• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:২৭ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

নিকলীতে সংবাদ প্রকাশের জেরে মধ্যযুগীয় কায়দায় সাংবাদিক পরিবার অবরুদ্ধ

# মোহাম্মদ খলিলুর রহমান :-
কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার সাজনপুর আঠার বাড়িয়া এলাকায় মধ্যযুগীয় কায়দায় চলছে সাংবাদিক নির্যাতন। অবরুদ্ধ সাংবাদিক অবরুদ্ধ ও তার স্বজনেরা। জিম্মি অবস্থা থেকে মুক্তির লক্ষ্যে আকুতি জানিয়েছেন স্থানীয় সংসদ ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকটে।
উপজেলার আঠার বাড়িয়া ২৭নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে ও রাস্তাসহ সপ্তাহের প্রতি বুধবারে একটি গরুর হাট দীর্ঘ প্রায় ১৪ বছরে ধরে নিয়মিত বসছে। এতে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি থাকে সেদিন অতি নগণ্য। ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম।
শিক্ষার্থীদের শিক্ষা ও জনস্বার্থে দৈনিক নয়া দিগন্তের স্থানীয় প্রতিনিধি সংবাদ প্রকাশ করায় তাকে বাজারের ইজারাদার আলম হত্যার হুমকি দেন গত ১৭ এপ্রিল ২০২৩ বিকাল ৩টা ২৬ মিনিটে তার ব্যক্তিগত ০১৭১৫০৩৫৬০৫ এই নাম্বার থেকে। পাশাপাশি জীবন নাশের চেষ্টা চালায়।
এর ধারাবাহিকতায় হত্যার ও ষড়যন্ত্র আঁটেন কুচক্রী মহলের হোতারা। সামাজিকভাবে নানান রকম চাপের মুখে তার উপর জুলুম নির্যাতন অব্যাহত রাখে। গৃহবন্দী অবস্থায় কালক্ষেপণে সময় পার করছেন সাংবাদিক আলী জামশেদ ও তার স্বজনেরা।
গরু হাটের ব্যাংকে জমা প্রায় কোটি টাকাকে মানিক তার ক্ষমতার হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে বলেও জানা গেছে।
সাধারণ জনগণকে ভুল ব্যাখ্যায় নিকলী-বাজিতপুর এলাকার লিডার তার সরাসরি পক্ষে আছে আর এলাকার জনগণের সেই গরু হাটের জমা রাখা এক কোটি টাকা তাদের পিছনে ব্যয় করা হবে যারা প্রতিবাদে তাদের ইচ্ছার বিরোধিতা করবে। নিয়মিত প্রকাশ্যে এ ধরনের হুঁশিয়ারি দিয়ে যাচ্ছে মানিক চক্র।
এই বিষয়ে সাংবাদিক আলি জামশেদ বলেন, বাজারের নামে জমা রাখা কোটি টাকা এখন প্রতিবাদী লোকদের থামিয়ে দিতে হাতিয়ার রূপে মানিক ব্যবহার করতেছে।
সাধারণ জনগণকে বাজারের টাকা আর নিকলী বাজিতপুরের লিডারের দোহাই দিয়ে কৌশলে জিম্মি করে তাদেরকে পুতুলের মতো ব্যবহার করছেন। আমি স্থানীয় সংসদের নিকটে এর বিচার চাই। পাশাপাশি জিম্মি অবস্থা থেকে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। আমি স্বাধীনভাবে কাজ করে বাঁচতে চাই বাজারের জায়গা না কিনে, স্কুল মাঠ থেকে বাজার না সরিয়ে নিজের স্বার্থে ১৪ বছর ধরে জবাবদিহিতা ছাড়া গরু হাটের টাকা ব্যবহার করে চলেছে নিজের মতো করে। সপ্তাহের বুধবারে বড় লুটপাট, আর জিরার সময়ে প্রশাসনের নামে, চলতি বছরে ২১ লক্ষ ৬২ হাজার টাকা ইজারা নিলে কর দেখান ৫০ লক্ষ ৫৩ হাজার। উন্নয়নের নামে ব্যাংক থেকে নেয়া হয় ৬২ লক্ষ টাকা। সরকারিভাবে বরাদ্দের টাকার সঠিক হিসাব সাধারণ জনগণকে দিতে নারাজ। যদিও বাজারটি সকলের উদ্যেগে এলাকার জনগণের টাকায় তৈরি। অধিকাংশ সুবিধা নিচ্ছে মানিক, আলম ও রেজাক। এমন অভিযোগ সরেজমিনে অসংখ্য ভুক্তভোগীর।
ঐ বিষয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিক ও তার স্বজনসহ ৭০টি পরিবারকে মধ্যযুগীয় কায়দায় একঘরে করে নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে মানিকের নির্দেশে সামাজিক বিচারের নামে একঘরে রেখে। এতে করে চরম বেকায়দায় পড়েছে, শিশু কিশোর থেকে শুরু করে জেলে, কৃষক, শ্রমিক ও তাদের পরিবার পরিজন। হাট বাজার ও চিকিৎসা সেবা থেকে শুরু করে মৌলিক মানবিক অধিকার থেকেও বঞ্চিত আছেন গত ১ আগস্ট থেকে। এদিকে সাংবাদিক অবরুদ্ধ অবস্থায় মানবেতর জীবন যাপন করছেন ১৭ এপ্রিল সংবাদ প্রকাশের পর থেকে। পেশাগত কাজকর্ম থেকেও দূরে থাকতে হচ্ছে।
এই বিষয়ে জেলে ও কৃষক মরম আলী বলেন, মাছ ধরতে পারছি না। আমাদের জমিতে ট্রাক্টর দিয়ে হালচাষ করতে দিচ্ছে না, বাজার করতে দিচ্ছে না।
সুরমা আক্তার বলেন, বাচ্চার দুধ পর্যন্ত আমাদের কাছে বিক্রি করছে না মানিকের নিষেধাজ্ঞার কারণে। এলাকার অটোরিকশা তে উঠতে দিচ্ছে না নিষেধাজ্ঞার কারণে।
নয়ন বলেন, আমার অসুস্থ স্ত্রীর স্যালাইন পর্যন্ত করতে দেয়নি পল্লি চিকিৎসক নজরুল ইসলাম। এই বিষয়ে নজরুল ইসলাম বলেন, আমাকে গরু হাটের সভাপতি আ. রেজাক নিষেধ করে দিয়েছে।
তাদের কাছে ঔষধ বিক্রি করলেও জরিমানা এবং কঠিন বিচার করা হবে জানিয়ে দিয়েছেন সভাপতি। তাই আমি বাধ্য হয়ে নিষেধ করেছি।
জারইতলা কমিউনিটি ক্লিনিকের চিকিৎসক আব্দুস ছোবন তৃতীয় শ্রেণির একটি শিশু বাচ্চাকেও চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত করেছে এমনকি তার বাড়ির ফার্মেসী থেকে ঔষধও কেনার সুযোগ দেননি। তার ফার্মেসী থেকেও বের করে দিয়েছে।
হাওরের নিকটে বসবাসকারী নুর ইসলাম ও তার স্ত্রী দুলেনা বলেন, আমার অন্তঃসত্ত্বা রোগী মেয়েকেও দেখতে নিষেধ করে দিয়েছে মেয়ের সংলগ্ন বাড়ির আঠার বাড়িয়ার সাবেক মেম্বার ইন্নছ আলী। স্বামী আক্ষেপে বলেন, হালচাষে নিষেধ করে দিয়েছে, গরু নিয়ে চোর ডাকাতের ভয় আছি হাওরে বাড়িতে। এসব কি এমপি সাহেব শুনেনি! বিচার না পেলে এখন কি করবো আমরা চিন্তা করে পারি না।
আছমত আলী বলেন, জমিতে হাল চাষ করতে না দিলে এখন কি খেয়ে বাঁচবো?
রুছমত আলী বলেন, সাংবাদিকের কাজ নিউজ করা। নিউজের কারণে আজ তার আত্মীয়দের শাস্তি দিচ্ছে মানিকের কঠিন বিচারের দাবি জানাই প্রশাসনের কাছে। ছেলে সোহাগকে পাশের বাড়ির নজর উদ্দিন রাজমিস্ত্রী কাজেও নেননি ছয় দিন ধরে।
রুবেল মিয়া বলেন, জমি বন্দোবস্তের টাকা এমনকি পাওনা টাকা চাইতে গেলেও টাকা না দিয়ে উল্টো ঝগড়ায় লিপ্ত হচ্ছে মানিকের আদেশ পালনকারীরা।
এছাড়াও স্বজনের সাথে যোগাযোগ করে ভিডিওতে তথ্য দেওয়ায় নতুন করে পার্শ্ববর্তী সমাজ দক্ষিণ হাটি থেকে গত ২ আগস্ট কাশেমকে একঘরে করে রেখেছে।
গুপিরায় বাজার থেকে আ. ছাত্তারকে তার হোমিওপ্যাথিক ফার্মেসী সরিয়ে নিতে চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে।
যারা ভিডিও দিয়েছে তাদের প্রত্যেককে দেখে নেবে বলেও হুমকি দিচ্ছে প্রকাশ্যে। ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা বিশেষ করে নারী ও শিশুরা অত্যন্ত আতংকে রয়েছেন এসবের কোন প্রতিকার না পেয়ে।
সাজনপুর বাকপাড়া গ্রামের মাটি কাটার সর্দার সোলাইমানকে নিষেধ করে দিয়েছে সাংবাদিককের স্বজনদের কাজে না নিতে।
সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান কামরুল ইসলাম মানিকের সাথে মুঠোফোনে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, সাংবাদিকসহ পরিবারকে অবরুদ্ধ করে রাখার বিষয়টি মিথ্যা। তিনি আরও জানান, স্কুল মাঠে কিছু সংখ্যক গরু দিয়ে হাট বসানো হয় এটা ঠিক।
নিকলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) শাকিলা পারভীন এর হোয়াটসঅ্যাপ নাম্বারে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, স্কুল মাঠে গরুর হাট না বসানোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *