• বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ১১:০৬ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
করিমগঞ্জে ইতালি প্রবাসীর স্ত্রীর মৃত্যুরহস্য উদঘাটনে জেলা ও পুলিশ প্রশাসনকে মহিলা পরিষদের স্মারকলিপি বাজিতপুর পুলিশ দেশীয় শুটার গানসহ একজনকে গ্রেফতার করেছে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে এক সপ্তাহ পর শিক্ষকের মৃত্যু ভৈরবে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন সৈয়দ নজরুল হাসপাতালে এখন থেকে পাওয়া যাবে এন্ডোস্কোপি সেবা কিশোরগঞ্জে নতুন ৯ ব্যক্তির করোনা শনাক্ত কটিয়াদীর মানিকখালী বাজারে মাঘের মেলা পাকুন্দিয়ায় ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগ-স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে পাল্টাপাল্টি হামলার অভিযোগ তাড়াইলে ব্র্যাক কার্যালয় পরিদর্শনে ইউএনও লুবনা শারমীন পাকুন্দিয়া থেকে নকল পিস্তল গুলি ও চাকুসহ ৩ ছিনতাইকারি আটক

ভৈরবের নির্ভীক নারী শারমিন আক্তার জুঁই স্বেচ্ছাশ্রমের অদম্য কোভিডযোদ্ধা

ভৈরবের নির্ভীক নারী
শারমিন আক্তার জুঁই
স্বেচ্ছাশ্রমের অদম্য
কোভিডযোদ্ধা

# মোস্তাফিজ আমিন :-

কোভিড-১৯ এর শুরু থেকে আজ অবধি আইসোলেশন সেন্টারে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে রোগী ও মৃতদের স্যাম্পল সংগ্রহ, পরীক্ষা এবং ভর্তিকৃতদের চিকিৎসা সেবা দিয়ে প্রশংসায় ভাসছেন শারমিন আক্তার জুঁই নামের এক নির্ভীক নারী। নিজের, নিজেদের তিনটি শিশু সন্তান, স্বামী ও পরিবারের সদস্যদের জীবনের ঝুঁকি জেনেও তিনি প্রতিদিন তার দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। মানব সেবার এমন বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে বর্তমানে মানুষের হৃদয়ে ঠাঁই করে নিয়েছেন তিনি।
প্রতিদিন আক্রান্ত হচ্ছে শতে শতে! লকডাউনে অচল সব কিছু! চারদিকে আতংক! বাহিরমুখি মানুষকে ঘরে রাখতে এবং নতুন এই মহামারি থেকে রক্ষায় সচেতনতা তৈরিতে কাজ করছেন সম্মুখযোদ্ধা প্রশাসনের লোকজন। আর অন্যদিকে আক্রান্তদের চিকিৎসা, সেবা আর পরীক্ষায় প্রাণান্ত চেষ্টা করে যাচ্ছেন চিকিৎসা সংশ্লিষ্ট ডাক্তার, নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীরা। কিন্তু তাতেও রক্ষা হচ্ছে না। উল্টো এইসব সম্মুখযোদ্ধারাই আক্রান্ত হতে লাগলেন সমানে। সংকট আরও তীব্রতর হতে লাগলো।
সেই সময় ভৈরবের ২০ শয্যার বিশেষায়িত ট্রমা সেন্টারকে কোভিড-১৯ এর আইসোলেশন সেন্টার হিসেবে ঘোষণা দিয়ে স্থানীয় প্রশাসন সেখানে আক্রান্তদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও চিকিৎসা সেবা দেওয়া শুরু করলো। কিন্তু লোকবল সংকটে সেখানকার চিকিৎসা সেবা ব্যাহত হতে লাগলো। কারণ এখানে দায়িত্বরতরা একে একে আক্রান্ত হয়ে নিজেরাই কোয়ারেন্টাইনে যাওয়া শুরু করলেন।
তখন চারদিকের পরিস্থিতি এমন ভয়াবহ রূপ নিলো যে, নিকটাত্মীয় আক্রান্ত হলেও কেউ কাউকে দেখতে পর্যন্ত যায় না, সেবা তো বহু দূরের বিষয়। ফলে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কেউ কোভিডের স্যাম্পল সংগ্রহ, পরীক্ষা করা এবং আইসোলেশনে থাকা রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেবেন, এমনটি তো কেউ কল্পনাও করেন না।ঠিক এমন পরিস্থিতিতে শারমিন আক্তার জুঁই নামের নির্ভীক এক নারী কোভিড-১৯ প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি-সদস্য সচিব, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করে বিনাবেতনে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেন।
এমন একজন কর্মীর খুব প্রয়োজন থাকলেও, তিনটি শিশু কন্যার মা শারমিন আক্তার জুঁইকে তারা এই কাজে আসতে বারণ করেন। কিন্তু জুঁইয়ের অদম্য মনোবলের কাছে হেরে ওকে আইসোলেশন সেন্টারে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কাজ করার অনুমতি দেন তারা।
জুঁই জানান, ২০১৬ সালে তিনি চিকিৎসা প্রযুক্তি বিদ্যায় ডিগ্রি অর্জন করেন। পরে ভৈরবের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চাকুরি নেন। ২০১৯ সালের এপ্রিল-মে মাসে যখন সারা দেশের মতো ভৈরবের করোনা পরিস্থিতিও খুব খারাপ পর্যায়ে চলে যায়, তখন তিনি সিদ্ধান্ত নেন চাকুরি ছেঁড়ে দিয়ে কোভিড-১৯ আইসোলেশন সেন্টারে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কাজ করে মানবসেবার এই সুযোগটি গ্রহণ করবেন। বিষয়টি তিনি তার স্বামী স্কুল শিক্ষক আমিনুল ইসলাম লিটনকে জানালেন। স্ত্রীর এমন সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানান লিটন। কিন্তু বাঁধা হয়ে দাঁড়ায় পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা।
বিশেষ করে মা ও শ্বাশুড়িসহ অভিভাবক শ্রেণির আত্মীয়রা। তারা তার তিনটি শিশু সন্তানের বিষয়টি ভাবনায় নিয়ে এই সিদ্ধান্ত থেকে ফিরে আসতে বলেন। কিন্তু স্বামীর সমর্থন আর নিজের ইচ্ছাশক্তিকে ভর করে সিদ্ধান্তে অটল থাকেন এবং আইসোলেন সেন্টারে যোগ দিয়ে কাজ শুরু করেন।
জুঁই আরো জানান, প্রতিদিন তিনি সকাল থেকে রাত অবধি বিরামহীন স্যাম্পল সংগ্রহ, পরীক্ষার জন্য পাঠানো, তালিকা তৈরি করা, তথ্য সংরক্ষণ করা এবং ভর্তিরোগীদের সেবা করে গেছেন এবং এখনও করছেন। প্রথম প্রথম মৃতরোগীদের স্যাম্পল সংগ্রহের সময় কিছুটা আতংকিত থাকলেও, পরে ধীরে ধীরে অভ্যস্ত হয়ে পড়েন তিনি।জুঁইয়ের ব্যক্তিগত মোবাইল নাম্বারটি হেল্পসেন্টারে দেওয়া ছিলো বলে রাত-দিন তার কাছে রোগী ও তাদের স্বজনদের কল আসে। সেই সব শত শত কল তাকে রিসিভ করতে হয়। উত্তর দিতে হয় নানা প্রশ্নের। শুধু আইসোলেন সেন্টারে বসে নমুনা সংগ্রহ নয়, অনেক সময় কল পেয়ে আক্রান্ত রোগী এবং মৃতদের বাড়িতেও তাকে ছুটে যেতে হয়। শুধু শহর এলাকা নয়, উপজেলার এমন কোনো গ্রাম নেই, তাকে যেখানে যেতে হয় না।
এক প্রশ্নের উত্তরে জুঁই বলেন, কোভিডের প্রবল ঢেউয়ের সময় তাকে স্বামী-সন্তানদের কাছ থেকে আলাদা হয়ে থাকতে হয়েছে। একই ঘরে থেকেও তিনি তার শিশু সন্তানদের বুকে জড়িয়ে আদর করতে পারেননি। তখন কিছুটা কষ্ট লাগতো। কিন্তু মানব সেবার বিষয়টি ভেবে তিনি তার এই আবেগকে পরিত্যাগ করেছেন।
শারমিন আক্তার জুঁইয়ের স্বামী স্কুল শিক্ষক আমিনুল ইসলাম লিটন জানান, স্ত্রীর মানবসেবার মনোবাসনাকে শ্রদ্ধা জানিয়ে তিনি করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ও সদস্য সচিবের সাথে যোগাযোগ করেন এবং চাকুরি ছাঁড়িয়ে সেখানে বিনা বেতনে কাজ করার অনুমতি দেন।
তখন তার স্কুল বন্ধ থাকায় সন্তানদের দেখা-শোনা ও সেবায় কোনো ব্যত্যয় ঘটেনি। তিনি বাসায় থেকে সন্তানদের লালন-পালন করেছেন। আত্মীয়রা বাঁধা দিলেও তিনি তার স্ত্রীকে প্রেরণা দিয়েছেন। তার অনুপ্রেরণাতেই করোনার প্রথম ও দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় দিন-রাত কাজ করতে পেরেছেন। এখনও করে যাচ্ছেন, নিয়মিত।
করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. খুরশীদ আলম জানান, কোভিড-১৯ এর ভয়াবহ পরিস্থিতির সময় শারমিন আক্তার জুঁই নামের এই স্বেচ্ছাসেবী মানব সেবায় এগিয়ে আসেন এবং আইসোলেশন সেন্টারে স্যাম্পল সংগ্রহসহ অন্যান্য কাজ নিয়মিত করে যাচ্ছেন। আমরা তাকে আর্থিকভাবে কোনো সহায়তাই করতে পারছি না। কিন্তু তিনি স্বেচ্ছাশ্রমে অক্লান্তভাবে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। আমরা তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!