• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:৫৫ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

উৎসবমুখর পরিবেশে বাঙ্গালি জাতির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ উদযাপন

# মিলাদ হোসেন অপু :-
ভৈরবে উৎসবমুখর পরিবেশে উদযাপন করা হলো বাঙ্গালি জাতির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ। ১৪ এপ্রিল শুক্রবার ভৈরব উপজেলা প্রশাসনের নানান আয়োজনে দিনটি উদযাপন করা হয়েছে।
সকাল ১১ টায় উপজেলা পরিষদ চত্বরে এক বর্ণাঢ্য শুভাযাত্রা র‌্যালির মাধ্যমে দিনটি শুভ সূচনা করা হয়। পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে বৃহত্তর পরিসরে না হলেও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে চিত্রাংকন ও আবৃত্তি প্রতিযোগীতার আয়োজন করা হয়েছে। র‌্যালি শেষে এক সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিকুর রহমান সবুজ এর সভাপতিত্বে অন্যন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ভৈরব উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) জুলহাস হোসেন সৌরভ, উপজেলা স্বাস্থ্য প.প. কর্মকর্তা ডা. বুলবুল আহমেদ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সাবেক ডেপুটি কমান্ড ফরহাদ আহমেদ, ভৈরব টিভি জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশন এর সভাপতি আসাদুজ্জামান ফারুক প্রমুখ।
এদিকে পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে প্রতি বছরের ন্যায় ভৈরবের মেঘনা নদীর ত্রি-সেতু এলাকায় জমেছে গ্রামীণ মেলা। বাংলা নববর্ষের আনন্দকে বরণ করে নিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নরসিংদী, কিশোরগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা শিশু-কিশোরসহ সববয়সী নারী-পুরুষের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে ভৈরবের একমাত্র বিনোদন কেন্দ্র মেঘনার পাড়ে। আর এই দিনে বাড়তি রোজগারের আসায় মাটির তৈরি বাচ্চাদের পুতুল, পাতিল, কড়াই, চুল্লী, হাতি, ঘোড়া, গরু, হাসঁ মুরগীসহ বিভিন্ন সামগ্রী নিয়ে পসরা সাজিয়ে বসেছে বিক্রেতারা।
এ ছাড়াও খাবারের মধ্যে বিন্নি ধানের খৈ, মিঠাই খৈ, মুণ্ডামিঠাই ও নিত্য প্রয়োজনীয় বিভিন্ন পণ্য সামগ্রী ও বাচ্চাদের আকর্ষণীয় খেলনার শতাধিক স্টল নিয়ে বসেন দোকানিরা। শিশুদের বিনোদনের জন্য রয়েছে চরকি, মিনি ট্রেন ও নাগর দোলা।
যদিও তীব্র গরম ও পবিত্র রমজান উপলক্ষে এসব দোকানে তেমন উপচে পড়া ভীড় দেখা যায়নি। তবে বিকাল হলেই জমে উঠবে বেচাকেনা। লক্ষ্য করা যাবে মেলায় আগত দর্শনার্থীদের।
পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই করোনার পর থেকে ছোট্ট পরিসরে তিন বছর যাবত বসছে এই মেলা। এ উপলক্ষে মেলায় দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা দর্শনার্থীদের নিরাপত্তা রক্ষার্থে পুলিশের পাশাপাশি সাদা পোশাকে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীরা নিয়োজিত রয়েছেন।
মেলায় ঘুরতে আসা দর্শনার্থীরা জানান, কোন প্রচার ছাড়াই ভৈরবে এই মেলা বসেছে। তবু মানুষে আনাগুনা চোখে পড়ার মত। মেলা উদযাপন কমিটি ও প্রশাসনের আগ্রহ থাকলে বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তর এই মেলা তার ঐতিয্য হারাবে না।
কুলিয়ারচর থেকে আসা মিঠাই ও খৈ বিক্রেতা রিপন মিয়া ও শরীফ মিয়া জানান, প্রতি বছর মেঘনার পাড়ে খৈ বিক্রয় করতে আসি। গত তিন বছর যাবত মেলা ছোট্ট পরিসরে হচ্ছে। বিন্নি চাউলের খৈ ৪শ টাকা, মিঠা খৈ ১৫০ টাকা ও মিঠাই ২শ থেকে ৩/শ টাকা বিক্রয় করছেন তারা। ক্রেতা নেই বলে হতাশ রয়েছেন বলে জানান।
বাজিতপুরে সরারচরে স্বপন পাল ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শাহবাজপুর এলাকার দুলাল পাল জানান, মেলার একদিন আগেই মেঘনার পাড় এসেছি। রাতে এখানে থেকেছি ভোর থেকে মেলা জমতে শুরু করে। কিন্তু রমজান মাস উপলক্ষে বিক্রি কম হচ্ছে। মানুষের সমাগমও কম।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিকুর রহমান সবুজ বলেন, আজ যেমন বাঙ্গালী জাতির একটি উৎসব মুখর দিন। সেই সাথে ভৈরব মানুষের জন্য হৃদয় বিতারক একটি দিন। ১৯৭১ সালে এ দিন ভৈরব উপজেলার পানাউল্লাহর চরে ভৈরব প্রায় পাচঁ শতাধিক মানুষ পাক বাহিনীরা হত্যা করেছিল। বিকালে পানাউল্লাহর চরে নির্মিত বধ্যভুমিতে শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হবে। ভৈরবের মানুষ যার যার মত করে বৈশাখ উদযাপন করছে বলে তিনি জানান।
বৈশাখ উদযাপনকারী সংগঠন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ সভাপতি নাছার মাহমুদ জাহিন জানান, পবিত্র রমজান উপলক্ষে আমরা এ বছরও বৈশাখী মেলা আয়োজন করতে না পারলেও মেঘনার পাড় ছোট্ট পরিসরে আয়োজিত বৈশাখী মেলায় যেন ক্রেতা ও ব্যবসায়ীরা হয়রানি না হয় সে দিকে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের সদস্যরা তদারকি করছে। ভবিষ্যতে বৈশাখী মেলার ঐতিয্য ধরে রাখতে আমরা সোচ্চার রয়েছি।
ভৈরব থানা অফিসার ইনচার্জ মাকছুদুল আলম জানান, যেহেতু মেঘনার পাড় মেলা জমেছে। মানুষজনের সমাগম বেড়েছে সে জন্য পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। মেলা শেষ হওয়া পর্যন্ত পুলিশি টিম তদারকি করবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *