• বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১১:৩২ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

দুনিয়ার জীবনে আল্লাহকে দেখা সম্ভব কী?দুনিয়ার জীবনে আল্লাহকে দেখা সম্ভব কী? সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

মূসা যখন নির্ধারিত স্থানে উপস্থিত হল, তখন তার রব তার সাথে কথা বললেন। সে তখন নিবেদন করল, হে আমার রব! আপনি দেখা দিন, আমি আপনাকে দেখব। আল্লাহ বললেন, তুমি আমাকে আদৌ দেখতে পারবে না, তবে তুমি ঐ পাহাড়ের দিকে তাকাও। যদি ঐ পাহাড় স্বস্থানে স্থির থাকে তাহলে তুমি আমাকে দেখতে পারবে। অতঃপর তার রব যখন পাহাড়ে নিজ জ্যোতি বিচ্ছুরিত করলেন তখন তা পাহাড়কে চূর্ণ-বিচূর্ণ করে দিল, আর মূসা সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়ে গেল। যখন চেতনা ফিরে এলো তখন সে বলল, আপনি মহিমাময়, আপনার পবিত্র সত্তার কাছে আমি তাওবা করছি এবং আমিই সর্ব প্রথম ঈমান আনলাম। (সূরাহ আল-আ’রাফ : ১৪৩)অন্যত্র মহান আল্লাহ বলেন, কোন মানব দৃষ্টি তাকে দেখতে পারেনা, অথচ তিনি সকল কিছুই দেখতে পান এবং তিনি অতীব সূক্ষ্মদর্শী এবং সব বিষয়ের খবর রাখেন। (সূরাহ আল-আনআম ঃ ১০৩)মাসরূক (র.) আয়েশা (রা.) হতে বর্ণনা করেছেন যে, তিনি বলেছেন, যে ব্যক্তি এই ধারণা করে যে, মুহাম্মদ (সা.) স্বীয় রবকে দেখেছেন, সে একজন মিথ্যাচারী তথা সে আল্লাহর উপর মিথ্যা আরোপ করল। কেননা আল্লাহ তা’আলা বলেছেন, কোন মানব দৃষ্টি তাকে দেখতে পারে না, অথচ তিনি সকল কিছুই দেখতে পান। (এমনকি) মানুষের এমন মর্যাদাও নেই যে, আল্লাহ তার সাথে কথা বলবেন অহীর মাধ্যম ছাড়া কিংবা পর্দার আড়াল ছাড়া। (বুখারী ঃ ৪৮৫৫,৩২৩৪) আবু মূসা আল আশআরী (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূল (সা.) বলেছেন, আল্লাহ তা’আলা ঘুমান না আর ঘুমানো তার পক্ষে শোভনীয়ও নয়। তিনি আমল ওযনের মাপযন্ত্র (দাঁড়িপাল্লা) দাঁড় করে রেখেছেন। দিনের আমলগুলো রাতের পূর্বে আর রাতের আমলগুলো দিনের পূর্বে তার সামনে পেশ করা হয়। তার পর্দা বা আবরণ হচ্ছে আলো বা আগুন। যদি উহা সরিয়ে নেয়া হয় তাহলে তার জ্যোতি সমস্ত সৃষ্ট বস্তুকে জ্বালিয়ে দিবে। (মুসলিম ঃ ১৭৯)উপরোল্লিখিত আয়াত এবং হাদীসের মাধ্যমে স্পষ্টভাবেই বুঝা যায় যে, এই দুনিয়ায় মহান আল্লাহকে স্বচক্ষে দেখা কারো পক্ষেই সম্ভব নয়। কেননা আল্লাহ তা’আলা তার নবী ও রাসূল মূসা (আ.) কে তার (আল্লাহকে দেখার) আবদারের উত্তরে বলেছেন, তুমি আমাকে আদৌ দেখতে পারবে না। এমনকি বিশ্বনবী মুহাম্মদ (সা.) ও দুনিয়ায় জীবিত থাকাকালীন আল্লাহকে দেখেননি, যা তার প্রিয়তমা স্ত্রী আয়েশা (রা.) এর বিবরণী থেকে জানা যায়। তবে পরকালে মু’মিনগণ আল্লাহকে দেখতে পাবেন। যেমন আল্লাহ নিজেই বলেছেন, সেদিন কোন কোন মুখম-ল উজ্জ্বল হবে। তারা তাদের রবের দিকে তাকিয়ে থাকবে। (সূরাহ আল কিয়ামাহ ঃ ২২-২৩)পরিশেষে এটাই বুঝা যায় যে, আখিরাতে মহান আল্লাহকে দেখা সম্ভব হলেও এই পৃথিবীতে আল্লাহকে দেখা কারো পক্ষেই সম্ভব নয়। আল্লাহ আমাদের সবাইকে সঠিক জ্ঞান অর্জনের তাওফীক দান করুন। আমীন।

প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *