• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:৫১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

নিকলীর আঠারবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে পশুর হাট, প্রশাসন নীরব

# মোহাম্মদ খলিলুর রহমান :-
কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার জারুইতলা ইউনিয়নের আঠারবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠটি ১৪ বছর ধরে পশুর হাট হিসাবে ব্যবহার হচ্ছে। এতে করে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে ওই বিদ্যালয়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। সেই সাথে ব্যাহত হচ্ছে প্রাথমিক পাঠদান কার্যক্রম। ইজারাদাররা প্রভাবশালী হওয়ায় অনিয়ম ও বাণিজ্যে প্রশাসন নির্বাক। বারবার বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে অভিযোগ দিয়েও কোন সুফল পাচ্ছে না স্থানীয়রা। দেখেও না দেখার মত কথা বলছে প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা।
এসব নিয়ে সরেজমিন অনুসন্ধান চালাতে গিয়ে বিপাকে পড়তে হয়েছে এক সাংবাদিককে। প্রভাবশালীদের অব্যাহত হুমকির কারণে ওই সাংবাদিক আতঙ্কে দিন পার করছেন।
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, আঠারবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে তিল ধারণের ঠাঁই নেই। খুঁটিতে শত শত গরু বাঁধা। গরু কেনাবেচা করতে আসা হাজারো মানুষের কোলাহল মুখর স্কুলের খেলার মাঠ ও আশে পাশের এলাকা।
এলাকাবাসীরা জানায়, ২০০৯ সাল থেকে নিকলীর জারইতলা ইউনিয়নের সাজনপুর গোপিরায়ের বাজারের নামে এই পশুর হাটটির ইজারা দেওয়া হয়। কিন্তু বাজারে জায়গা না থাকায় সপ্তাহের বুধবার স্কুল মাঠেই হাটটি বসে। জেলার সবচেয়ে বড় গরুর হাট হওয়ার ফলে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শত শত গরু বোঝাই ট্রাক, পিকআপ, ভটভটির গাড়ি রাস্তার দুপাশে দাঁড়িয়ে গরু উঠা নামা করে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে পঞ্চম শ্রেণির দুই শিক্ষার্থী বলেন, বুধবার হাট থাকার কারণে স্কুলটি নামমাত্র খোলা থাকে। বৃহস্পতিবার বিদ্যালয় মাঠে পশুর গোবর চেনা দুর্গন্ধের কারণে শিক্ষার্থী উপস্থিতি থাকে খুবই কম। শুক্র ও শনিবার সাপ্তাহিক ছুটি। ফলে সপ্তাহে মাত্র তিন দিন স্বস্তিতে স্কুলে যেতে পারি। বর্ষাকালে সপ্তাহজুড়েই মাঠটি নোংরা পুঁতিগন্ধময় থাকার কারণে পড়ালেখা লাটে ওঠার উপক্রম হয়েছে।
আঠারো বাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল আওয়াল বলেন, গরুর হাটের দিন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে যাতায়াত করতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। ওইদিনটিতে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি একেবারে কম থাকে।
গরু হাটের ইজারাদার আলম মিয়া এ প্রতিনিধিকে বলেন, ‘স্কুলের মাঠে আমরা পশুর হাট বসায় না। তবে অতিরিক্ত গরু এসে গেলে কিছু গরু, মানুষ সেখানে চলে যায় । গরুর হাটকে কেন্দ্র করে লক্ষ লক্ষ টাকার অনিয়ম ও বাণিজ্য সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে তিনি প্রমান চান। সাংবাদিককে হত্যার হুমকি, অশ্লিল গালমন্দের সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তিনি আমাকে গালি দিয়েছে আমিও তাকে গালি দিয়েছি।
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে নিকলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা. শাকিলা পারভীন জানান, বিদ্যালয় মাঠে গরুর হাট আর যেন না বসে সে নির্দেশ তিনি দিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *