• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:১৩ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

নিকলীতে দলবদ্ধ ধর্ষণে গৃহবধূর মৃত্যুর ঘটনায় ধর্ষকদের গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন

আশামনির ধর্ষকদের গ্রেফতার দাবিতে মানববন্ধন -পূর্বকণ্ঠ

নিকলীতে দলবদ্ধ ধর্ষণে
গৃহবধূর মৃত্যুর ঘটনায়
ধর্ষকদের গ্রেফতারের
দাবিতে মানববন্ধন

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
স্বামীর সহায়তায় নিকলীতে সংঘবদ্ধ ধর্ষণে নিহত গৃহবধূ আশামনির (২২) খুনি ও ধর্ষকদের কয়েকজন এখনও গ্রেফতার হয়নি। তারা বাদী পক্ষকে নানাভাবে হুমকি দিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আসামীদের গ্রেফতারের দাবিতে ভিকটিমের স্বজন ও এলাকাবাসী মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছেন। গতকাল শুক্রবার (১৮ নভেম্বর) বিকালে উপজেলার দক্ষিণ জাল্লাবাদ সরকারি প্রইমারি স্কুল প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধনে আশামনির মা ফাহিমা আক্তার ও মামা মামলার বাদী জাহাঙ্গীর আলমসহ অন্যান্য স্বজন ও বিপুল সংখ্যক এলাকাবাসী অংশ নেন। মামলার ৭ আসামীর মধ্যে আশামনির স্বামী সাহাপুর গ্রামের লালচানসহ (২৮) চার আসামী গ্রেফতার হলেও প্রধান আসামী প্রাক্তন ইউপি মেম্বার রনিসহ অন্য তিন আসামী প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং বাদী পক্ষকে হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
ঘটনার বিবরণে জানা যায়, আশামনির বিয়ের পর থেকেই তাকে স্বামী লালচান পতিতাবৃত্তির জন্য চাপ দিয়ে আসছিলেন। কিন্তু আশামনি বরাবরই অস্বীকৃতি জানিয়ে আসছিলেন। গত ২৭ জুন আশামনি বাবার বাড়ি থেকে স্বামীর বাড়ি যাবার পথে আসামীরা তার মুখে গামছা চেপে ধরে পতিত জমিতে নিয়ে রাতভর পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরদিন সকালে এলাকাবাসী আশামনিকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে নিকলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখান থেকে জেলা সদরের ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২৯ জুন রাত ২টার দিকে তার মৃত্যু হয়। তবে মৃত্যুর আগে আশামনি নিজেই ধর্ষকদের নাম বলে গেছেন বলে জানা গেছে। আশামনির মামা জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে প্রাক্তন ইউপি মেম্বার রনিকে প্রধান আসামী করে স্বামী লালচানসহ মোট ৭ জনের নাম দিয়ে অজ্ঞাত আরও ৩-৪ জনের বিরুদ্ধে নিকলী থানায় ২৯ জুন মামলা করেন। পুলিশ আশামনির স্বামীসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করলেও প্রধান আসামী রনিসহ ৩ জন নামীয় আসামী এখনও প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং বাদী পক্ষকে হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। তবে বাকি আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন নিকলী থানার ওসি মনসুর আলী আরিফ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *