জন স্বেচ্ছাসেবী স্বাস্থ্যকর্মীকে আর্থিক ঈদ উপহার পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষ্যে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানার ঈদ শুভেচ্ছা হোসেনপুরে আলোকিত সামাজিক সংঘের উদ্যোগে দরিদ্রদের মধ্যে ঈদ সামগ্রী বিতরণ কুলিয়ারচরে রাবেয়া-হামিদ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের ঈদ উপহার পেলো ১৫০টি পরিবার কিশোরগঞ্জে সুস্থ হলেন ৪০ জন নতুন করোনায় আক্রান্ত ২ জন

কুরআন-সুন্নাহর আলোকে তালাক, সংকলনে: ডা. এবি সিদ্দিক

কুরআন-সুন্নাহর আলোকে তালাক

সংকলনে : ডা. এবি সিদ্দিক

তালাক শব্দের অর্থ হল বিচ্ছেদ। ইসলামী পরিভাষায়, নির্দিষ্ট নিয়মে নির্দিষ্ট কিছু শব্দের মাধ্যমে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটানোর নামই হল তালাক। যদি কখনো স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সম্পর্ক বজায় রাখা একেবারেই সম্ভব না হয়, তখন তাদের ক্ষেত্রে এ বিধানটি প্রয়োগ করা হবে। আর তালাক দেয়ার সম্পূর্ণ ক্ষমতা পুরুষের হাতে। তবে প্রয়োজনে স্ত্রী স্বামীর কাছ থেকে তালাক আদায় করে নিতে পারে। অর্থাৎ যে নারী শরিয়ত সম্মত কারণে তার স্বামী হতে মুক্ত হতে চায় তার করণীয় হল, সে স্বামীর কাছে তালাক প্রদানের জন্য আবেদন করবে এবং প্রদত্ত মোহরানা ফেরত দেবে। অতঃপর স্বামী তাকে তালাক প্রদান করবে। আর শরীয়তের পরিভাষায় এটাকে “খুলা” তালাক বলে। আর কোন পুরুষ যদি তার স্ত্রীকে তালাক দিতে চায় তাহলে অবশ্যই তাকে হায়েয অবস্থায় (ঋতুস্রাব) অবস্থায় তালাক দিবে না, বরং হায়েয থেকে পবিত্র হওয়ার পর তালাক দিবে। কেননা আবদুল্লাহ্ ইব্ন ‘উমার (র.) থেকে বর্ণিত হাদীসে এসেছে যে, তিনি রাসূল (সা.) এর যুগে তাঁর স্ত্রীকে হায়েয অবস্থায় তালাক দেন। ‘উমর ইব্নুল খাত্তাব (রা.) এই ব্যাপারে রাসূলুল্লাহ্ (সা.) কে জিজ্ঞেস করলেন। তখন রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন, তাকে নির্দেশ দাও, সে যেন তার স্ত্রীকে ফিরিয়ে আনে এবং নিজের কাছে রেখে দেয় যতক্ষণ না সে মহিলা পবিত্র হয়ে আবার ঋতুবতী হয় এবং আবার পবিত্র হয়। অতঃপর সে যদি ইচ্ছে করে, তাকে রেখে দিবে আর যদি ইচ্ছে করে তবে সহবাসের পূর্বে তাকে তালাক দেবে। আর এটাই তালাকের নিয়ম, যে নিয়মে আল্লাহ্ তা’আলা স্ত্রীদের তালাক দেয়ার বিধান দিয়েছেন। (বুখারী: ৫২৫১)
তালাকের প্রকারভেদ ও হুকুম :-
১। আত-ত্বালাকুর রাজঈ তথা প্রত্যাহারযোগ্য তালাক :-
এটা হচ্ছে এমন তালাক, যে তালাক দেয়ার পর স্বামী স্ত্রীকে পুনর্বিবাহ ছাড়াই ফেরত নিতে পারে। আর এ তালাক দুটি অবস্থায় প্রয়োগ হবে। একটি হচ্ছে, স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে প্রথম তালাক দেয়ার পর ইদ্দত চলাকালীন সময়। আর অপরটি হচ্ছে স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে দ্বিতীয় তালাক দেয়ার পর ইদ্দত চলাকালীন সময়। কেননা আল্লাহ তা’আলা বলেন, তালাক দু’বার- অতএব হয়তো ন্যায়সঙ্গতভাবে স্ত্রীকে রাখবে অথবা সদয়ভাবে মুক্ত করে দেবে। (সূরা বাকারা: ২২৯)
অতএব এ দুটি সময় স্বামী স্ত্রীকে তালাক দেয়ার পরও ইচ্ছা করলে ফেরত নিতে পারবে। এ ক্ষেত্রে তাদের মধ্যে পুনর্বিবাহের প্রয়োজন হবে না।
২। আত-ত্বালাকুল বায়েন তথা স্পষ্ট তালাক :-
এটা হচ্ছে এমন তালাক, যার ফলে স্বামী স্ত্রীকে পুনর্বিবাহ ছাড়া ফেরত আনতে পারে না। আর এটি কেবল ঐ অবস্থায় প্রয়োগ হবে, যখন স্বামী স্ত্রীকে প্রথম অথবা দ্বিতীয় তালাক দেয়ার পর আর ফেরত না নেয়, এমনকি তৃতীয় তুহুর (ঋতুস্রাব থেকে পবিত্র হওয়ার সময়) অতিক্রম হয়ে যায়। এমতাবস্থায় স্বামী যদি স্ত্রীকে ফেরত আনতে চায়, তাহলে পুনরায় বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে হবে। এ ক্ষেত্রে স্ত্রীর জন্য অন্য স্বামীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া শর্ত নয়।
৩। আত-ত্বালাকুল মুগাল্লাযা তথা শক্ত তালাক :-
এটা হচ্ছে এমন তালাক, যার ফলে স্ত্রীকে ফিরিয়ে আনার কোন সুযোগ থাকে না, যতক্ষণ না অন্য কোথাও তার বিবাহ হয় এবং ঐ স্বামী তাকে স্বেচ্ছায় তালাক না দেয়। আর এটি তখনই প্রয়োগ হবে, যখন স্বামী স্ত্রীকে তিন তুহুরে তিন তালাক প্রদান করবে। এমতাবস্থায় যদি স্বামী উক্ত স্ত্রীকে ফেরত পেতে চায়, তাহলে উক্ত স্ত্রীকে সম্পূর্ণ স্বেচ্ছায় এবং স্থায়ীভাবে বসবাস করার নিয়তে শরঈ পন্থায় দ্বিতীয় স্বামীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে হবে। তারপর দ্বিতীয় স্বামীকে উক্ত স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করতে হবে। এরপর যদি উক্ত স্বামী তাকে সম্পূর্ণ স্বেচ্ছায় ও সুস্থ মস্তিস্কে তালাক দেয়। অথবা উক্ত স্বামী মৃত্যুবরণ করে, তাহলে ইদ্দত পালনের পর প্রথম স্বামী আবারও তাকে নতুন করে বিবাহ করতে পারবে। আল্লাহ তা’আলা বলেন, তারপরও যদি স্বামী স্ত্রীকে তালাক দেয় (তৃতীয় বার), তবে ঐ স্ত্রী তার জন্য ততক্ষণ পর্যন্ত হালাল হবে না, যতক্ষণ না সে অন্য স্বামীকে বিয়ে করে। অতঃপর যদি (দ্বিতীয়) স্বামী তাকে তালাক দেয় এবং ধারণা করে যে, আল্লাহর সীমারেখা মেনে চলতে পারবে, তবে পুনরায় সংসার করাতে তাদের কোন গুনাহ হবে না। এটা হলো আল্লাহর বিধানের সীমারেখা। জ্ঞানী সম্প্রদায়ের জন্য তিনি তা বর্ণনা করেন। (সূরা বাকারা: ২৩০)
অতএব তালাকের বেলায় এই বিষয়গুলো সবাইকেই খেয়াল রাখতে হবে।

প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!