• বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৯:৪৬ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে নতুন করোনা রোগি ১৩, সুস্থ হলেন ১৯ জন লকডাউন প্রাকৃতিক বিধান কিশোরগঞ্জে করোনা সঙ্কটে বিপর্যস্তদের সঙ্গে অভিনব ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি ভৈরবে এতিম ও পথশিশুদের মাঝে জামা কাপড় ও খাবার বিতরণ করলেন ছাত্রলীগ সভাপতি প্রভা হোসেনপুরে ঝড়ে বিধ্বস্ত কুঁড়ে ঘরটি সংষ্কারের জন্য ঢেউটিন প্রদান কিশোরগঞ্জ ৩৫ জন স্বেচ্ছাসেবী স্বাস্থ্যকর্মীকে আর্থিক ঈদ উপহার পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষ্যে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানার ঈদ শুভেচ্ছা হোসেনপুরে আলোকিত সামাজিক সংঘের উদ্যোগে দরিদ্রদের মধ্যে ঈদ সামগ্রী বিতরণ কুলিয়ারচরে রাবেয়া-হামিদ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের ঈদ উপহার পেলো ১৫০টি পরিবার কিশোরগঞ্জে সুস্থ হলেন ৪০ জন নতুন করোনায় আক্রান্ত ২ জন

বিবাহ সম্পর্কীত কিছু মাসআলা, সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

বিবাহ সম্পর্কীত কিছু মাসআলা

সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

বিগত আলোচনায় আমরা বিবাহের শর্তাবলী সম্পর্কে জেনেছিলাম। কেউ যদি বিবাহের ক্ষেত্রে উক্ত শর্তগুলোকে রক্ষা করে বিবাহ করে তাহলে তার বিবাহ শুদ্ধ হবে। তবে সঠিক পদ্ধতিতে বিবাহ করলেও, বিবাহ শুদ্ধ হলেও, কতগুলো এমন কাজ রয়েছে যেগুলো বিবাহিত কোন দম্পত্তির ভেতরে সংঘটিত হলে তখন আর তাদের মাঝে বৈবাহিক সম্পর্ক অটুট থাকে না, বরং তাদের মধ্যকার বৈবাহিক সম্পর্ক নষ্ট হয়ে যায়। আর আজকে আমরা এমন কতগুলো কাজ সম্পর্কেই জানব ইনশাআল্লাহ।
১। তালাক দেওয়া। তালাক শব্দের অর্থ হল বিচ্ছেদ। ইসলামী পরিভাষায়, নির্দিষ্ট নিয়মে নির্দিষ্ট কিছু শব্দের মাধ্যমে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটানোর নামই হল তালাক। যদি কখনো স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সম্পর্ক বজায় রাখা একেবারেই সম্ভব না হয়, তখন তাদের ক্ষেত্রে এ বিধানটি প্রয়োগ করা হবে। আর তালাক দেয়ার সম্পূর্ণ ক্ষমতা পুরুষের হাতে। তবে প্রয়োজনে স্ত্রী স্বামীর কাছ থেকে তালাক আদায় করে নিতে পারে। অর্থাৎ যে নারী শরিয়ত সম্মত কারণে তার স্বামী হতে মুক্ত হতে চায় তার করণীয় হল, সে স্বামীর কাছে তালাক প্রদানের জন্য আবেদন করবে এবং প্রদত্ত মোহরানা ফেরত দেবে। অতঃপর স্বামী তাকে তালাক প্রদান করবে। আর শরীয়তের পরিভাষায় এটাকে “খুলা” তালাক বলে।
২। শিরক করলে। শিরক জঘন্য একটি অন্যায়। এর কারণে জীবনের সমস্ত নেক আমল নষ্ট হয়ে যায়। এমনকি শিরককারীর জন্য জান্নাতে প্রবেশ করাও হারাম হয়ে যায়। এখন কোন মুসলিম দম্পতির মধ্যে যদি শিরকে আকবর বা বড় শিরক সংঘটিত হয়। অর্থাৎ স্বামী অথবা স্ত্রীর কেউ যদি বড় শিরকে জড়িত হয়ে পড়ে, তাহলে তাদের মধ্যকার বৈবাহিক সম্পর্ক আর অটুট থাকবে না। কেননা শিরকের মাধ্যমে যেই মানুষ ইসলামের গন্ডি থেকে বের হয়ে যায় তার সাথে সূরা বাকারার ২২১নং আয়াত অনুযায়ী কোন মুসলিমের বৈবাহিক সম্পর্ক হতে পারে না।
৩। ঈমান ভঙ্গের কোন কারণ বিদ্যমান থাকলে। অজু ভঙ্গের যেমন কারণ রয়েছে, সালাত নষ্ট হওয়ার যেমন কারণ আছে, সাওম বা রোজা ভঙ্গের যেমন কারণ রয়েছে, ঠিক তেমনভাবে ঈমান ভঙ্গেরও কতগুলো কারণ রয়েছে। আর সেগুলো হলো- আল্লাহর সাথে কোন অংশীদার স্থাপন করা, আল্লাহর কাছে দুআ করার সময় কিংবা আল্লাহর কাছে কিছু চাওয়ার সময় অন্য কাউকে সুপারিশকারী হিসেবে মাধ্যম ধরা, মুশরিকদের কুফরীর ব্যাপারে সন্দেহ পোষণ করা অথবা কুফরী মতবাদকে সঠিক মনে করা, মুহাম্মদ (সা.) এর আদর্শ ছাড়া অন্য কোন আদর্শকে বেশী পরিপূর্ণ বা উত্তম মনে করা, রাসূল (সা.) এর আদর্শের কোন কিছুকে ঘৃণা করা, দ্বীন ইসলামের কোন বিধান নিয়ে ঠাট্টা করা, যাদু করা, মুসলিমদের বিপক্ষে কাফেরদের পক্ষে সাহায্য করা, কোন কোন ব্যক্তির জন্য রাসূল (সা.) এর অনুসরণ ওয়াজিব নয় বিশ্বাস করা এবং আল্লাহর দ্বীন থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়া ইত্যাদি। এখন কোন স্বামী অথবা স্ত্রীর মধ্যে যদি উল্লেখিত কারণগুলোর কোন একটি থাকে তাহলে তাদের বিবাহ নষ্ট হয়ে যাবে।
৪। স্বামী-স্ত্রীর মাঝে লিয়ান সংঘটিত হলে। কোন মুসলিম তার স্ত্রীকে ব্যভিচারের অপবাদ দিলে স্বামী তার সত্যতা প্রমাণের জন্য এবং স্ত্রী তার উপর থেকে অপবাদ দূর করার জন্য বিশেষ পন্থায় শপথ করাকে লিয়ান বলে।
৫। ঈলার সময়সীমা পরিপূর্ণ হয়ে গেলে। স্বামী কর্তৃক তার স্ত্রীর কাছ থেকে চার মাস পর্যন্ত বিচ্ছিন্ন থাকার শপথ করাকে ঈলা বলে। ঈলা করার পর স্বামী যদি চার মাসের মধ্যে ফিরে না আসে, তাহলে উভয়ের মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে যাবে।
৬। সালাত বর্জন করা। স্বামী-স্ত্রীর কেউ যদি সালাতের ফরযিয়্যতকে অস্বীকার করে অথবা ইচ্ছাকৃতভাবে লাগাতার সালাত তরক করতেই থাকে, তাহলে শায়খ মুহাম্মদ বিন ছলিহ আল উসাইমিন (রহ.) এর মতে তাদের মধ্যকার বৈবাহিক সম্পর্ক আর অটুট থাকবে না, বরং তাদের মাঝে বিচ্ছেদ হয়ে যাবে।
আমাদের করণীয়: বিবাহ মানুষের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। এটি অন্যতম একটি ইবাদত। কাজেই আমাদের কর্তব্য হল, বিবাহের পর কীভাবে সুখী দাম্পত্য জীবন গড়ে উঠবে তা জেনে সেই অনুযায়ী চলা এবং বিবাহ নষ্ট হয়ে যাওয়ার মত সকল কাজ থেকে নিজেদেরকে বিরত রাখা। বিশেষভাবে উল্লেখিত কাজগুলোর কোন একটি যাতে আমাদের দ্বারা সংঘটিত না হয় সেদিকে খেয়াল রাখা। আল্লাহ আমাদের সবাইকে তাওফীক দিন। আমীন
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!