• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৪৭ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

মুজিবুল হক চুন্নুর টাকা বেড়েছে স্ত্রীরও এবার টাকা বেড়েছে

মুজিবুল হক চুন্নুর টাকা বেড়েছে
স্ত্রীরও এবার টাকা বেড়েছে

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
কিশোরগঞ্জ-৩ আসনের প্রার্থী জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুুজিবুল হক চুন্নু একাদশ সংসদ নির্বাচন করেছিলেন প্রতিমন্ত্রী থাকা অবস্থায়। এবার করছেন এমপি অবস্থায়। তবে গত ৫ বছর তাঁর জমি বাড়েনি, বেড়েছে টাকা। অন্যদিকে অর্থসম্পদ আর জমি দুটোই বেড়েছে স্ত্রীর। অবশ্য প্রার্থীর স্ত্রী রোকসানা কাদের কিছুদিন আগে সরকারের অতিরিক্ত সচিব হিসেবে অবসরে গেছেন। মুজিবুল হক চুন্নুর শিক্ষাগত যোগ্যতা দেখানো হয়েছে এলএলএম।
একাদশ সংসদ নির্বাচনের হলফনামায় এ প্রার্থীর নগদ ও ব্যাংক হিসাবে দেখানো হয়েছিল এক কোটি ৮০ লাখ লাখ ৮৩ হাজার ৩২৭ টাকা। এবার দেখানো হয়েছে তিন কোটি ৪১ লাখ ৪৩ হাজার ৭৮৩ টাকা। স্ত্রীর নামে গতবার নগদ ও ব্যাংকে জমা দেখানো হয়েছে ২৫ লাখ ৪৮ হাজার ৭০৩ টাকা। এবার দেখানো হয়েছে ১১ লাখ ৯৩ হাজার ২৯৪ টাকা। তবে এবার স্ত্রীর নামে পোস্টাল, সেভিংস সার্টিফিকেট, বিভিন্ন ধরনের সঞ্চয়পত্র ও স্থায়ী আমানত দেখানো হয়েছে দুই কোটি ৪৫ লাখ টাকা। যা গতবার দেখানো হয়েছিল ২৯ লাখ ৮৩ হাজার ১৮৬ টাকা।
গতবার প্রার্থীর নামে বন্ড ঋণপত্র দেখানো হয়েছিল ৯৭ লাখ ১৬ হাজার ১৪২ টাকার। এবার আছে ৯৭ লাখ ২১ হাজার ৫৮৪ টাকার। গতবার প্রার্থীর নামে বৈদেশিক মুদ্রা দেখানো হয়েছিল ২৮ হাজার ৬২৪ দশমিক ৪৮ ডলার। স্ত্রীর নামে দেখানো হয়েছিল ১০ হাজার ৫৭০ দশমিক ১৮ ডলার। এবার কারও নামেই বৈদেশিক মুদ্রা দেখানো হয়নি।
গতবার সংসদ সদস্য ও প্রতিমন্ত্রী হিসেবে এবং স্ত্রীর করমুক্ত ভাতাসহ যৌথ বার্ষিক আয় দেখানো হয়েছিল ১৮ লাখ ৭৭ হাজার ৫৮০ টাকা। এবার দেখানো হয়েছে ১৭ লাখ ১১ হাজার ৪৫০ টাকা। প্রার্থীর ওপর নির্ভরশীলদের গতবার বার্ষিক আয় দেখানো হয়েছে ৬ লাখ ২৬ হাজার টাকা। এবার দেখানো হয়েছে ৯ লাখ ৬৪ হাজার ৬০৮ টাকা।
গতবার প্রার্থীর নামে সঞ্চয়পত্র দেখানো হয় ৬০ লাখ টাকা। এবার সঞ্চয়পত্র দেখানো হয়নি। গতবার প্রার্থীর মালিকানায় যানবাহনের মূল্য দেখানো হয়েছিল ৭২ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এবার দেখানো হয়েছে এক কোটি ১০ লাখ টাকা। গতবার প্রার্থীর নামে স্বর্ণ দেখানো হয়েছিল ৫০ তোলা, স্ত্রীর নামে পরিমাণ জানা ছিল না। এবার প্রার্থীর নামে দেখানো হয়েছে ৫৮ তোলা, স্ত্রীর নামে ২৯ ভরি। গতবার প্রার্থীর আসবাবপত্র ছিল এক লাখ ৭০ হাজার টাকার, স্ত্রীর ছিল এক লাখ ৪০ হাজার টাকার। এবারও উভয়ের তাই আছে।
গতবার স্ত্রীর সঙ্গে যৌথ নামে কিশোরগঞ্জে কৃষি জমি ছিল ১২ একর। এবারও তাই আছে। তাড়াইলের কাজলা এলাকায় জায়গাসহ স্থাপনা দেখানো হয়েছিল ২৬ লাখ ৩৫ হাজার টাকার। ৫ বছর পরও মূল্য একই দেখানো হয়েছে। ৫ বছর আগে ঢাকার পূর্বাচলে ছিল ১০ কাঠা জায়গা। এবারও তাই আছে। তবে এবার স্ত্রীর কাছ থেকে প্রত্যাশা সমবায় সমিতির প্লট ক্রয়ের জন্য অগ্রিম প্রদান দেখানো হয়েছে ৬০ লাখ টাকা। আর স্ত্রীর নামে প্রত্যাশা সমবায় সমিতির প্লট ক্রয় বাবদ ৪ লাখ ৪৭ হাজার টাকা, আর জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃক বরাদ্দ লালমাটিয়া হাউজিং-এর ১৫ হাজার বর্গফুট জায়গার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।
৫ বছর আগে দেখানো হয়েছিল একটি ৩২ বোরের রিভলবার ও ১২ বোরের শটগান। এবারও তাই আছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *