• মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৬:১৭ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
সবুজ ভৈরবের আয়োজনে এমবিশন পাবলিক স্কুলে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আয়োজন ভৈরবে মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে অবরোধের চেষ্টা, ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ করিমগঞ্জে বেড়েছে শিশু শ্রমিক করিমগঞ্জে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্নহত্যা নরসিংদী আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে সদ্য যোগদানকারী জেলা ও দায়রা জজকে সংবর্ধনা প্রদান বাজিতপুরে বর্জ্যরে বায়োগ্যাসে সাশ্রয় হচ্ছে জ্বালানি খরচ কোটা বিরোধীদের রাজাকার পরিচয়ের শ্লোগানের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন বাজিতপুরে চালককে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনতাই নিজ মেয়েকে ধর্ষণ, বাবার মৃত্যুদণ্ড কিশোরগঞ্জে কোটা বিরোধী সংগঠনের সাথে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

হারাম উপার্জন সকল নেক আমলকে বিনষ্ট করে দেয় ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

ইসলামী শরিয়ত কর্তৃক নিষিদ্ধ পন্থায় সম্পদ উপার্জন করাকে হারাম উপার্জন বলে। আর হারাম উপার্জন দুনিয়াবী জীবনের সুখ-শান্তি নষ্ট করে ফেলে। এর সাথে সংশ্লিষ্ট মানুষটির পরকাল অন্ধকার করে তোলে। এরপরও কিছু কারণে মানুষ হারামভাবে উপার্জন করার সাথে জড়িত হয়ে পড়ে। যেমন-
(১) হৃদয় তাক্বওয়াশূন্য হয়ে পড়ার কারণে তথা অন্তর থেকে আল্লাহর ভয় দূর হয়ে গেলে মানুষের আত্মা অনুভূতিশূন্য হয়ে পড়ে। যার ফলে ঐ মানুষটির মাঝে হালাল হারাম যাচাই-বাছাই করার কোন তাকীদ অনুভূত হয় না এবং খুব সহজেই সে হারামের সাথে জড়িয়ে পড়ে। যদিও একজন মানুষের জন্য উচিত ছিল, মহান আল্লাহ রব্বুল আলামীনকে যথাযথভাবে ভয় করে নিজের মস্তিষ্ককে যাবতীয় অন্যায় চিন্তা-চেতনা থেকে রক্ষা করে, পেটকে যাবতীয় হারাম খাদ্য থেকে বাঁচিয়ে, মৃত্যু ও তৎপরবর্তী জীবনের সফলতার জন্য বিভিন্ন কর্মকাণ্ড করা।
(২) অল্পে তুষ্ট না হয়ে মানুষ যখন অতিরিক্ত লোভের বশবর্তী হয়ে পড়ে তখন সে হারাম উপার্জনের সাথে জড়িত হয়ে পড়ে। অথচ রাসুল (সা.) ছাগলের পালে দু’টি ক্ষুধার্ত নেকড়ে বাঘ ছেড়ে দিলে যতটুকু ক্ষতি সাধন করে লোভকে এর চাইতেও অধিক ক্ষতি সাধনকারী হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।
(৩) দ্রুত গতিতে উপার্জন করার মানসিকতার কারণেও মানুষ হারাম উপার্জনে জড়িত হয়। কেননা যখন স্বল্প সময়ে অধিক উপার্জন করা একজন মানুষের লক্ষ্য উদ্দেশ্য হয়, তখন যে কোন ভাবে যে কোন পন্থায় ঐ মানুষটি আয়ের ব্যবস্থা করতে দ্বিধান্বিত হয় না এবং খুব সহজ ভাবেই সে অর্থ উপার্জনের ক্ষেত্রে সীমালংঘন করে। অথচ রাসূল (সা.) বলেছেন, হে লোক সকল! আমি সে সব বিষয়ে তোমাদের নির্দেশ প্রদান করেছি, যেগুলো তোমাদেরকে জান্নাতের নিকটবর্তী করবে এবং জাহান্নাম থেকে দূরে রাখবে। আর যেসব বিষয় তোমাদেরকে জাহান্নামের নিকটবর্তী করবে এবং জান্নাত থেকে দূরে রাখবে সেসব বিষয়ে তোমাদেরকে নিষেধ করেছি, নিশ্চয় রুহুল কুদুস তথা জিবরীল (আ.) আমার অন্তরে অবতীর্ণ করেছেন যে, রিযিক পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত কেউ মরবে না। অতএব হে মানবমণ্ডলী।! আল্লাহকে ভয় কর। আর জীবিকা অন্বেষণে মধ্যপন্থা অবলম্বন কর। জীবিকা আসতে দেরী হলে অবশ্যই আল্লাহর অবাধ্যতা করে তা অর্জন কর না। কেননা আল্লাহর আনুগত্য ব্যতীত তাঁর নিকটে যা আছে তা পাওয়া যায় না। (মিশকাত: ৫৩০০, ছহিহা: ২৬০৭)
(৪) হারাম জীবিকার স্বরূপ ও তার ভয়াবহতা সম্পর্কে অজ্ঞতা ও অবহেলার কারণেও মানুষ হারাম উপার্জনে লিপ্ত হয়।
এখন যে কেউ উল্লেখিত কারণ সমূহের যেই কারণেই হারাম উপার্জনের সাথে জড়িত হবে, নিশ্চিতভাবেই তাকে আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের অভিশাপ পাওয়া, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, বিভিন্ন সংকটের সম্মুখীন হওয়া, বিভিন্ন ধরনের রোগ-ব্যাধিসহ নানাবিদ অশান্তির মুখোমুখি হতে হবে। তবে একজন ঈমানদারের ক্ষেত্রে হারাম উপার্জনের সাথে জড়িত হওয়ার সবচেয়ে বড় ক্ষতিকর দিকটি হল, হারাম উপার্জন তার সকল নেক আমলকে নষ্ট করে দিবে।
প্রথমত, হারাম উপার্জন শুরু করার পর থেকে সকল হারাম অর্থ ও হারাম টাকা দিয়ে গড়া সকল সম্পদ বাদ দিয়ে মহান আল্লাহর নিকট তওবা করে ফিরে না আসা পর্যন্ত যত ইবাদত-বন্দেগী সে করবে, এর সবই বাতিল হিসেবে গণ্য হবে। কেননা হারামের সাথে জড়িত থেকে ইবাদত করলে সেই ইবাদতের কোন মূল্যই আল্লাহর কাছে থাকে না। (মুসলিম, মিশকাত: ২৭৬০)
দ্বিতীয়ত: হারামভাবে উপার্জিত সম্পদ যদি কোন বান্দার হকের সাথে সম্পৃক্ত থাকে (যেমন- প্রতারণা করে, আত্মসাৎ করার মাধ্যমে, জুলুম বা জোর জবরদস্তি করে, ঘুষ, কিডন্যাপ, চুরি, ডাকাতি, রাহাজানি ইত্যাদি করে সম্পদ উপার্জন করে) আর সম্পদের মূল মালিকের কাছে বিস্তারিতভাবে বলে তার এই হক যদি ফিরিয়ে না দেওয়া হয়, তাহলে মৃত্যুর পর মানুষের এই হক আদায় করতে গিয়ে আল্লাহ রব্বুল আলামীন উপার্জনকারী ব্যক্তির কবুলকৃত কোন আমল থাকলে সেই আমল দিয়ে এই ঋণ পরিশোধ করবেন। যার ফলে সে একেবারেই নেক আমল শূন্য হয়ে পড়বে। অতএব উভয় অবস্থাতেই একজন হারাম উপার্জনকারীর সকল নেক আমল শেষ হয়ে যাবে।
তাছাড়া অনেক হারাম উপার্জনকারীই এই ক্ষেত্রে নিজেকে মানুষের কাছ থেকে আড়াল করে রাখেন। হারাম উপার্জনের বিষয়টি অন্যান্যদেরকে বুঝার জন্য দেন না। অর্থাৎ তারা চায় না যে, মানুষ তাদেরকে হারাম উপার্জনকারী হিসেবে জানুক। আর রাসূল (সা.) এর একটি ব্যাপক হাদীসে এসেছে যে, তিনি বলেন, আমি আমার উম্মতের কতক দল সম্পর্কে অবশ্যই জানি যারা কিয়ামতের দিন তিহামার শুভ্র পর্বতমালার সমতুল্য নেক আমলসহ উপস্থিত হবে। মহামহিম আল্লাহ সেগুলোকে বিক্ষিপ্ত ধূলিকণায় পরিণত করবেন। আর তারা তোমাদেরই ভাই এবং তোমাদেরই সম্প্রদায়ভূক্ত। তারা রাতের বেলা তোমাদের মতই ইবাদত করবে। কিন্তু তারা এমন লোক, যারা লোকচক্ষুর আড়ালে তথা গোপনে আল্লাহর হারামকৃত বিষয়ে জড়িত হবে। (ইবনে মাজাহ: ৪২৪৫)
উল্লেখিত হাদীসটির মাধ্যমেও বুঝা যায় যে, হারাম উপার্জন অবশ্যই নেক আমলকে বিনষ্ট করে দিবে।
পরিশেষে বলা যায় যে, নেক আমলই হল মহান আল্লাহ রব্বুল আলামীনের সন্তুষ্টি অর্জনের বড় মাধ্যম। এটি পরকালীন জীবনের মূলধন। আখিরাতের শান্তি ও সফলতা লাভের জন্য বান্দার কবুলযোগ্য সৎ আমলের বিকল্প নেই। কিন্তু জীবন চলার পথে একজন মানুষ যখন হারাম উপার্জনের মত বদ আমলের সাথে জড়িত হয়, তখনই বহুকষ্টে সম্পাদিত নেক আমলগুলো আস্তে আস্তে বিনষ্ট হয়। তাই আমাদের সকলেরই উচিত জীবনে কখনো যাতে ইচ্ছা বা অনিচ্ছায় হারাম উপার্জনের সাথে জড়িত না হয়ে পড়ি সেদিকে খেয়াল রেখে জীবন পরিচালনা করা। আল্লাহ আমাদের তাওফীক দিন। আমীন
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জামে মসজিদ, কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *