• মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০২:৩৭ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কুলিয়ারচরে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচারবিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস উদযাপন কুলিয়ারচরে উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্যদের সাথে নবাগত ইউএনও ও সংস্থার সভাপতি’র মতবিনিময় কিশোরগঞ্জে ব্যাবের হাতে প্রায় ৪ হাজার পিস ইয়াবা নিয়ে তিনজন গ্রেফতার মিঠামইনে দুই ইউনিয়নে ফ্রি চিকিৎসা সেবা ও ত্রাণ বিতরণ করলেন ডা. বুলবুল আহম্মদ পাকুন্দিয়ায় মাদক, কিশোর গ্যাং ও ইভটিজিং প্রতিরোধে সভা ইটনায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্যোগে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ ভৈরব র‌্যাবের হাতে নারায়ণগঞ্জের মদনপুর থেকে ২০ কেজি গাঁজাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে জেলা ইটভাটা মালিক সমিতির সাধারণ সভা ও কমিটি গঠন কিশোরগঞ্জে মাদকবিরোধী দিবসে র‌্যালি আলোচনা ও পুরস্কার বিতরণ কিশোরগঞ্জে মিঠামইনে এমপি তৌফিকের ত্রাণ

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সম্মেলনের কাউন্সিলর তালিকা নিয়ে ক্ষোভ সংবাদ সম্মেলন

বক্তব্য রাখছেন সদর উপজেলার চেয়ারম্যান মামুন আল মাসুদ খান -পূর্বকণ্ঠ

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা
আওয়ামী লীগ সম্মেলনের
কাউন্সিলর তালিকা নিয়ে
ক্ষোভ সংবাদ সম্মেলন

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-

দীর্ঘ ২৫ বছর পর আগামী ২৫ মে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ও কাউন্সিল হতে যাচ্ছে। কিন্তু আসন্ন সম্মেলনের কাউন্সিলর নির্বাচন প্রকৃয়ার প্রতিবাদে উপজেলা আওয়ামী লীগের একাংশ উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটির বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মির ব্যানারে সংবাদ সম্মেলন করেছে। তাদের দাবিমত কাউন্সিলর নির্বাচন না করলে সম্মেলনের দিন কর্মসূচী দেয়া হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।
আজ ২০ মে শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে শহরের কালিবাড়ি সংলগ্ন শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম চত্বরে সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মামুন আল মাসুদ খান, উপজেলা কমিটির সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. সিদ্দিক হোসাইন, জেলা যুবলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ইব্রাহিম খলিল, দানাপাটুলি ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম মাসুদ, লতিবাবাদ ইউনিয়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক এসএম তাজুল ইসলাম, প্রবীণ নেতা গিয়াস উদ্দিন মো. মফিজ, রশিদাবাদ ইউনিয়ন কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এমএ যুবায়েরসহ উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ের বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মির উদ্যোগে জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলন করা হয়।
ডা. সিদ্দিক হোসাইন স্বাক্ষরিত লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন রশিদাবাদ ইউনিয়ন কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এমএ যুবায়ের। তাতে বলা হয়, ২৫ বছর আগে ১৯৯৭ সালের সম্মেলনে অ্যাডভোকেট আতাউর রহমানকে সভাপতি ও শরীফ আহমেদ সাদীর নাম সাধারণ সম্পাদ হিসেবে ঘোষণা করা হলেও পরবর্তীতে পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে জেলা কমিটির কোন অনুমোদন নেয়া হয়নি। ফলে বর্তমান উপজেলা কমিটিকে অভিভাকের স্বাক্ষরহীন কাবিননামার সাথে তুলনা করা হয়। সর্বশেষ ২০১৪ সালে উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে সম্মেলন ও কাউন্সিল করে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হলেও কোনটিরই পূর্ণাঙ্গ কমিটি উপজেলা কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সমপাদক অনুমোদন করেননি।
উপজেলা চেয়ারম্যান মামুন আল মাসুদ খান তার সূচনা বক্তব্যে বলেন, তিনি ছাত্রজীবন থেকে আওয়ামী রাজনীতি করছেন। বিগত উপজেলা নির্বাচনে তিনি দলের মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচন করে বিজয়ী হয়েছেন। হোসেনপুর উপজেলায়ও মো. সোহেল দলের মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচন করে বিজয়ী হয়েছেন। কিন্তু তারা দলের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করলে দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনা তাদের ক্ষমা করে আবার দলে ফিরিয়ে নিয়েছেন। হোসেনপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে মো. সোহেলকে কাউন্সিলর করা হলেও মামুন আল মাসুদ খানকে এখানে কাউন্সিলর করা হয়নি।
লিখিত বক্তব্যে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটুকে দায়ী করে বলা হয়, উপজেলা কমিটির লোকদের ঘরে ঘরে কাগজ পাঠিয়ে স্বাক্ষর নিয়ে উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শরীফ আহমেদ সাদীকে অব্যাহতি দিয়ে গঠনতন্ত্র বহির্ভুতভাবে প্রথম যুগ্ম-সম্পাদককে ডিঙিয়ে সাংগঠনিক সম্পাদক বৌলাই ইউপি চেয়ারম্যান আওলাদ হোসেনকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। উপজেলা কমিটির সভাপতি ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদককে সৈয়দ টিটুর ‘বশংবদ’ আখ্যা দিয়ে বলা হয়, তারা গোপনে ১১ ইউনিয়নে ৩৬৬ জনের একটি অবৈধ কাউন্সিলর তালিকা প্রণয়ন করেছেন। আর ইউনিয়ন কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের ডেকে নিয়ে কাউন্সিলর তালিকায় স্বাক্ষর নেয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত কাউন্সিলরদের তালিকা সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটুর পকেটে বন্দি। অথচ গঠনতন্ত্র অনুসারে ইউনিয়ন কমিটি থেকে আসা কাউন্সিলরদের তালিকা উপজেলা কমিটির বর্ধিত সভায় যাচাইবাছাই করে তা চূড়ান্ত করার নিয়ম। কাউন্সিলরদের নাম গোপন রাখা হচ্ছে, যেন অন্য কোন প্রার্থী কাউন্সিলদের সাথে দেখা করতে না পারেন। এই কাউন্সিলর তালিকাকে ‘এমএ আজিজ মার্কা’ ভোটার তালিকার সাথে তুলনা করা হয়েছে। এ ধরনের কাউন্সিলের মাধ্যমে সৈয়দ টিটুর নির্ধারিত গণবিচ্ছিন্ন নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠিত হবে বলে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়। ফলে সম্মেলন ও কাউন্সিলকে ঘিরে কোন উৎসাহ উদ্দীপনা নেই, বরং হতাশা ও ক্ষোভ রয়েছে বলেও উল্লেখ করা হয়।
সংবাদ সম্মেলন থেকে তিনটি দাবি তুলে ধারা হয়েছে। প্রথম দাবি হলো, অর্ধেক সদস্য মারা যাওয়া ২৫ বছরের জরাজীর্ণ কমিটি বাতিল করে একজন গ্রহণযোগ্য ব্যক্তির নেতৃত্বে ১১ ইউনিয়ন থেকে ৫১ জন সদস্য নিয়ে একটি আহবায়ক কমিটি গঠন। দ্বিতীয় দাবি হলো, এ কমিটি আগামী ৪-৫ মাসের মধ্যে ওয়ার্ড কমিটি গঠন করে প্রত্যেক ইউনিয়নে কাউন্সিলের মাধ্যমে ইউনিয়ন কমিটি গঠন করবে। ইউনিয়ন কমিটি সভা করে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের যৌথ স্বাক্ষরে কাউন্সিলর তালিকা প্রণয়ন করে উপজেলা কমিটির কাছে এক কপি জমা দেবে। তৃতীয় দাবি হলো, উপজেলা কমিটি বর্ধিত সভা ডেকে এই তালিকা যাচাই বাছাই ও আপত্তি নিষ্পত্তি করে চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করবে এবং জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সঙ্গে আলোচনা করে একটি জাকজমকপূর্ণ সম্মেলন ও কাউন্সিল অধিবেশনের তারিখ নির্ধারণ করবে। এই প্রকৃয়া অনুসরন করে গঠতন্ত্র মেনে সম্মেলন করলে যোগ্য ও জনপ্রিয় নেতৃত্ব নির্বাচিত হবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করা হয়। এসব দাবি পূরণ না হলে নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে আসন্ন সম্মেলনের দিন কর্মসূচী দেয়া হবে বলে উপজেলা চেয়ারম্যান মামুন আল মাসুদ খান ঘোষণা দিয়েছেন।

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!