• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:৫৯ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

পাকুন্দিয়ায় স্কুলের জমি অধিগ্রহণের ১ কোটি ৭৬ লক্ষ টাকা জালিয়াতির মাধ্যমে হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ

# রাজন সরকার, পাকুন্দিয়া :-
কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় ১৪৬নং হাজী মাছিম উদ্দিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমি অধিগ্রহণে মিথ্যা তথ্য দিয়ে সরকারের কাছ থেকে প্রায় ১ কোটি ৭৬ লক্ষ টাকা জালিয়াতির মাধ্যমে হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে একই বিদ্যালয়ের দাতা সদস্য মো. জিল্লুর রহমানের বিরুদ্ধে। তিনি উপজেলার পৌরসদরের পাইক লক্ষীয়া গ্রামের মৃত আবদুল ছালামের পুত্র।
গত ৫ অক্টোবর বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. নূরুল আফছার ও পরিচালানা পর্ষদের সভাপতি মো. মাহমুদুল হাসান রাসেল পৃথক ভাবে উপজেলা শিক্ষা অফিসারের মাধ্যমে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ও জেলা প্রশাসক বরাবরে এর প্রতিকার চেয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন। যা বর্তমানে তদন্তধীন রয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৪ সালের ৮ জানুয়ারি পাইক লক্ষিয়া গ্রামের হাজী মো. মাছিম উদ্দিন ২৯ শতাংশ এবং একই গ্রামের মো. জিল্লুর রহমান ২৩ শতাংশ ভূমি বিদ্যালয়ের অনুকূলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের নামে দলিল রেজিস্ট্রি করে দেন। সম্প্রতি ঢাকা-কিশোরগঞ্জ সড়কের পাকুন্দিয়া অংশে বাইপাস সড়ক নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জরিপ কাজ শেষে জায়গা চিহ্নিত করে যায় এবং জেলা প্রশাসন ভূমি অধিগ্রহণের কাজ শুরু করে। এতে বিদ্যালয়ের ভূমির একটি অংশ প্রকল্পের মধ্যে পড়ায় জিল্লুর রহমান স্কুলের জায়গা অধিগ্রহণের টাকা হাতিয়ে নেয়ার জন্য মাঠে নামেন।
এরপরই বিদ্যালয়টির দুইজন জমিদাতার মধ্যে মো. জিল্লুর রহমান বিদ্যালয়কে দেয়া জমির দলিল গোপন করে জালিয়াতির মাধ্যমে নিজ নামে নামজারি ও জমা খারিজের মঞ্জুরি আদেশ নিয়ে ১৩.৬ শতাংশ ভূমির অধিগ্রহণের ১ কোটি ৭৬ লক্ষ টাকার চেক তুলে নেন। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর এ নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে বিদ্যালয়টির পক্ষ থেকে সভাপতি মো. মাহমুদুল হাসান রাসেল অধিগ্রহণের টাকা উত্তোলনকারী মো. জিল্লুর রহমানের নামজারি ও জমা খারিজের মঞ্জুরি আদেশ (নং-২৮২৬ (৯-১)২২-২৩) বাতিলের জন্য গত ১ অক্টোবর পাকুন্দিয়ার সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরাবর আবেদন করেন। এ ছাড়া বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. নূরুল আফছার উপজেলা শিক্ষা অফিসারের মাধ্যমে জেলা প্রশাসক বরাবর অধিগ্রহণের টাকা যেন ব্যাংক থেকে উত্তোলন করতে না পারে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আবেদন করেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় এল.এ মিস মোকদ্দমা (নং-০১(১৩)/২০২৩) রুজু হয় এবং আগামী ৩১ অক্টোবর মোকদ্দমার শুনানির তারিখ ধার্য করে উভয় পক্ষকে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) নোটিশ পাঠিয়েছেন।
এ ব্যাপারে হাজী মো. মাছিম উদ্দিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি মো. মাহমুদুল হাসান রাসেল ও প্রধান শিক্ষক মো. নূরুল আফছার জানান, মো. জিল্লুর রহমানের কাছ থেকে খরিদ করা ২৩ শতাংশ ভূমি স্কুলকে রেজিস্ট্রি করে দেয়ার পর তার আর এই ভূমিতে কোনো স্বত্ত্ব থাকার নয়। তিনি দলিল করে দেয়ার পর স্কুলের নামে এই জায়গার খারিজ করে খাজনাও দেয়া হয়েছে। অথচ মো. জিল্লুর রহমান স্কুলকে দেয়া দলিলটি গোপন করে জমি কেনার আগের দলিলটি দিয়ে জালিয়াতি করে স্কুলের জায়গা নিজের নামে খারিজ করে নিয়েছেন। পরে এসব জালিয়াতির কাগজ দিয়ে জিল্লুর রহমান সরকারের কাছ থেকে ভূমি অধিগ্রহণের ১ কোটি ৭৬ লক্ষ টাকা উত্তোলন করেছেন। এ পরিস্থিতিতে তারা বাধ্য হয়ে বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজরে এনেছেন বিষয়টি।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মো. জিল্লুর রহমানের মোবাইল নম্বরে ফোন দিলে ফোনটি তার ছেলে কাওসার ধরেন। তিনি বলেন, আমার বাবা জিল্লুর রহমান বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণের জন্য ১৯৯৪ সালে ২৩ শতাংশ জমি লিখে দিয়েছিলেন। কিন্তু দলিলে শর্ত ছিল যে উক্ত ভূমিতে বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণ করতে হবে। অন্যথায় আমরা জমি ফেরত নিতে পারব। যেহেতু দীর্ঘদিন অতিবাহিত হওয়ার পরও বিদ্যালয়ের কোন ভবন নির্মাণ হয়নি তাই আমাদের জমি আমরা ফেরত নিয়ে অধিগ্রহণের ১ কোটি ৭৬ লক্ষ টাকা উত্তোলন করেছেন বলে জানান।
উপজেলা শিক্ষা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান বলেন, হাজী মাছিম উদ্দিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভূমি অধিগ্রহণের নামে টাকা অন্য একটি পক্ষ তুলে নিয়ে গেছে জানতে পেরে আমরা তাৎক্ষণিক বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি), অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ও জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত ভাবে জানানো হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ৩১ অক্টোবর মোকদ্দমার শুনানির তারিখ ধার্য করে উভয় পক্ষকে নোটিশ পাঠিয়েছেন। যেহেতু আমাদের কাছে জমির বৈধ সকল কাগজপত্র রয়েছে। তাই আমরা আশা করছি জমি অধিগ্রহণের টাকা গুলো উদ্ধার করতে পারবো।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *