• বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:৪৮ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
ভিক্ষা জীবন ছেড়ে কাজ ও বাসস্থান চান কুলিয়ারচরের হিজড়ারা ভৈরবের নির্ভীক নারী শারমিন আক্তার জুঁই স্বেচ্ছাশ্রমের অদম্য কোভিডযোদ্ধা সবাইকে সঙ্গে নিয়ে আরও শক্তিশালীভাবে এগিয়ে যাবে যায়যায়দিন …… এমডি কিশোরগঞ্জে ১২ থেকে ১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম শুরু হলো হোসেনপুরে ইউপি নির্বাচনে সরে দাঁড়ালেন ১০ জন প্রার্থী রূপগঞ্জের হাসেম ফুডস লি. অগ্নিকাণ্ডে মারা যাওয়া ১৯ জনের পরিবারকে অনুদান কিশোরগঞ্জে ৪৫০ পিস ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে উদ্যোক্তাদের নিয়ে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যোৎপাদন প্রশিক্ষণ র‍্যাবের হাতে ভারতীয় মালামালসহ এক চোরাচালানকারী আটক কিশোরগঞ্জে যানজট নিরসন সংক্রান্ত সভা ৬শ’ অটোর ৯টি রুট

কিশোরগঞ্জে ১২ থেকে ১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের টিকা প্রদানের প্রস্তুতি চলছে

কিশোরগঞ্জে ১২ থেকে ১৭
বছরের শিক্ষার্থীদের টিকা
প্রদানের প্রস্তুতি চলছে

# মোস্তফা কামাল :-

কিশোরগঞ্জে ১২ বছর থেকে ১৭ বছর বয়সী স্কুল শিক্ষার্থীদের ফাইজরের টিকা প্রদান কার্যক্রমের প্রস্তুতি চলছে। এ উপলক্ষে আজ ২৩ নভেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায় জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলমের সভাপতিত্বে জুম প্রযুক্তিতে কমিটির একটি গুরুত্বপূর্ণ সভা হয়েছে। সভায় সিদ্ধান্ত হয়, জেলা শহরের সরকারী বালক বিদ্যালয় ও সরকারী এসভি বালিকা বিদ্যালয়ে টিকাদান কেন্দ্র প্রস্তুত করা হবে। এসভি স্কুলে মেয়েদের, আর বালক বিদ্যালয়ে ছেলেদের টিকা প্রদান করা হবে। এর জন্য দু’টি স্কুলে তিনটি করে কক্ষ প্রস্তুত করে এসি লাগিয়ে টিকার উপযোগী করা হবে। জেলা প্রশাসক এ ব্যাপারে সহায়তা করার জন্য জেলা শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সাইফুল ইসলাম ও স্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আতিকুর রহমানকে অনুরোধ জানিয়েছেন। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মো. গোলাম মোস্তফা, ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মো. মোস্তাফিজুর রহমান, একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সাইফুল ইসলাম ও জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সামছুন্নাহার মাকসুদার সমন্বয়ে ৫ সদস্যের দল পুরো কাজটি তদারকি করবে।
সভায় সভাপতি ছাড়াও পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান, স্বাস্থ্য ও শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের দু’জন নির্বাহী প্রকৌশলী এবং জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা টিকাদান কার্যক্রম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন।
এসময় সিভিল সার্জন জানিয়েছেন, জেলায় ফাইজারের টিকার জন্য টার্গেট শিক্ষার্থী রয়েছে প্রায় এক লাখ। দৈনিক এক হাজার শিক্ষার্থীকে টিকা প্রদান করা হবে। ফাইজারের টিকা সংরক্ষণ ও প্রদানের জন্য যে মাত্রার শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত অবকাঠামো দরকার, সেগুলি উপজেলা পর্যায়ে নেই বলে আপাতত জেলা সদরে শুরু করা হচ্ছে। এছাড়া নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহও নিশ্চিত করতে হবে। কোন উপজেলায় এ ধরনের অবকাঠামোগত সুবিধা তৈরি করা গেলে সেখানেও টিকাদান কার্যক্রম চালানো যাবে। ফাইজারের টিকা হাতে পাওয়ার এক মাসের মধ্যে সেগুলি পুশ করার নিয়ম রয়েছে। যে কারণে অত্যন্ত সতর্কতা এবং দ্রুততার সঙ্গে এই কার্যক্রম বাস্তবায়নে যেতে হবে। গতকাল সোমবার থেকে জেলা শিল্পকলা মিলনায়তনে এবারের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার্থীদেরও টিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে। ২ ডিসেম্বর থেকে পরীক্ষা শুরু। ফলে ২৫ নভেম্বর পর্যন্ত টিকাদান করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!