• বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৯:৫২ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
ভিক্ষা জীবন ছেড়ে কাজ ও বাসস্থান চান কুলিয়ারচরের হিজড়ারা ভৈরবের নির্ভীক নারী শারমিন আক্তার জুঁই স্বেচ্ছাশ্রমের অদম্য কোভিডযোদ্ধা সবাইকে সঙ্গে নিয়ে আরও শক্তিশালীভাবে এগিয়ে যাবে যায়যায়দিন …… এমডি কিশোরগঞ্জে ১২ থেকে ১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম শুরু হলো হোসেনপুরে ইউপি নির্বাচনে সরে দাঁড়ালেন ১০ জন প্রার্থী রূপগঞ্জের হাসেম ফুডস লি. অগ্নিকাণ্ডে মারা যাওয়া ১৯ জনের পরিবারকে অনুদান কিশোরগঞ্জে ৪৫০ পিস ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে উদ্যোক্তাদের নিয়ে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যোৎপাদন প্রশিক্ষণ র‍্যাবের হাতে ভারতীয় মালামালসহ এক চোরাচালানকারী আটক কিশোরগঞ্জে যানজট নিরসন সংক্রান্ত সভা ৬শ’ অটোর ৯টি রুট

কিশোরগঞ্জে বিএডিসির বীজ বিপণন নিয়ে উপ-পরিচালক গোলকনাথের ব্যাখ্যা

কিশোরগঞ্জে বিএডিসির বীজ
বিপণন নিয়ে উপ-পরিচালক
গোলকনাথের ব্যাখ্যা

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-

কিশোরগঞ্জে বিএডিসি’র বোরো বীজ বিপণন নিয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনের ব্যাখ্যা দিয়েছেন জেলা বিএডিসি’র (বীজ বিপণন) উপ-পরিচালক গোলকনাথ বণিক। তিনি বলেছেন, কিশোরগঞ্জ জেলার জন্য এবার বোরো বীজ বরাদ্দ হয়েছে ৪ হাজার ১শ’ মেট্রিকটন। ডিলারগণ নতুন করে ভর্তুকি পুনর্নির্ধারণের অপেক্ষায় থাকতে গিয়ে ৩ নভেম্বর পর্যন্ত বীজ উত্তোলন করেননি। তবে এর আগেই পূর্বের মূল্যে ২৩৪ টন বীজ বিতরণ করা হয়েছে। পূর্বের মূল্যে ডিলার পর্যায়ে প্রতি কেজি ব্রিধান-২৮ বীজ বিক্রি হয়েছে ৪৬ টাকা। আর কৃষক পর্যায়ে বিক্রয় মূল্য ছিল ৫৩ টাকা। অন্যদিকে ব্রিধান-২৯ বীজ ডিলার পর্যায়ে প্রতি কেজির দাম ছিল ৪৫ টাকা, আর কৃষক পর্যায়ে ছিল ৫২ টাকা। মূল্য পুনর্নির্ধারণের পর ডিলার পর্যায়ে প্রতি কেজি ব্রিধান-২৮ বীজ বিক্রি হচ্ছে ৪২ টাকা ৫০ পয়সা। আর কৃষক পর্যায়ে বিক্রয় মূল্য ৫০ টাকা। অন্যদিকে ব্রিধান-২৯ বীজ ডিলার পর্যায়ে প্রতি কেজির দাম হচ্ছে ৪২ টাকা, আর কৃষক পর্যায়ে ৪৯ টাকা।
উপ-পরিচালক জানান, অক্টোবরের তৃতীয় সপ্তাহে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. নূরুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জেলা সার ও বীজ মনিটরিং কমিটির সভায় ডিলার নেতারা দাবি জানিয়েছিলেন যেন ভর্তুকী পুনর্নির্ধারণের আগে কৃষকদের প্রয়োজন মেটাতে রশিদ ছাড়া বীজ প্রদান করা হয়। ভর্তুকি ঘোষণার পর তারা নতুন মূল্যে দাম পরিশোধ করে দেবেন। কিন্তু মনিটরিং কমিটির লিখিত রেজুলেশন ছাড়া বীজ দেয়া সম্ভব হয়নি বলে উপ-পরিচালক জানিয়েছেন। যে কারণে ডিলারগণ ভর্তুকির অপেক্ষায় ৩ নভেম্বর পর্যন্ত বীজ উত্তোলন করেননি। এক্ষেত্রে উপ-পরিচালক অফিসের কিছু করার ছিল না। তবে ৩ নভেম্বরের পরও ডিলারগণ পরিমাণে বীজ কম উত্তোলন করেছেন। যে কারণে অনেক বীজ গুদামে মজুদ পড়ে আছে বলে তিনি জানিয়েছেন। এদিকে ডিলারগণ জানিয়েছেন, ভর্তুকি পুনর্নির্ধাণে বিলম্ব করায় ডিলারগণ সময়মত বীজ উত্তোলন না করার কারণে এই সুযোগে বিভিন্ন প্রাইভেট কোম্পানির বীজে বাজার সয়লাব হয়ে গেছে। যে কারণে ক্ষতির আশঙ্কায় ডিলারগণ বিএডিসি’র বীজ কম উত্তোলন করেছেন বলেই গুদামে বীজ আটকে আছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!