• বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৯:২৬ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
ভিক্ষা জীবন ছেড়ে কাজ ও বাসস্থান চান কুলিয়ারচরের হিজড়ারা ভৈরবের নির্ভীক নারী শারমিন আক্তার জুঁই স্বেচ্ছাশ্রমের অদম্য কোভিডযোদ্ধা সবাইকে সঙ্গে নিয়ে আরও শক্তিশালীভাবে এগিয়ে যাবে যায়যায়দিন …… এমডি কিশোরগঞ্জে ১২ থেকে ১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম শুরু হলো হোসেনপুরে ইউপি নির্বাচনে সরে দাঁড়ালেন ১০ জন প্রার্থী রূপগঞ্জের হাসেম ফুডস লি. অগ্নিকাণ্ডে মারা যাওয়া ১৯ জনের পরিবারকে অনুদান কিশোরগঞ্জে ৪৫০ পিস ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে উদ্যোক্তাদের নিয়ে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যোৎপাদন প্রশিক্ষণ র‍্যাবের হাতে ভারতীয় মালামালসহ এক চোরাচালানকারী আটক কিশোরগঞ্জে যানজট নিরসন সংক্রান্ত সভা ৬শ’ অটোর ৯টি রুট

নিঃসন্তান দম্পতিদের সামাজিক অনিশ্চয়তা নিরসনে রোডম্যাপ

নিঃসন্তান দম্পতিদের
সামাজিক অনিশ্চয়তা
নিরসনে রোডম্যাপ

# মোস্তফা কামাল :-

সমাজে কিছু দম্পতি থাকে প্রজননক্ষম। তারা যখন চায় তখন সন্তান নিতে পারে। কিন্তু কিছু দম্পতি থাকে প্রজনে অক্ষম। এদের মধ্যে স্ত্রীর নিয়মিত মাসিক হওয়ার পরও তারা সন্তান নিতে পারছেন না। এদেরকেই সমাজে বলা হয় নিঃসন্তান দম্পতি। আবার অনেক দম্পতি আছে, যাদের একটি সন্তান হবার পর আর সন্তান হচ্ছে না। এই অবস্থাকে বলা হয় সেকেন্ডারি ইনফার্টিলিটি। বিশ্বে মোট সক্ষম দম্পতির ১০ থেকে ১৫ ভাগই বর্তমানে নিঃসন্তান। এই সংখ্যা ক্রমশ বেড়ে চলেছে। সমাজ বুঝে হোক না বুঝে হোক, তাদের সাথে এমন সব আচরণ করে ফেলে যে, এই গ্রুপটির মানসিক স্বাস্থ্য বিপন্ন হয়ে পড়ছে। এদের মধ্যে একটি মেধাবী গ্রুপও রয়েছে। ফলে এসব দম্পতি এক ধরনের হতাশা বা মানসিক অবসাদ এবং নানারকম সামাজিক অনিশ্চয়তায় ভোগে। যৌবনে তারা আনন্দ উল্লাসে জীবনটা উপভোগ করলেও মধ্যবয়সে এক ধরণের মানসিক যাতনায় ভোগেন। সম্পদশালী হোক আর নিম্নবিত্ত হোক, নিঃসন্তান দম্পতি উত্তাধিকার নিয়ে এক ধরনের অনিশ্চয়তায় ভোগেন, হতাশায় ভোগেন। বিশেষ করে বৃদ্ধ বয়সে তাদের পরিণতি কি হবে, এ নিয়ে দুশ্চিন্তা পেয়ে বসে।
কিশোরগঞ্জের পরিবার পরিকল্পনা বিভাগে কর্মরত জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. হালিমা আখতার মনে করেন, সময়মত বিশেষ কাউন্সেলিং ও চিকিৎসা পদ্ধতি প্রয়োগ করতে পারলে নিঃসন্তান দম্পতিদের মধ্যে বেশিরভাগ দম্পতিই সন্তান ধারণে সক্ষম হবেন। তিনি এই বিষয়টি নিয়ে নিবিড়ভাবে কাজ করছেন বলেও জানিয়েছেন। তিনি তার কর্ম এলাকায় অনুর্বর দম্পতিদের তালিকা তৈরি করছেন বলেও জানিয়েছেন। ডা. হালিমা ২৬ বছরেরও বেশি সময় ধরে পরিবার পরিকল্পনা বিভাগে কাজ করছেন। তিনি মনে করেন, সন্তান না থাকলেও এসব দম্পতির সমাজকে অনেক কিছু দেয়ার আছে। যে কারণে হতাশাকে ঝেড়ে ফেলে ভালো কাজে আত্মনিয়োগ করতে হবে। তাই প্রয়োজন সঠিক সময়ে তাদের সাথে সফল কাউন্সেলিং করা, যাতে তারা মানষিক যাতনা ঝেড়ে ফেলে স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে সক্ষম হন।
তিনি বলেন, পরিবার পরিকল্পনা বলতে অধিকাংশ মানুষই বোঝেন কেবল জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ বা জন্মনিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা। আসলে এই বিভাগ যেমন জনসংখ্যা বা জন্মনিয়ন্ত্রণ নিয়ে কাজ করে, পাশাপাশি মানব সম্পদ উন্নয়নের অংশ হিসেবে মাতৃ ও শিশু মৃত্যু রোধ, মাতৃ ও শিশু স্বাস্থ্য, কিশোর-কিশোরীদের প্রজনন স্বাস্থ্য সেবাও দিয়ে থাকে। ডা. হালিমা মনে করেন, কেবল জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমেই সুস্থ পরিবার বা সুস্থ জাতি গঠন করা যাবে না, মানব সৃষ্টির কাজে সহায়তার বিষয়েও যথেষ্ট মনযোগ দিতে হবে। নিঃসন্তান দম্পতিদের জন্য একটি প্রণালীবদ্ধ চিকিৎসা ব্যবস্থা বা পরামর্শ ব্যবস্থার ওপর তিনি গুরুত্বারোপ করেছেন। বিষয়টি সামাজিক জীবনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। নিঃসন্তান দম্পতিরা ভাল থাকতে চাইলেও সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি তাদেরকে ক্রমাগত আঘাত করে চলেছে। তারা ভাল থাকতে পারছেন না। বিশেষ করে কেবল সন্তান না থাকার কারণে যখন তাদের ভবিষ্যত জীবনের পরিকল্পনা করে ফেলছে সমাজ বা পরিবার, তখন তারা মানসিকভাবে চরমভাবে বিপন্ন বা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন। কাজেই পরিবারের মানসিক স্বাস্থ্য ভাল রাখতে নিঃসন্তান দম্পতিদের বিশেষ সেবার আওতায় আনা প্রয়োজন বলে তিনি মনে করেন। এর জন্য পরিবার পরিকল্পনা সেবাসহ অন্যান্য সেবা দেয়ার মতই নিঃসন্তান দম্পতিদের আলাদা ছকে নিবন্ধিত করে তাদের নিয়মিত পরামর্শ, পরীক্ষা-নিরীক্ষা, চিকিৎসা সেবা দেয়ার ব্যবস্থা করার পক্ষে তিনি মত দিয়েছেন। নিঃসন্তান দম্পতিদের সঠিক তালিকা প্রস্তুত করা দরকার। সেই সাথে উপজেলা থেকে জেলা পর্যায়ের সকল সরকারী স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে নিঃসন্তান দম্পতিদের বিশেষ সেবা প্রদানের জন্য একটি কর্ণার থাকা প্রয়োজন বলেও তিনি মনে করেন। আর প্রতিটি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা, হিস্টেরোসালফিগ্রাম করাসহ ন্যুনপক্ষে আইইউআই (ইন্ট্রা ইউটেরাইন ইনসিমেনেশন) করার ব্যবস্থা করা এখন সময়ে দাবি বলে তিনি মনে করেন। কারণ তারা কখন কোথায় যাবেন, এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে পারছেন না। দিশেহারা হয়ে এদিক সেদিক ঘোরাফেরা করে একসময় চিকিৎসা বাদ দিয়ে ঘরে বসে যান এবং হতাশায় নিমজ্জিত হয়ে পড়েন। এ চিকিৎসা একটু দীর্ঘমেয়াদী। সঠিক দিকনির্দেশনার অভাবে অনেকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে যান। আবার অনেকে চিকিৎসা ছেড়ে দেন। আর কেউ কেউ সন্তানের আশায় দ্বিতীয় বিয়েও করেন। ডা. হালিমা জানান, তারা এসব দম্পতিদের বিশেষ সেবার আওতায় আনার বিষয়ে কিশোরগঞ্জ জেলায় কাজ শুরু করতে যাচ্ছেন। জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপ-পরিচালক এস এম খাইরুল আমিন তাকে এই কাজে সহযোগিতা করছেন এবং উৎসাহিত করছেন।
মানব সম্পদ উন্নয়নের মাধ্যমে সুস্থ জাতি গড়ার লক্ষ্যে যেন মানব সৃষ্টি এবং নিয়ন্ত্রণ উভয় দিকে সমানভাবে নজর দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়, এই বিষয়ে ডা. হালিমা আক্তার নীতি নির্ধারকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!