• বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৯:৩৮ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
ভিক্ষা জীবন ছেড়ে কাজ ও বাসস্থান চান কুলিয়ারচরের হিজড়ারা ভৈরবের নির্ভীক নারী শারমিন আক্তার জুঁই স্বেচ্ছাশ্রমের অদম্য কোভিডযোদ্ধা সবাইকে সঙ্গে নিয়ে আরও শক্তিশালীভাবে এগিয়ে যাবে যায়যায়দিন …… এমডি কিশোরগঞ্জে ১২ থেকে ১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম শুরু হলো হোসেনপুরে ইউপি নির্বাচনে সরে দাঁড়ালেন ১০ জন প্রার্থী রূপগঞ্জের হাসেম ফুডস লি. অগ্নিকাণ্ডে মারা যাওয়া ১৯ জনের পরিবারকে অনুদান কিশোরগঞ্জে ৪৫০ পিস ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে উদ্যোক্তাদের নিয়ে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যোৎপাদন প্রশিক্ষণ র‍্যাবের হাতে ভারতীয় মালামালসহ এক চোরাচালানকারী আটক কিশোরগঞ্জে যানজট নিরসন সংক্রান্ত সভা ৬শ’ অটোর ৯টি রুট

অধ্যক্ষ আবদুল বাসেতের জীবন ও কর্ম ; মো. মোতাহার হোসেন

১৯৪৪ সালের ৪ ডিসেম্বর বৃটিশ ভারতের কিশোরগঞ্জ মহকুমার ভৈরব থানার জগন্নাথপুর গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে আব্দুল বাসেত জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম আব্দুল মজিদ আর মাতার নাম সখিনা খাতুন। ৭ ভাই বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন পঞ্চম। শৈশবে মা-বাবা তাকে আদর করে ডাকতো গোলাপ। সত্যিই গোলাপের সৌরভ নিয়েই তিনি বেড়ে উঠেছিলেন। ছোটবেলা থেকে তিনি ছিলেন সদায় হাস্যউজ্জ্বল, অমায়িক এবং বন্ধুবৎসল। লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার প্রতিছিলো তার প্রবল আগ্রহ। ঐতিহ্যবাহী ভৈরব কে.বি হাইস্কুল থেকে তিনি ১৯৬০ সালে কৃতিত্বের সাথে মেট্রিকুলেশন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে বিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হন। কেবি স্কুলে পড়ার সময় বর্তমান মহামান্য রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ তার সহপাঠী ছিলেন। ১৯৬৩ সালে ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে তিনি উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। এরপর ১৯৬৫ সালে জগন্নাথ কলেজ থেকে বিএসসি পাশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাণিবিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হন। সেখানেও তিনি কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখতে সক্ষম হন। ১৯৬৭ সালে এমএসসি পাশ করার পর ১৯৬৮ সালে ১ জানুয়ারি তার নিজ উপজেলায় প্রতিষ্ঠিত হাজী আসমত কলেজে জীববিজ্ঞানের শিক্ষক হিসাবে যোগদান করেন। এখানে যোগদান করার কিছুদিন পর তিনি রাজশাহী সরকারি কলেজে নিয়োগ পত্র পান কিন্তু তিনি তার প্রিয় হাজী আসমত কলেজ ছেড়ে যাননি। শিক্ষকতার প্রতি ছিলো তার গভীর শ্রদ্ধা ও প্রবল অনুরাগ। তাই সবকিছু থেকে তিনি শিক্ষকতাই বেশি গুরুত্ব দিয়ে এই পেশাতেই থেকে যান। শিক্ষকতা ছিলো তার পেশা ও নেশা। তিনি যখন ক্লাসে ডুকতেন তখন জাগতিক সব কিছুকেই ভুলে যেতেন মুহুর্তেই। ক্লাসটিকে আকর্ষনীয়, বোধগম্য করার জন্য প্রতিটি ক্ষেত্রে তিনি সুন্দর সুন্দর চিত্র আঁকতেন, চার্ট, ডায়াগাম উপস্থাপন করতেন। বারবার ফিডব্যাক করতেন। শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচ্য বিষয় নিয়ে প্রশ্নোত্তর করতেন। এতে শিক্ষার্থীদের আর বাড়িতে যেয়ে খুব বেশী পড়তে হতো না। শুধু ছাত্ররা নয় অনেক আগ্রহী শিক্ষকরাও তার অসাধারণ ক্লাসগুলি জানালা দিয়ে গভীর আগ্রহ নিয়ে দেখতেন। বিজ্ঞানের ক্লাস যে এতটা প্রাণবন্তু ও আকর্ষনীয় হতে পারে তা স্বচক্ষে না দেখলে কেউ বিশ্বাস করতে পারবে না। তিনি ছিলেন একজন সত্যিকারের ছাত্রবান্ধব নিবেদিত প্রাণ সফল শিক্ষক। তিনি প্রশিক্ষণ অথবা ছুটিতে থাকলেও সামান্য সময় পেলেই কলেজে এসে সরাসরি ক্লাসে ডুকতেন। ক্লাস করতে পারাটা ছিল তার কাছে অনেকটা নেশার মতো।
বিবর্তন পড়ানো সময় মনে হতো তিনি যেন সকল শিক্ষার্থীদের সাথে নিয়ে গ্যালাপাগোস দ্বীপপুঞ্জে বিচরণ করছেন। সেখানে শিক্ষার্থীরা প্রাণীদের বিবর্তন এবং অভিযোন গুরুত্ব সহকারে স্বচক্ষে উপলদ্ধি করছে। আবার তিনি যখন টেক্সোনমি পড়াতেন তখন মনে হতো শিক্ষার্থীরা ১৩ লক্ষ প্রজাতির প্রাণীদেরইকে যেন দৈহিক বৈশিষ্ট্যের ভিন্নতা নিয়ে পর্যালোচনা করছে। এমন জীবন আবেগ সম্পন্ন প্রাণবন্তু শিক্ষক পাওয়া এ যুগে সত্যিই কঠিন। আমরা এই মহান শিক্ষকের কাছে ভালো শিক্ষক হওয়ার অনুপ্রেরণা পেয়েছি। শিক্ষার্থীদের তিনি হাতে কলমে শেখানোর জন্য প্রায়শই শিক্ষা সফরের আয়োজন করতেন। বিভিন্ন হ্যাচারি, জৈব বৈচিত্র সম্পন্ন প্রাকৃতিক ও সাংস্কৃতিক পরিবেশ, সামুদ্রিক ও মিঠা পানির মৎসচারণ ক্ষেত্র, মৎস্য আড়ৎ ছিলো শিক্ষা সফরের নির্বাচিত স্থান। এসব স্থান পরিদর্শনের পর শিক্ষার্থীদের পাঠের প্রতি আনন্দ ও আগ্রহ উভয়েই বেড়ে যেতো।
শিক্ষা সফরের নির্বাচিত স্থান। এসব স্থান পরিদর্শনের পর শিক্ষার্থীদের পাঠের প্রতি আনন্দ ও আগ্রহ উভয়েই বেড়ে যেতো।
ছাত্রদের প্রয়োজনের কথা চিন্তা করেই তিনি শিক্ষকতার শুরুতেই রচনা করেন Practical Biology নামক এক দূর্লভ গ্রন্থ। বইটির প্রত্যেকটি চিত্র এবং ডায়াগ্রাম তিনি নিজের হাতে এঁকে ছিলেন। বইটি প্রকাশিত হয়েছিলো ১৯৬৮ সালে। এটি ছিলো তখনকার সময়ে একমাত্র ব্যবহারিক গ্রন্থ। ফলে এই বইটির জন্য বিজ্ঞানের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের কাছে তিনি দ্রুত জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিলেন। এরপর পুঁথিঘর প্রকাশনার মালিক তাকে আরও পাঠ্য পুস্তক রচনার জন্য অনুরোধ করেছিলেন কিন্তু নানা ব্যস্ততার কারণে তিনি তা করতে পারেননি।
তিনি ঢাকা বোর্ড, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষক, প্রধান পরীক্ষক (Head Examinar), মোডারেটর (Moderator), প্রশ্ন তৈরীকারক (Question Setter) হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। শিক্ষাদানের উন্নত কলাকৌশল অর্জনের লক্ষ্যে তিনি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বহু প্রশিক্ষণ, সেমিনার, ওয়ার্কশপ ও সামার সাইন্স প্রোগ্রামে অংশ গ্রহণ করেছিলেন।
১৯৭৩, ১৯৭৯ এবং ১৯৮৬ সালে তিনি জাতীয় পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। তিনি ১৯৭৬ সালে বাংলাদেশ শিক্ষা সম্প্রসারণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট ঢাকা কর্তৃক আয়োজিত প্রশিক্ষণে অংশ গ্রহণ করেন। ১৯৮১ সালে তিনি আবারও গণশিক্ষা কার্যক্রমের বিভিন্ন কোর্সে অংশ গ্রহণ করেন। ২০০২ সালে বাংলাদেশ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে অধ্যক্ষ হিসেবে প্রশাসনিক কোর্স প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। ১৯৭৯ সালে তিনি ইথিও পিয়ায় শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ প্রাপ্ত হন।
১৯৮১ সালে ভারত সরকারের আমন্ত্রণে তিনি বিহারের পাটনা বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত সর্বভারতীয় শিক্ষক সম্মেলনে বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতির প্রতিনিধি হিসাবে অংশ গ্রহণ করেন। সেখানে তিনি ভারত ও বর্হিবিশ্বের বহু শিক্ষকের সাথে শিক্ষাদান পদ্ধতি, শিক্ষাকারিকুলাম এবং বিজ্ঞান শিক্ষার প্রসার ও প্রয়োজনীয়তা গুরুত্ব সহকারে তুলে ধরেন।
এই মহান শিক্ষক কলেজের ভিতরে এবং বাহিরের জুনিয়ার শিক্ষকদের খুব স্নেহ করতেন। তার এই স্নেহের কাছে বিশেষ করে আমি নিজেও চিরদিনের জন্য ঋণি। তিনি শুধু শিক্ষক ছিলেন না শিক্ষক নেতাও ছিলেন। শিক্ষকদের অভাব অভিযোগের কথা তিনি সর্বদায় গভীর মমতা দিয়ে উপলদ্ধি করতেন। তাই শিক্ষক আন্দোলনের সময় তিনি থাকতেন সর্বাগ্রে। তিনি দীর্ঘদিন জাতীয় শিক্ষক সমিতির যুগ্ম-সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি এই দায়িত্ব পালনের সময় শিক্ষকদের পেশাগত সকল দাবি সরকার বাহাদুরের কাছে পৌঁছানোর জন্য কোন প্রচেষ্টার ঘাটতি রাখতেন না। শিক্ষকদের দাবি আদায়ের আন্দোলনের তিনি মানববন্ধন, মিছিল, অনশনসহ সকল কর্মসূচীতে তার অবস্থান ছিলো বিপ্লবী ভূমিকায়।
তিনি ছিলেন পরোপকারী জনহিতকর, কল্যাণকামী, মহৎ মানুষ। যে কারো বিপদে তিনি সর্বাগ্রে এগিয়ে আসতেন। দেশের বহু উচ্চ পর্যায়ের মানুষের সাথে তার অবাধ যোগাযোগ ছিলো। ফলে যে কোন মানুষের অনেক কঠিন কাজও তিনি করে দিতে পারতেন খুব সহজেই। তিনি ছিলেন একজন ধর্মপ্রাণ, মানবতাবাদী মানুষ। তিনি কখনও নামাজ কাজা করতেন না।
তিনি ১৯৮১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় সিনেট রেজিস্ট্রার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি হিসাবে নির্বাচিত হন। তিনি ২০০৭ সালে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য মনোনিত হন। সদস্য থাকা অবস্থায় তিনি লক্ষ্য করলেন শিক্ষকদের সকল যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা থাকা সত্যেও সমগ্র জীবনের একাডেমিক ক্যারিয়ারের কোন পর্যায়ে একটি মাত্র তৃতীয় বিভাগের জন্য কোন শিক্ষক অধ্যক্ষ পদে দরখাস্ত করতে পারছেন না। এই কালাকানুনটিকে তিনি উচ্ছেদ করার চেষ্টা করেন এবং সফল হলে বহু শিক্ষকের অধ্যক্ষ পদে নিয়োগের পথ সুগম হয়।
১৫/১০/১৯৯৯ তারিখ হতে তিনি হাজী আসমত কলেজে সহকারী অধ্যাপক থাকা অবস্থায় ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ১৩/০৫/২০০০ সালে তিনি উপাধ্যক্ষ পদে নিয়োগ প্রাপ্ত হন। এরপর ২০০৮ সাল পর্যন্ত দীর্ঘদিন অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করে অবসর গ্রহণ করেন। ২০০৩ সালে তিনি কিশোরগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান প্রধান হিসাবে স্বীকৃতি লাভ করেন। তার সময়েই কলেজে অনেক অবকাঠামোর সৃষ্টি হয়। ফলে ক্লাসরুমের অভাবজনিত সমস্যার অবসান ঘটে।
তিনি শিক্ষার গুণগত মান উন্নয়নের লক্ষ্যে প্রতি ২০ জন শিক্ষার্থীর জন্য একজন করে গাইড টিচার নিয়োগ দান করেন। গাইড টিচারগণ শিক্ষার্থীদের সার্বক্ষণিক পড়াশুনার সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে আন্তরিকতার সাথে সহযোগিতা করতেন। তিনি কলেজে সাপ্তাহিক ও মাসিক টিউটোরিয়াল পরীক্ষা চালু করেন। এর ফলে শিক্ষার্থীরা শিক্ষকদের সার্বক্ষণিক মূল্যায়ন ও নজরদারির মধ্যে চলে আসে। ফলে বোর্ড ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলাফল উত্তর উত্তর ভালো হতে শুরু করে। মাধ্যমিক পরীক্ষা পাশ করার পর প্রতিবছর বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল কলেজ এবং ইঞ্জিনিয়ারিং বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যাপক হারে শিক্ষার্থীরা ভর্তির সুযোগ পায়।
তার আমলেই হাজী আসমত কলেজে অনার্স কোর্স চালু হয়। তৎকালীন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ডক্টর ওয়াকিল আহাম্মদ ছিলেন উনার স্ত্রী অধ্যাপিকা সাজেদা বেগমের শিক্ষক। ফলে উনার সহযোগিতায় এবং রাজনৈতিক নেতাদের প্রচেষ্টায় তিনি এই অসাধ্য কাজটি করতে সক্ষম হয়ে ছিলেন। কারণ সে সময়ে উপজেলা পর্যায়ের কোন কলেজে অনার্স কোর্স চালুর বিধান ছিলোনা।
তিনি ছিলেন সদায় প্রাণবন্তু, সংস্কৃতিমনা এবং সুকণ্ঠের অধিকারী। কলেজের যে কোন অনুষ্ঠানে স্ত্রীর সাথে তিনি যুগল কণ্ঠে গান গেয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আনন্দ দিতেন। এখানে উল্লেখ্য তার স্ত্রী অধ্যাপিকা সাজেদা বেগম ছিলেন এ কলেজেরই আরেকজন গুণী শিক্ষক। তিনি ছিলেন বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান। এই মহিয়সী নারীর ছিলেন সংস্কৃতি মনা মানুষ। তাই এই দম্পতির অক্লান্ত প্রচেষ্টায় ভৈরবে ১৯৮২ সালে প্রতিষ্ঠা করেন ভৈরব শিল্পকলা পরিষদ। এই প্রতিষ্ঠানের জন্মলগ্ন থেকেই তিনি সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এই প্রতিষ্ঠান থেকে বহু নৃত্য শিল্পি ও সংগীত শিল্পির জন্ম হয়েছে। যারা পরবর্তীতে জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ পুরস্কার অর্জন করতে সক্ষম হয়। এই একাডেমী প্রতিবছর ১লা বৈশাখসহ অন্যান্য জাতীয় দিবসের বিভিন্ন অনুষ্ঠান গুরুত্ব সরকারে পালন করতে থাকে।
সংগীত একাডেমী ছাড়াও আরো বহু প্রতিষ্ঠান তিনি প্রতিষ্ঠা করেছেন। এর মধ্যে হাজী ইউসুফ আলী উচ্চ বিদ্যালয়, হাজী রাজামিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বআলী কলন্দর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সানফ্লাওয়ার কিন্ডারগার্টেন, সেবা সংঘ এবং ছায়েব আলী এতিমখানা মাদ্রাসা উল্লেখ যোগ্য। তিনি ছিলেন নিবেদিত প্রাণ ক্রীড়াবিদ এবং একজন আদর্শ সংগঠক। ভৈরব উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক হিসাবে তিনি ২০ বছর দায়িত্ব পালন করেন। তিনি হাজী আসমত কলেজে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আহবায়ক হিসাবে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেন। পড়াশুনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার প্রতিও তিনি উৎসাহ দিতেন। তিনি বিশ্বাস করতেন যে সহশিক্ষা কার্যক্রম ব্যাতিত কোন শিক্ষার্থীই সত্যিকারের আলোকিত মানুষ হিসাবে গড়ে উঠতে পারে না। তার সময়ে কলেজে ব্যাপকভাবে খেলাধুলা ও সংস্কৃতি প্রতিযোগিতা চালু হয়েছিল। আন্তঃকলেজের মেধাভিত্তিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় এ কলেজ তখন শ্রেষ্ঠত্বের স্বাক্ষর রাখতে সক্ষম হয়।
১৯৭৩ সালে তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ভৈরব পৌরসভার কমিশনার নির্বাচিত হন। ১৯৮৩ সালে সরকার কর্তৃক ভৈরব পৌরসভার ভাইস-চেয়ারম্যান মনোনিত হন। তিনি সরকার মনোনিত জেলা পরিষদের সদস্য ছিলেন।
এই নিবেদিত প্রাণ শিক্ষকের বহু ছাত্র/ছাত্রীরা আজ জাতীয় পর্যায়ে দেশে-বিদেশে বহু গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত। তাদের মধ্যে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, বিচারপতি, জজ, পুলিশ কর্মকর্তা এবং প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করছেন। তার সময়কার শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে শুধুমাত্র ৩৩তম বিসিএস পরীক্ষায় ২১ জন শিক্ষার্থী বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ক্যাডারে চাকুরীর সুযোগ পেয়েছিল। আমি এই দম্পতির স্নেহে চিরদিনই সিক্ত ছিলাম। আমার পরম সৌভাগ্য আমি অন্তত তাদের মতো ভালো মানুষের সংস্পর্শে আসতে পেরে ছিলাম।
আমি কায়মনো বাক্যে মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে উনার স্স্থ্যুতা ও দীর্ঘায়ু কামনা করি।

সূত্র: মোস্তাফিজ আমিন সম্পাদিত গুণিজন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!