• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:২৬ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

পূজার ঢাকিদের অতিথিশালা ৭ বছরেও বাসযোগ্য হয়নি

ঢাকিদের অতিথিশালা এভাবেই অসম্পূর্ণ অবস্থায় পড়ে আছে -পূর্বকণ্ঠ

পূজার ঢাকিদের অতিথিশালা
৭ বছরেও বাসযোগ্য হয়নি

# মোস্তফা কামাল :-
কটিয়াদীতে বাইরে থেকে আসা পূজার ঢাকিদের অতিথিশালা ৭ বছরেও বাসযোগ্য করা সম্ভব হয়নি। ঢাকিদের থাকতে হচ্ছে উন্মুক্ত মন্দির বা হোটেলে। খরচ হচ্ছে বাড়তি টাকা। কটিয়াদী উপজেলা সদরের পুরান বাজারে প্রায় ৪০০ বছর ধরে জমছে দুর্গাপূজার ঢাকিদের হাট। মুন্সিগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে পূজার তিনদিন আগে থেকেই প্রায় ২০০ ঢাকি আর বাঁশিওয়ালা আসেন এখানে। নিজ দায়িত্বে থাকতে হয় বিভিন্ন মন্দির আর হোটেলে।
কটিয়াদী উপজেলা সদরের পুরান বাজারে তাঁরা জড়ো হন মন্দির আর উন্মুক্ত চত্বরে। সেখানে প্রতিযোগিতা করে নেচে নেচে ঢাক আর বাঁশি বাজাতে থাকেন। লক্ষ্য একটাই, বিভিন্ন পূজা মণ্ডপের কর্তা ব্যক্তিদের দৃষ্টি আকর্ষণ করা। এখান থেকেই বিভিন্ন মণ্ডপের জন্য ঢাকির দল ভাড়া হয়। শত শত বছর ধরে তাঁরা আসছেন। কিন্তু তাদের থাকার মত কোন ভাল ব্যবস্থা স্থানীয় সমাজপতিরা এত বছরেও করতে পারেননি। তবে একটি পাকা ভবন করার জন্য ৭ বছর আগে কাজ শুরু হয়েছিল। বরাদ্দ হয়েছিল ৮ লাখ টাকা। ছাদ, দেওয়াল আর দরজা-জানালা পর্যন্ত নির্মাণ হয়েও সেটি আটকে আছে। বৃহস্পতিবার সেখানে গিয়ে দেখা গেছে, ভবনটি অর্ধসমাপ্ত এবং অনেকটা পরিত্যক্ত ভবনের মত পড়ে আছে। এর সুপরিসর বারান্দার মত জায়গায় মানুষ অলস আড্ডা দিচ্ছে।
এবার মুন্সিগঞ্জের বিক্রমপুর থেকে এসেছেন ঢাকি বিনয় দাস আর মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর থেকে এসেছেন গৌরাঙ্গ চন্দ্র দাসসহ অনেকেই। তারা থাকছেন স্থানীয় বিভিন্ন মন্দির আর হোটেলে। এর জন্য বাড়তি টাকা খরচ করতে হচ্ছে।
ঢাকের হাটের সমন্বয়কের দায়িত্বে রয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা তপন কুমার ঘোষ। তিনি জানান, এখানে যেসব মণ্ডপের কর্মকর্তারা ঢাকি ভাড়া করতে আসেন, তাদের কাছ থেকে কিছু অনুদান রাখা হয়। ৩০০ টাকা থেকে এক হাজার টাকা পর্যন্ত অনুদান দিয়ে থাকেন। এই তহবিল থেকে বাইরের ঢাকিদের থাকা, খাওয়া, চিকিৎসাসহ বিভিন্ন ব্যয় নির্বাহ করা হয়।
এই অতিথিশালা ভবনটি নির্মাণের জন্য হিন্দু সম্প্রদায়ের স্থানীয় নেতা দীলিপ কুমার ঘোষের নেতৃত্বে একটি কমিটি রয়েছে। দীলিপ কুমার ঘোষকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করলে জানান, এই কিশোরগঞ্জ-২ আসনের সাবেক এমপি সোহরাব উদ্দিন ভবনটির জন্য ৮ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছিলেন। কিন্তু এই টাকায় সম্পন্ন করা যায়নি, টাকা শেষ। আমি এখন শারীরিকভাবে অসুস্থ। ফলে কমিটির অন্যদের বলেছি সরকারি বিভিন্ন মহলে যোগাযোগ করে টাকা বরাদ্দ আনার জন্য।
এদিকে কটিয়াদী উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বাবুজিত সাহা জানান, তাঁরা স্থানীয় প্রশাসন ও পৌর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেছে যেন বাকি কাজটুকু সম্পন্ন করার জন্য সহযোগিতা করেন। এছাড়া বর্তমান এমপি নূর মোহাম্মদের সঙ্গে দেখা করে তাঁরও সহযোগিতা চাইবেন বলে জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *