• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:২২ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

নিকলীতে ইউপি সদস্য পেটালেন সদ্য বিধবাকে

# বাজিতপুর (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি :-
কিশোরগঞ্জের নিকলীতে সদ্য বিধবা মোছা. খেলু আক্তাকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ উঠেছে জারইতলা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মো. চাঁন মিয়া বিরুদ্ধে । অভিযুক্ত চাঁন মিয়া ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য।
অভিযোগ কারি খেলু আক্তাক বলেন, ’’ চাঁন মিয়া মেম্বার গত ৭ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার সকাল ১১ টার সময় আমাকে ঘর থেকে টেনে হিসড়ে জনসম্মুখে মাটিতে ফেলে গলা চিপে ধরে রক্ত বের করে ফেলে। খবর পেয়ে ছেলে আবুল কাশেম আসলে থাকে মারতে যায় । জীবন বাঁচাতে কাশেম দৌড়ে গিয়ে রাস্তা সাথের দোকান ঘরে আশ্রয় নেয়। চান মিয়া মেম্বারও সাথে সাথে পিছনের দরজা দিয়ে দোকান ঘরে ঢুকে তাকে কিল ঘুষি মেরে আহত করে। আমার ছেলের বউ রোজিনা এগিয়ে এলে তাকে ও আঘাত করে টেনেহিঁচড়ে শ্লীলতাহানি করে।’’
আবুল কাশেম বলেন, চাঁন মিয়া একজন অত্যাচারী লোক। তার অত্যাচারের কারণে আমার বাবার মৃত্যু হয়েছে। এই বিষয়ে অভিযোগ দিয়েও তার প্রভাবের কারণে আমি কিছুই করতে পারিনি। আমি মেম্বারের কাছে জায়গা জমি পাই। তার ক্ষমতার কারণে তা থেকে ও দীর্ঘদিন ধরে দখল বঞ্চিত। এছাড়াও আমার চাচাতো ভাইয়ের পক্ষ নিয়ে মেম্বার বিগত ১০ এপ্রিল আমার ঘরবাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট করেছে। আমি নিকলী থানায় ৬/২০২২ নং মামলা করি। এই মামলার গরহাজিরার কারণে গত পরশু আদালতের নির্দেশে পুলিশ মেম্বারকে ধরে নিয়ে গেলে হাজতে থেকে ফিরে এসেই ৭ ফেব্রুয়ারি প্রতিশোধ স্বরূপে আমারে সহ মাকে ও স্ত্রীকে মারধর ও লাঞ্ছিত করে। এ বিষয়ে আমি প্রতিকার চেয়ে গত ৭ ফেব্রুয়ারি নিকলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি এবং হাসপাতাল হতে চিকিৎসা শেষে গতকাল ৯ ফেব্রুয়ারি নিকলী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি। অতীতে ও চান মিয়া বহুবার আমারেসহ, মাও স্ত্রীকে মারধর করে অজ্ঞান করেছে। তার বিরুদ্ধে বিচার চেয়ে এই পর্যন্ত কোনদিন বিচার পাইনি। উল্টো আমাকে ই হুমকিতে থাকতে হয়েছে। এখন নিয়মিত জীবন নাশের হুমকি দিয়ে চলেছে।
ইউপি সদস্য চাঁন মিয়া ও তার পরিবার সম্পর্কে খোঁজ নিতে গেলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অত্র ওয়ার্ডের জনপ্রতিনিধি সহ অসংখ্য এলাকাবাসীরা জানান, চাঁন মিয়া ও তার পরিবারের সদস্যরা অত্যন্ত জঘন্য প্রকৃতির লোক। তারা পারেনা এমন কোন খারাপ কাজ নাই। প্রভাবশালী হওয়ার কারণে তার বিরুদ্ধে এলাকার কেউ প্রকাশ্যে মুখ খোলার সাহস পা না। এ পর্যন্ত যারা সাহস দেখিয়েছে তারাই বিপদে পড়েছে।
এলাকার আশপাশের লোকজন তাদের কারণে অনেকেই আতঙ্কে থাকে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুকরা জানায়। এলাকার ছাত্র, তরুণ ও যুবকদের কে নারী দিয়ে নষ্ট পথে নেওয়ার মূল কারিগর এই পরিবারের সদস্যরা। খোঁজ নিয়ে আরো জানা গেছে, পাশের বাড়ির প্রতিবন্ধী মৃত মরু মিয়ার স্ত্রী হরিনা বেগমকে ও চান মিয়া বেশ কয়েক বছর আগে লোহার রড দিয়ে হাত-পা ভেঙ্গে দিয়েছে, সীমানা সংলগ্ন বাড়ির মৃত সমসর আলীর নাতিকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হলে বাবা জিন্নত আলি নিকলী থানায় অভিযোগ দায়ের করলে উল্টো হুমকি ধামকির মুখে আতঙ্কে সময় পার করতে হয়েছে। আর হরিনা আদালতে বিচার না পেয়ে হতাশা ও ভয়ে থমকে গেছে। এছাড়াও বহুবার নারি ও পুরুষ তাদের নিবর নির্যাতনের শিকার বলে অভিযোগ রয়েছে।
ইউপি সদস্য চাঁন মিয়া এবং তার পরিবারের বিরুদ্ধে অসংখ্য অভিযোগ এলাকাবাসীর। এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বর্তমানে আমার নামে কাশেম একমাত্র কয়েকটি মামলা দিয়েছে। তার বাবাকে আমি হত্যা করছি এই মিথ্যা মামলাটাও কয়েকদিন আগে শেষ করেছি। এছাড়া অন্য কেউ বর্তমানে আমারে মামলা দেয়নি। আপনারা খবর নিয়ে দেখেন আমার নামে আর কোন মামলা এখন নাই। দম্ভে সংবাদ কর্মীকে উল্টো প্রশ্নে বলেন, মামলা দিলে কি আমি মেম্বার হতে পারতাম? কাশেম কে থাপ্পর মারার কথাটি স্বীকার করছেন তবে তার মা ও স্ত্রীকে মারধরের কথা অস্বীকার করেন। পাশাপাশি তিনি সত্যতা স্বীকারে আরো বলে, আগে আমার বিরুদ্ধে বহু মামলা ছিল, আগে খারাপ ছিলাম। এরশাদ আমলে ১৯৮৪ সালে জেল কেটেছি। তখন অনেক কিছুই করেছি। এখন ভালো হয়ে গেছি। ছেলেরা মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত বলে হাজতে আছে, ভালো না বলেই আমি তাদের খবর রাখি না।
স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আজমল হোসেন আফরোজ বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। ইউপি সদস্য চাঁন মিয়া মারধরের কথা আমার সাথে অস্বীকার করেছে। এ ধরনের কাজ করে থাকলে এটা অন্যায়। এটা মেনে নেয়া যায় না।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. শাকিলা পারভিনের কাছে জানতে চাওয়া হয়, জারইতলা ইউনিয়নের চাঁন মিয়া মেম্বার নিজে সদ্য বিধবা একজন মহিলাকে পিটিয়ে আহত করেছে এই ঘটনাটি শুনেছেন কি না? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, একটি ছেলে তার মা ও পরিবারের উপর মারধরের বিষয়ে আমার এখানে লিখত অভিযোগ দিয়েছেন। তবে যার বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছেন তিনি ইউপি সদস্য কি না এটা আমার জানা ছিল না। তবে যেই হোক আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে যদি ঘটনার প্রমাণ পাওয়া যায়।
নিকলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনসুর আলী আরিফের কাছে চাঁন মিয়ার অবৈধ কার্যকলাপ তুলে ধরা হলে তিনি বলেন, গত পাঁচ দিন আগেও চাঁন মিয়াকে ধরে এনে কোর্টে চালান দিয়েছে । আর কাশেমের অভিযোগ সম্পর্কে তিনি আরো বলেন, গতকাল অভিযোগ পেয়েছে এই বিষয়ে পুলিশ সরেজমিনে তদন্তে যাবে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *