• বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ১০:২৭ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
করিমগঞ্জে ইতালি প্রবাসীর স্ত্রীর মৃত্যুরহস্য উদঘাটনে জেলা ও পুলিশ প্রশাসনকে মহিলা পরিষদের স্মারকলিপি বাজিতপুর পুলিশ দেশীয় শুটার গানসহ একজনকে গ্রেফতার করেছে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে এক সপ্তাহ পর শিক্ষকের মৃত্যু ভৈরবে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন সৈয়দ নজরুল হাসপাতালে এখন থেকে পাওয়া যাবে এন্ডোস্কোপি সেবা কিশোরগঞ্জে নতুন ৯ ব্যক্তির করোনা শনাক্ত কটিয়াদীর মানিকখালী বাজারে মাঘের মেলা পাকুন্দিয়ায় ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগ-স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে পাল্টাপাল্টি হামলার অভিযোগ তাড়াইলে ব্র্যাক কার্যালয় পরিদর্শনে ইউএনও লুবনা শারমীন পাকুন্দিয়া থেকে নকল পিস্তল গুলি ও চাকুসহ ৩ ছিনতাইকারি আটক

কিশোরগঞ্জে নিরাপদ খাদ্য আইন বিষয়ক সেমিনার বছরে মৃত্যু ৪ লক্ষাধিক

বক্তব্য রাখছেন যুগ্মসচিব শাহনওয়াজ দিলরুবা খান। -পূর্বকণ্ঠ

কিশোরগঞ্জে নিরাপদ খাদ্য
আইন বিষয়ক সেমিনার
বছরে মৃত্যু ৪ লক্ষাধিক

# মোস্তফা কামাল :-

ভেজাল, দূষিত ও ক্ষতিকর খাবার থেকে সর্বস্তরের মানুষকে রক্ষার লক্ষ্যে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে কিশোরগঞ্জে ‘নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ-এর আইন, বিধি ও প্রবধিমালার প্রয়োগ’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেমিনারে জানানো হয়েছে, অনিরাপদ খাদ্য গ্রহণ করে বিশ্বে বছরে ৪ লাখ ২০ হাজার মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। আজ ২৯ নভেম্বর সোমবার সকালে সার্কিট হাউজ মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে সেমিনারের উদ্বোধন করেন যুগ্মসচিব ও নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সদস্য শাহনওয়াজ দিলরুবা খান। সেমিনারে বিশেষ অতিথি সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অনির্বাণ চৌধুরী ছাড়াও বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. নাজমুল ইসলাম সরকার, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ফারজানা খানম, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী, নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের আইন কর্মকর্তা অ্যাডভোকেট শেখ ফেরদৌস আরাফাত, জেলা নিরাপদ খাদ্য কর্মকর্তা আশরাফুল ইসলাম, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সামছুন্নাহার মাকসুদা, সরকারী এসভি বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহনাজ কবীর, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক মো. মহসিন খান, জেলা চেম্বারের সিনিয়র সহ-সভাপতি খালেকুজ্জামান, জেলা উইমেন চেম্বারের সভাপতি ফাতেমা জহুরা, রেস্তঁরা মালিক সমিতির সভাপতি শহীদুল ইসলাম, জেলা ব্র্যাক সমন্বয়ক মো. শফিকুল ইসলাম প্রমুখ।
প্রধান অতিথি বলেন, সরকার নিরাপদ খাদ্য আইন-২০১৩ প্রণয়নের পর ২০১৫ সাল থেকে এর কার্যকারিতা শুরু হয়। বিভিন্ন খাদ্যে ক্ষতিকর উপাদান ব্যবহার করা হচ্ছে। খাবার সংরক্ষণ, সঠিক তাপমাত্রায় রান্না এবং মোড়কের গায়ে পণ্য সম্পর্কে প্রয়োজনীয় তথ্য না থাকা অথবা মিথ্যা তথ্য থাকায় খাদ্যটি অনিরাপদ হয়ে যায়ে। ফলে নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করে মানুষকে সুস্থ রাখার লক্ষ্যেই এই যুগান্তকারী আইনটি প্রণয়ন করা হয়েছে। অনিরাপদ খাদ্য গ্রহণের ফলে সারা বিশ্বে মানুষ ২০০ প্রকার রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। অনিরাপদ খাবার খেয়ে বিশ্বে বছরে ৪ লাখ ২০ হাজার মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। অনিরাপদ খাদ্যের জন্য আমাদের দেশে গ্রামে ৫০ ভাগ, আর শহরে ৭০ ভাগ মানুষ ক্যান্সার, হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, নানারকম পেটের পীড়া ও ফুসফুসের সমস্যাসহ বিভিন্ন অসংক্রামক রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। অটিজম বাড়ছে, বন্ধ্যাত্ম বাড়ছে। জনগণের আয়ের ৪০ ভাগই খরচ হয়ে যাচ্ছে চিকিৎসা বাবদ।
তিনি জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনকে বিভিন্ন হোটেলসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো মনিটর করা এবং জনণের মাঝে এ ব্যাপারে সচেতনতা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য আহবান জানিয়েছেন। পাশাপাশি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনারও আহবান জানিয়েছেন। এছাড়াও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে যেসব দোকান বসে, এদের মধ্যে মানসম্পন্ন দোকানকে অনুমতি প্রদানের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। এসব দোকন যেন নিরাপদ খাদ্য তৈরি করে, নিরাপদ পানি ব্যবহার করে, এদিকে কঠোর নজরদারি করার জন্যও তিনি আহবান জানিয়েছেন। তিনি হোটেল মালিকদেরকে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের তৈরি করা নির্দেশনাগুলো অনুসরণ করার আহবান জানিয়েছেন। ভেজাল বা দূষিত খাদ্য পরীক্ষার জন্য বর্তামানে বিভাগীয় শহরগুলোতে ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, জেলা পর্যায় থেকে প্রয়োজনে নমুনা সংগ্রহ করে এসব ল্যাবে পাঠিয়ে পরীক্ষার সুযোগ রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!