• বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৪৩ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
করিমগঞ্জে ইতালি প্রবাসীর স্ত্রীর মৃত্যুরহস্য উদঘাটনে জেলা ও পুলিশ প্রশাসনকে মহিলা পরিষদের স্মারকলিপি বাজিতপুর পুলিশ দেশীয় শুটার গানসহ একজনকে গ্রেফতার করেছে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে এক সপ্তাহ পর শিক্ষকের মৃত্যু ভৈরবে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন সৈয়দ নজরুল হাসপাতালে এখন থেকে পাওয়া যাবে এন্ডোস্কোপি সেবা কিশোরগঞ্জে নতুন ৯ ব্যক্তির করোনা শনাক্ত কটিয়াদীর মানিকখালী বাজারে মাঘের মেলা পাকুন্দিয়ায় ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগ-স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে পাল্টাপাল্টি হামলার অভিযোগ তাড়াইলে ব্র্যাক কার্যালয় পরিদর্শনে ইউএনও লুবনা শারমীন পাকুন্দিয়া থেকে নকল পিস্তল গুলি ও চাকুসহ ৩ ছিনতাইকারি আটক

ওএমএস’র দোকানে নারী-পুরুষের ভিড়

পৌরসভা চত্বরে ওএমএস দোকানে নারী-পুরুষের লাইন। -পূর্বকণ্ঠ

ওএমএস’র দোকানে
নারী-পুরুষের ভিড়

# মোস্তফা কামাল :-

ধানের জেলা কিশোরগঞ্জ দেশের খাদ্য চাহিদার একটি বড় অংশের যোগান দিয়ে থাকে। অথচ আমনের চলমান ভরা মৌসুমেও বাজারে চালের দাম অনেক চড়া। নিত্যপ্রয়োজনীয় অন্যান্য পণ্যের দামও চড়া। স্বল্প ও নির্দিষ্ট আয়ের মানুষদের তাই নুন আনতে পানতা ফুরায় অবস্থা। যেন এক ধরনের নাভিশ্বাস অবস্থা। আর এরকম পরিস্থিতিতে ওএমএস’র দোকানে নারী-পুরুষের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ওএমএস ডিলারদের মাধ্যমে চাল এবং আটা বিক্রি করা হচ্ছে। বিভিন্ন বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বর্তমানে ব্রিধান-২৮ জাতের চাল মানভেদে বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫২ টাকা কেজি। ব্রিধান-২৯ জাতের চাল ৪৬ থেকে ৪৮ টাকা কেজি। পাইজাম ৬২ টাকা কেজি, টোপা বোরো ৬৬ থেকে ৬৮ টাকা কেজি।
বর্তমান বাজারে যে মানের মোটা চালটি বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা কেজি, সেটি ওএমএস’র মাধ্যমে বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা কেজি। আর বাজারে একটু ভাল মানের আটা বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকা কেজি। অন্যদিকে ওএমএস’র মাধ্যমে বিক্রি হচ্ছে ১৮ টাকা কেজি। তবে ওএমএস’র আটার মানও মোটামুটি ভালই বলে ক্রেতারা জানিয়েছেন। একজন ক্রেতাকে দেয়া হচ্ছে ৫ কেজি চাল এবং ৫ কেজি আটা। শুক্রবার ছাড়া সপ্তাহে ৬ দিন ওএমএস’র পণ্য বিক্রি হচ্ছে। আর একজন ডিলারকে খাদ্য অধিদপ্তর থেকে প্রতিদিন বরাদ্দ দিচ্ছে একটন চাল এবং একটন আটা। কিশোরগঞ্জ পৌরসভা চত্বরে গিয়ে দেখা গেছে, নারী ও পুরুষদের লম্বা লাইন। একজন ট্যাগ অফিসারের উপস্থিতিতে এসব চাল এবং আটা বিক্রি করা হচ্ছে। এগুলি ডিজিটাল ওজন পরিমাপক যন্ত্রের সাহায্যে মেপে দেয়া হচ্ছে। কাজেই ক্রেতাদের কাছ থেকে ওজন কারচুপির কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!