• বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৯:০০ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে নতুন করোনা রোগি ১৩, সুস্থ হলেন ১৯ জন লকডাউন প্রাকৃতিক বিধান কিশোরগঞ্জে করোনা সঙ্কটে বিপর্যস্তদের সঙ্গে অভিনব ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি ভৈরবে এতিম ও পথশিশুদের মাঝে জামা কাপড় ও খাবার বিতরণ করলেন ছাত্রলীগ সভাপতি প্রভা হোসেনপুরে ঝড়ে বিধ্বস্ত কুঁড়ে ঘরটি সংষ্কারের জন্য ঢেউটিন প্রদান কিশোরগঞ্জ ৩৫ জন স্বেচ্ছাসেবী স্বাস্থ্যকর্মীকে আর্থিক ঈদ উপহার পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষ্যে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানার ঈদ শুভেচ্ছা হোসেনপুরে আলোকিত সামাজিক সংঘের উদ্যোগে দরিদ্রদের মধ্যে ঈদ সামগ্রী বিতরণ কুলিয়ারচরে রাবেয়া-হামিদ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের ঈদ উপহার পেলো ১৫০টি পরিবার কিশোরগঞ্জে সুস্থ হলেন ৪০ জন নতুন করোনায় আক্রান্ত ২ জন

বিবাহের শর্ত: বৈধ পাত্র-পাত্রী হওয়া, স্বাক্ষী উপস্থিত থাকা এবং পাত্রীর অনুমতি থাকা: সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

বিবাহের শর্ত:
বৈধ পাত্র-পাত্রী হওয়া,
স্বাক্ষী উপস্থিত থাকা ও
পাত্রীর অনুমতি থাকা

সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত বিবাহের তিনটি শর্তঃ পাত্র এবং পাত্রী উভয়ে মুসলিম হওয়া, স্ত্রীকে মহর দেওয়া এবং বিবাহের ক্ষেত্রে অভিভাবকের অনুমতি থাকা নিয়ে গত তিনটি পর্বে আমরা আলোচনা করেছিলাম। আর এই পর্বে আমরা আরো তিনটি শর্ত নিয়ে আলোচনা করব ইন্শাআল্লাহ। আর সেই গুলো হলো:
৪। বৈধ পাত্র-পাত্রী হওয়া ঃ-
বিবাহের অন্যতম একটি শর্ত হল বৈধ পাত্র-পাত্রী হওয়া। অর্থাৎ বংশগত কারণে কিংবা দুধের কারণে অথবা অন্য কোন কারণে যেই সমস্ত নারীদেরকে বিবাহ করা ইসলামী শরীয়ত হারাম ঘোষণা করেছে, পাত্রী তাদের কেউ না হওয়া। এই ব্যাপারে মহান আল্লাহ বলেন, যাদেরকে তোমাদের পিতৃপুরুষ বিয়ে করেছে, সেই সব নারীকে বিয়ে করো না, পূর্বে যা হয়ে গেছে, তা হয়ে গেছে, নিশ্চয়ই তা অশ্লীল, অতি ঘৃণ্য ও নিকৃষ্ট পন্থা। তোমাদের প্রতি হারাম করা হয়েছে তোমাদের মা এবং মেয়ে, বোন, ফুফু, খালা, ভাইঝি, ভাগিনী, দুধ মা, দুধ বোন, শ্বাশুড়ী, তোমাদের স্ত্রীদের মধ্যে যার সাথে সঙ্গত হয়েছ তার পূর্ব স্বামীর ঔরসজাত মেয়ে যারা তোমাদের তত্ত্বাবধানে আছে, কিন্তু যদি তাদের সাথে তোমরা সহবাস না করে থাক, তবে (তাদের বদলে তাদের মেয়েদেরকে বিয়ে করলে) তোমাদের প্রতি গুনাহ নেই এবং (তোমাদের প্রতি হারাম করা হয়েছে) তোমাদের ঔরসজাত পুত্রের স্ত্রী এবং এক সঙ্গে দু’ বোনকে (বিবাহ বন্ধনে) রাখা, পূর্বে যা হয়ে গেছে, তা হয়ে গেছে, নিশ্চয়ই আল্লাহ পরম ক্ষমাশীল, দয়ালু। নারীদের মধ্যে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ নারীগণও তোমাদের জন্য নিষিদ্ধ। (সুরা নিসা: ২২-২৪)
৫। স্বাক্ষী উপস্থিত থাকা ঃ-
বিবাহের ৫ম শর্ত হল বিবাহের আক্দ দুইজন স্বাক্ষীর উপস্থিতিতে হওয়া। কেননা আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, স্বাক্ষী ব্যতীত বিবাহ হয় না। (তিরমিযি: ১১০৪)
আর সূরা বাকারার ২৮২নং আয়াতের উপর কিয়াস অনুযায়ী স্বাক্ষী দুইজন হতে হবে।
৬। পাত্রীর অনুমতি থাকা ঃ-
বিবাহের ৬ষ্ঠ এবং সর্বশেষ শর্ত হল বিবাহের ক্ষেত্রে পাত্রীর অনুমতি থাকা। ইসলামী শরীয়তে পাত্রীর অনুমতিকে খুবই গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। পাত্রী কুমারী হোক কিংবা বিবাহিতা (তালাক প্রাপ্তা অথবা বিধবা) বিবাহের বেলায় অবশ্যই তার অনুমতি লাগবে। কোন অভিভাবক যদি বিবাহিতা (তালাক প্রাপ্তা অথবা বিধবা) নারীকে তার সুস্পষ্ট অনুমতি ব্যতীত বিয়ে দেয় এবং সেই মেয়ে যদি এই বিয়ে পছন্দ না করে তাহলে সকল আলেমদের মত অনুযায়ী তা বাতিল বলে গণ্য হবে। আর যদি প্রাপ্তবয়স্কা কুমারী মেয়েকেও তার পিতা তার অনুমতি ব্যতীত বিয়ে দেয় এবং এই বিয়ে যদি সে অপছন্দ করে, তাহলে কুফার (কুফা ইরাকের একটি এলাকার নাম, যেটি ইলমের মারকাজ হিসেবে তৎকালীন সময়ে সারা পৃথিবীতে প্রসিদ্ধ ছিল। বিশেষ করে হানাফী ফিকহের বিদ্বানগণ সেখানে বসবাস করতেন) বেশির ভাগ আলেমদের মতে বিয়ে বাতিল বলে গণ্য হবে। যদিও কিছু আলেম এর বিপরীত মত দিয়েছেন। এই ব্যাপারে হাদীসে এসেছে যে, আবূ হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুল্লাহ্ (সা.) বলেছেন, প্রাপ্তবয়স্কা (সায়্যিব) নারীকে তার সুস্পষ্ট অনুমতি ব্যতীত বিয়ে দেয়া যাবে না। কুমারী মেয়েকে তার অনুমতি ব্যতীত বিয়ে দেয়া যাবে না। আর নীরবতাই হল তার (কুমারী মেয়ের) অনুমতি। (তিরমিযি: ১১০৭)
উপরোল্লিখিত আলোচনা থেকে আমরা বিবাহের ছয়টি শর্তের কথা জানতে পারলাম। আমাদের সকলেরই উচিত বিবাহের বেলায় এই শর্তগুলোর প্রতি খেয়াল রাখা। আল্লাহ আমাদের সবাইকে বিবাহের ক্ষেত্রে এই শর্তগুলো মেনে চলার তাওফীক দিন। আমীন
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!