• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:২০ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

বাংলাদেশে নারীর শিক্ষা, অধিকার ও নেতৃত্ব গঠনে কাজ করছে মালালা ফান্ড

বাংলাদেশে নারীর শিক্ষা, অধিকার ও
নেতৃত্ব গঠনে কাজ করছে মালালা ফান্ড
মালালার আকাঙ্খার বাস্তবায়ন এদেশেও
আট জেলায় শিক্ষা চ্যাম্পিয়ন নেটওয়ার্ক

# নাসরুল আনোয়ার :-

তালিবানি উগ্র বন্দুকধারীর হামলায় নিশ্চিত মৃত্যুর মুখ থেকে জীবন ফিরে পাওয়া পাকিস্তানের স্কুলছাত্রী মালালা ইউসুফজাই নারীর শিক্ষা ও অধিকার নিয়ে সোচ্চার রয়েছেন। ২০১৪ সালে শান্তিতে নোবেল পুরষ্কার পাওয়া এই নারী নারীশিক্ষায় ব্রতী হয়েছেন। সেই অভিপ্রায় থেকে গঠিত ‘মালালা ফান্ড’ এখন নয়টি দেশে কাজ করছে। নবম দেশ হিসাবে বাংলাদেশেও তার আকাঙ্খার বাস্তবায়ন ঘটছে।
স্কুলে এবং স্কুলের বাইরে থাকা মেয়েদের মানসম্মত শিক্ষায় শিক্ষিত করে নেতৃত্ব দেওয়ার উপযোগী করে গড়ে তুলতে ভূমিকা রাখছে আন্তর্জাতিক এ সংস্থাটি। এরা মূলত শিক্ষায় অনুদান দেয়। সরকারের অনুমোদন পেয়ে গত এপ্রিল থেকে দেশের শিক্ষায় পিছিয়ে থাকা আট জেলায় নারীশিক্ষার অগ্রগতির জন্য কাজ শুরু করেছে মালালা ফান্ড। চালু হয়েছে ‘শিক্ষা চ্যাম্পিয়ন নেটওয়ার্ক’ ও গার্লস প্রোগ্রাম।
মালালা ফান্ড সূত্র জানায়, ২০২০ সালে প্রাথমিকভাবে বাংলাদেশে শিক্ষাক্ষেত্রের (ল্যান্ডস্কেপ) বিশ্লেষণ কার্যক্রম পরিচালনা করে এ সংস্থা। ২০২১ সালের আগস্ট থেকে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাস্তবায়নকারী (গ্রান্টি) সংস্থাও নির্বাচন করা হয়। এরপর গত এপ্রিল থেকে অনানুষ্ঠানিকভাবে কর্মসূচি বাস্তবায়নের কাজ শুরু হয়। মালালা ফান্ডের সহযোগী সংস্থা হিসাবে চারটি সংস্থা শিক্ষা চ্যাম্পিয়ন নেটওয়ার্ক ও গার্লস প্রোগ্রামের আওতায় গুণগত শিক্ষা নিশ্চিত করার পদক্ষেপ নিয়েছে।
জেলাগুলো হচ্ছে, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, নীলফামারী, কিশোরগঞ্জ, হবিগঞ্জ, নরসিংদী, খুলনা ও পটুয়াখালী। খুলনা বাদে সাত জেলায় শিক্ষা চ্যাম্পিয়ন নেটওয়ার্ট (ইসিএন) চালু হয়েছে। খুলনায় লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা নিরসনেও কাজ শুরু করেছে মালালা ফান্ড। ফান্ডের সহযোগী সংস্থা অরোধ্য। পরবর্তী সময়ে ইসএনের মাধ্যমে সরকারের সাথে শিক্ষা নিয়ে অধিপরামর্শ, গার্লস ফোলোশিপ ও শিক্ষায় দেশজ অর্থায়ন বৃদ্ধির দাবি জানানোসহ বিভিন্ন কর্মসূচি চালু করা হবে বলে সূত্র জানায়। সূত্রমতে, এসব জেলায় মোট প্রায় ২৫ হাজার ৭০০ কিশোর-কিশোরী ইতিমধ্যে বিশেষ এ শিক্ষা কর্মসূচির আওতায় এসেছে।
মালালা ফান্ড বাংলাদেশসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে স্কুলের বাইরে থাকা ১৩০ মিলিয়ন কিশোরীকে শিক্ষার মূল ধারায় ফিরিয়ে এনে তাদের নেতৃত্ব অর্জনের মতো দক্ষ করে গড়ে তুলতে চাইছে। সূত্র জানায়, এক্ষেত্রে মালালা ফান্ড অনুদান দিচ্ছে। ইতিমধ্যে পৃথিবীর নয়টি দেশে এ সংস্থা কাজ শুরু করেছে। বাংলাদেশ নবমতম দেশ। অপর আটটি দেশ হচ্ছে ভারত, পাকিস্তান, আফগানিস্তান, লেবানন, তানজানিয়া, ইথিওপিয়া নাইজেরিয়া ও ব্রাজিল।
মালালা ফান্ডের বাংলাদেশের কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ মোশাররফ তানসেন জানান, আট জেলায় শিক্ষক প্রশিক্ষণ, বিদ্যালয়ে সহশিক্ষাক্রমিক কার্যাবলী বাস্তবায়ন, বিতর্ক ও বক্তৃতা আয়োজন, শিক্ষার্থীদের মধ্যে নেতৃত্বের গুণাবলীর বিকাশ সাধন, একুশ শতকের দক্ষতা আনয়নে কাজ করা হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের মধ্যে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবসমূহের ধারণা বিকাশের জন্য বিভিন্ন কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণসমূহ সম্পর্কে তারা জানবে এবং জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় প্রস্তুত হবে। এর ফলে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবসমূহ নিয়ে শিক্ষার্থীরা অন্যান্য দেশের শিক্ষার্থীদের সাথে মতবিনিময় করবে।
তিনি আরো জানান, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় সম্ভাব্য পন্থা কী হতে পারে তা নিয়ে তাদের কিশোরী শিক্ষার্থীরা আলোচনা করবে। আবার জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে খাপ খাইয়ে চলার সক্ষমতাও অর্জন করবে। দেশে ছেলে ও মেয়েদের মধ্যে বিরাজমান ‘ডিজিটাল বৈষম্য’ দূরীকরণে কাজ করবে শিক্ষা চ্যাম্পিয়ন নেটওয়ার্ক। মেয়েদের জন্য ডিজিটাল ডিভাইস যেমন ট্যাব, ল্যাপটপ প্রভৃতি প্রদান করা হবে এ কার্যক্রমের আওতায়। মেয়েরা যাতে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারে তার জন্য হাওর ও চরাঞ্চলসহ প্রত্যন্ত এলাকার স্কুলগুলোতে বিশেষ ব্যবস্থা করা হবে। সেসব লক্ষ্য অর্জনের টার্গেট নিয়ে কাজ করছে মালালা ফান্ড।
গত ২৫ জুলাই আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশের কার্যক্রম শুরু করে মালালা ফান্ড। সূত্র জানায়, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি সংস্থার কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। এদেশে ওই সংস্থার সহযোগী হিসাবে চুক্তিবদ্ধ হওয়া গণস্বাক্ষরতা অভিযান (সিএএমপিই), পিপলস্ অরিয়েন্টেড প্রোগ্রাম ইমপ্লেমেন্টশন (পপি), ফ্রেন্ডশিপ ও অরোধ্য কর্মকর্তারাও উদ্বোধনী কর্মসূচিতে অংশ নেন। প্রসঙ্গত, মালালা ফান্ডের অর্থায়নে কাজ করার জন্য সরকারের এনজিও বিষয়ক ব্যুরোর অনুমোদন পেয়েছে এ চারটি সংস্থা।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এদেশে মাধ্যমিক শিক্ষায় মেয়ে ও ছেলে শিক্ষার্থীদের ভর্তির হারের ক্ষেত্রে যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে। ব্যানবেইসের ২০১৮ সালের তথ্যমতে, বাংলাদেশের মাধ্যমিক স্তরের প্রতিষ্ঠানে (দাখিল মাদ্রাসাসহ) মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২০০৯ সালে যেখানে সাত দশমিক চার ছিলো, ২০১৮ সালে তা বেড়ে দশ দশমিক চার মিলিয়নে উন্নীত হয়েছে। যার মধ্যে ৫৪ ভাগ মেয়ে। তবে মাধ্যমিক শিক্ষা সমাপ্তির গ্রহণযোগ্য হার এখনও অর্জন করা হয়নি।
একই সময়ে ব্যানবেইসের পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, মাধ্যমিক শিক্ষার চক্র থেকে ঝরে পড়ার হার ২০০৯ সালে ৫৫ শতাংশের বেশি থেকে ২০১৮ সালে ৩৭ শতাংশের নিচে নেমে এসেছে। একইসাথে দক্ষতা অর্জনের ক্ষেত্রে ছেলে শিক্ষর্থীরা পিছিয়ে থাকায় বিপুল সংখ্যক যুবক বেকার ও কর্মহীন রয়েছে।
কার্যক্রমের উদ্দেশ্য সম্পর্কে মালালা ফান্ড সূত্র জানায়, যেসকল বাধার কারণে মেয়েরা এখনো স্কুলের বাইরে রয়ে গেছে, সেসব বাধা দূর করার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখা হবে। স্থানীয় পর্যায়ে প্রভাব রাখেন- এমন শিক্ষানুরাগীদের অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে এ কার্যক্রমে। তাছাড়া মেয়েরা যেন সহজভাবে শিখতে পারে সেরকম শিখন পদ্ধতিও রয়েছে তাদের। শিক্ষা চ্যাম্পিয়ন নেটওয়ার্কসহ অন্যান্য কর্মসূচির মাধ্যমে স্থানীয় পর্যায়ে মেয়েদের শিক্ষায় বড়রকম পরিবর্তন আনা হবে। এর মাধ্যমে জাতীয়, আঞ্চলিক ও বৈশি^ক একটি শিক্ষা নেটওয়ার্ক বিকাশে সহায়তা করছে মালালা ফান্ড।
বক্তব্য জানতে মালালা ফান্ডের সহযোগী সংস্থা গণস্বাক্ষরতা অভিযানের উপ-পরিচালক কে. এম. এনামুল হক এ প্রতিনিধিকে বলেন, ‘শিক্ষায় যথাযথ অর্থায়ন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের অংশীদারিত্বমূলক ও পরিবেশবান্ধব শিক্ষা নিশ্চিত করতে রাষ্ট্রের নীতিমালায় ইতিবাচক পরিবর্তনে কাজ করছে তার সংস্থা। মালালা ফান্ডের অর্থায়নে হাওর, চর ও উপকূলের ছয় জেলার ২৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের বিতর্ক ও পরিবেশ ক্লাব গড়ে তোলা হচ্ছে’।
তিনি আরো জানান, এক্ষেত্রে তারা শিক্ষা ও অর্থ মন্ত্রণালয়কে শিক্ষায় বাজেট বৃদ্ধির প্রয়োজনীয়তার কথা বলবেন। যাতে এরকম শিক্ষার পরিবেশ গড়ে তোলা হয়-যেখানে বিশেষ করে মেয়ে শিক্ষার্থীরা পরিবর্তিত বিশ^ পরিস্থিতিতে নিজেদের খাপ খাওয়াবার সক্ষমতা অর্জন করতে পারে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *