• বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:৩৪ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
ভিক্ষা জীবন ছেড়ে কাজ ও বাসস্থান চান কুলিয়ারচরের হিজড়ারা ভৈরবের নির্ভীক নারী শারমিন আক্তার জুঁই স্বেচ্ছাশ্রমের অদম্য কোভিডযোদ্ধা সবাইকে সঙ্গে নিয়ে আরও শক্তিশালীভাবে এগিয়ে যাবে যায়যায়দিন …… এমডি কিশোরগঞ্জে ১২ থেকে ১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম শুরু হলো হোসেনপুরে ইউপি নির্বাচনে সরে দাঁড়ালেন ১০ জন প্রার্থী রূপগঞ্জের হাসেম ফুডস লি. অগ্নিকাণ্ডে মারা যাওয়া ১৯ জনের পরিবারকে অনুদান কিশোরগঞ্জে ৪৫০ পিস ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে উদ্যোক্তাদের নিয়ে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যোৎপাদন প্রশিক্ষণ র‍্যাবের হাতে ভারতীয় মালামালসহ এক চোরাচালানকারী আটক কিশোরগঞ্জে যানজট নিরসন সংক্রান্ত সভা ৬শ’ অটোর ৯টি রুট

সাংবাদিক মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ

সাংবাদিক মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ

মুহ. শহীদুল্লাহ একজন প্রচারবিমুখ সাংবাদিক, লেখক, গবেষক। যেমনিভাবে অবদান রেখেছেন সাংবাদিকতায় অতি নিষ্ঠা ও নির্ভীকভাবে। সংবাদ পরিবেশন করেছেন ভৈরবের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে। তেমনিভাবে নির্দেশনা ও পরামর্শ দিয়েছেন অতি নিখুতভাবে সমস্যাগুলোর সমাধানে। তিনি পত্রিকা এবং বই ও সম্পাদনা করেছেন। উৎসাহিত করেছেন সাংবাদিকদের। তিনি বাংলা সাহিত্যের একজন ভাল লেখক ও কবি, সাহিত্যিক। সাহিত্যের সকল বিভাগেই তার কমবেশি দখল রয়েছে এবং বিচরণও রয়েছে। যেমনি রয়েছে উপন্যাসে তেমনি রয়েছে গল্পগানে, কবিতায়, প্রবন্ধে, নাটকে ও ইতিহাসে। তিনি একজন গবেষক হওয়াতে প্রতিটা লেখাতে গবেষণার চিত্র ও ছোঁয়া পাওয়া যায়। দু’বাংলাতেই তার বইয়ের অসংখ্য পাঠক রয়েছে।
এ কৃতি সাংবাদিক সাহিত্যিক ১৯৫৩ খ্রিস্টাব্দের ২৭ ফেব্রুয়ারি সাবেক ময়মনসিংহ জেলার কিশোরগঞ্জ মহকুমার ভৈরব থানার জামালপুর গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। তার পিতা আবদুল মজিদ মিয়া ছিলেন ফারসি শিক্ষায় শিক্ষিত এবং একজন সাহিত্যানুরাগী মানুষ। মাতা রহিমা খাতুন ও ছিলেন স্বল্প শিক্ষিতা। মুহ. শহীদুল্লাহ বাবার পঞ্চম সন্তান। তারা চার ভাই ও তিন বোন।
মায়ের কাছে তার হাতে খড়ি। জামালপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তার প্রাথমিক শিক্ষা। কালিকাপ্রসাদ জুনিয়র হাই স্কুলে নিম্ন মাধ্যমিক ও ভৈরব কাদির বক্স হাই স্কুল থেকে ১৯৬৯ সালে মাধ্যমিক এবং ১৯৭২ সালে ঢাকা আবুজর গিফারী কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকারি জগন্নাথ কলেজ যা বর্তমানে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় হতে হিসাব বিজ্ঞানে অনার্স ও পরে বাংলা ভাষা সাহিত্যে স্নাতকোত্তর পাশ করেন এবং তারপর বাংলা সাহিত্যের উপরে গবেষণা করেছেন। বর্তমানেও বিভিন্ন বিষয়ে গবেষণা কর্মে রত আছেন।
কর্মজীবনে মুহ. শহীদুল্লাহ ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটে কয়েকটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কিছুদিন চাকরি করেছেন। এরই মধ্যে তিনি ভৈরব শহরের ব্যবসায়ী আবদুর রাজ্জাক ভূইয়া সাহেবের প্রথমা কন্যা হাইস্কুল শিক্ষিকা বিলকিস বেগমের সাথে পরিণয় সূত্রে আবদ্ধ হন। এদের একজন শিক্ষিতা কন্যা সন্তান আছে।
তিনি ১৯৬৪ সন থেকে প্রথমে অমর কথাশিল্পী শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের বিখ্যাত উপন্যাস ‘দেবদাস’ পাঠের মাধ্যমে সাহিত্যাঙ্গনে প্রবেশ করেন। এরপর ১৯৬৯ সালের দিকে কবিতা, ছড়া, রচনার মাধ্যমে লেখালেখির জগতে প্রবেশ করেন এবং তার গ্রামের বাড়িতে একটি পাঠাগার প্রতিষ্ঠা করেন। ঐ সময় দেয়াল পত্রিকা প্রকাশ করেছেন।
ঢাকায় পড়ালেখার সুযোগে ঢাকার বিভিন্ন পাঠাগারে পড়ার সুযোগ এবং বিভিন্ন শিল্প সাহিত্য সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে তার যোগাযোগ ও অনেক ব্যক্তিত্বের সাথে তার পরিচয় ঘটে। কবিদের মধ্যে কবি জসিম উদ্দিন, কবি আহসান হাবিব, কবি আল মাহমুদ, দার্শনিক অধ্যক্ষ দেওয়ান মোহাম্মদ আজরফ, অধ্যক্ষ মিন্নত আলী, কবি ফারুখ আহমদ, কবি সামসুর রাহমান, কবি আবদুল মান্নান সৈয়দ, কবি তালিম হোসেন, কবি মাফরুহা চৌধুরী, লেখক ড. আশরাফ সিদ্দিকী, কবি সাহেদ আলী, ড. নীলিমা ইব্রাহিম, লেখক সাংবাদিক রনেশ দাসগুপ্ত, কবি নির্মলেন্দু গুণ, কবি আসাদ চৌধুরী, কবি সৈয়দ সামসুল হক, আনোয়ারা সৈয়দ হক, কবি কাজী রোজী, ড. এস.এম ইলিয়াস, এম আর মনজু, আসলাম সানীসহ আরও অনেক খ্যাতনামা কবি সাহিত্যিক এবং জ্ঞানী গুণী মানুষের সাথে। তাছাড়া বিদ্রোহী জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামকে অনেকবার দেখেছেন এবং শহীদুল্লাহ তার স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করে শুনিয়েছেন। নাটক সিনেমার অনেক লোকের সাথে তার পরিচয় ঘটেছিল। এদের মধ্যে পরিচালক আলমগীর কবির, ইবনে মিজান, কালী পদ দাস, আনোয়ার হোসেন, আলতাফ হোসেন, সৈয়দ হাসান ইমাম, রামেন্দু মজুমদার, আনিস, খান জয়নুল, আহমেদ জামাল চৌধুরী, বুলবুল আহমদ, কবরী, সুচরিতা, জয়শ্রী কবির, আশীশ কুমার লোহ, টেলিসামাদসহ আরও অনেকের সাথে।
ছাত্র জীবনে তিনি ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকার সদস্য ছিলেন। তার নেতা ছিলেন মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম। ঐ সময় অর্থাৎ ১৯৭১ সালে ২ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সাথে যুক্ত হয়ে স্বাধীনতার প্রথম পতাকা উত্তোলন, ঢাকার রাজপথে ছাত্র আন্দোলন ও ৭ মার্চে রমনা রেসকোর্স মাঠে বঙ্গবন্ধুর জনসভায় যোগদান ও ঐতিহাসিক ভাষণ শুনে আরও ক’দিন আন্দোলন শেষে বাড়িতে এসে ভৈরবে ১৪ এপ্রিল পাকবাহিনী মধ্যেরচরের ফসলী মাঠে সামরিক হেলিকপ্টার যোগে অবতরণের সময় তিনি স্থানীয় যুবকদের নিয়ে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্রের মাধ্যমে প্রতিরোধ করতে গিয়ে পিছু হটেছেন। তারপর যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে প্রতিরোধ কমিটির সদস্য হিসেবে স্থানীয় ছনছাড়া মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্পের পরিচালনায়ও বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেছেন।
মুক্তিযুদ্ধ শেষে দেশ স্বাধীন হলে আবার ঢাকায় লেখাপড়ায় যোগদান করেন এবং সাহিত্য রচনায় মনোনিবেশ করেন। তিনি রচনা করেন তার প্রথম উপন্যাস ভোরের শশী, নাটক আদালতের কাঠগড়া। নাটকটি ১৯৭৩ সালে তার গ্রাম ও তারাবোতে মঞ্চস্থ হয়েছে।
এর মধ্যে স্বাধীন দেশে অনেক নতুন নতুন পত্রিকা ও প্রকাশিত হয়েছে। তিনি দৈনিক সংবাদ, দৈনিক ইত্তেফাক ও সাপ্তাহিক জাগ্রত জনতায় যাতায়াত করেছেন এবং জাগ্রত জনতায় প্রুপ দেখতেন ও ছোট খাট লেখা ও লিখতেন। ১৯৭৪ সালে ঢাকার একটি একুশে সংকলনে তার মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক কবিতা ‘স্ফুলিঙ্গ’ প্রকাশ হলে লেখক হিসেবে তার কিছুটা পরিচিতি ঘটে। ঐ সময় তার পরিচয় ঘটে কবি কামাল বিন মাহতাব, কবি এম এ মজিদ ও কবি শওকত ওসমানের সাথে। এভাবে পথ চলতে চলতে ১৯৭৮ সালে খুলনার ‘দৈনিক প্রবাহের’ স্থানীয় প্রতিনিধির দায়িত্ব প্রাপ্ত হন। পরে ন্যাপ মোজাফফরের মুখপত্র ‘নতুন বাংলা’ পত্রিকায় নিয়োগ লাভ করে তিনি ভৈরবে অবস্থান করেন। তখন তিনি ছিলেন ন্যাপ ভৈরব শাখার সাধারণ সম্পাদক ও কিশোরগঞ্জ জেলা ন্যাপের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক। তিনি রাজনীতি করার সময় প্রতিটি ইউনিয়নে কমিটি ছিল। তখন কেন্দ্রীয় নেতা ছিলেন অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ, পংকজ ভট্টাচার্য, মতিয়া চৌধুরী, পীর হাবিবুর রহমান ও ডা. এম এ ওয়াদুদ সাহেব। যখন সেভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে যায় তখন থেকে তিনি রাজনীতির নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়ান। তবে তিনি এখন ও মনে প্রাণে গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, জাতীয়তাবাদ ও ধর্মনিরপেক্ষতা লালন ও ধারণ করে আছেন।
তারপর বাংলাদেশে স্বৈরাচার এরশাদ সরকারের পতন আন্দোলনের পর ১৯৯১ সালে ঢাকা থেকে প্রকাশিত কাজী শাহেদের অগ্রসর পাঠকের ‘দৈনিক আজকের কাগজ’ এর ভৈরব প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগ প্রাপ্ত হন। এ পত্রিকাতে তিনি দীর্ঘদিন সাংবাদিকতা করেন। এতেও তিনি নির্ভীকভাবে অনেক বড় বড় লোমহর্ষক সংবাদ ও প্রতিবেদন প্রকাশ করতে থাকেন। এরই মধ্যে ১৯৯৪ সালে একটি সন্ত্রাস বিরোধী সংবাদ প্রকাশ করায় সন্ত্রাসীদের গডফাদার সাংবাদিক শহীদুল্লাহকে দমিয়ে দেয়ার জন্য তার বিরুদ্ধে হত্যা, গুম, ধর্ষণসহ ৮টি মিথ্যা ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের করলে ১৯৯৫ সালে ২১ নভেম্বর বাসা থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে গ্রেফতার করে কিশোরগঞ্জ জেলা কারাগারে অন্তরীণ করে রাখে। তখন তার মুক্তির দাবীতে ভৈরব প্রেসক্লাব, সাংবাদিক সমিতি, মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা, ন্যাপ, কমিউনিস্ট পার্টি ও আওয়ামী লীগ এবং সুধীজন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ দেশের জেলা উপজেলার সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবী, মুক্তিযোদ্ধা, রাজনীতিবিদ ও তার মুক্তির দাবীতে মিটিং মিছিল করে বিক্ষোভ ও সোচ্চার হয়ে উঠলে দীর্ঘ আন্দোলনের ফলে ৭৮ দিন কারাভোগের পর ১৯৯৬ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি তারিখে জামিনে মুক্তি লাভ করেন এবং তাকে এর পরদিন ভৈরব প্রেসক্লাব কর্তৃক চকবাজারে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়।
২০০৩ সালে ভৈরব থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক যুগদর্পণ পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এবং ঢাকা থেকে প্রকাশিত মাসিক কথাচিত্র সহ বিভিন্ন সাহিত্য সংকলন সম্পাদনা করেছেন। তারপর থেকেই তার সাহিত্য রচনা খুব জোর পায়।
তিনি জেলে যাবার আগে তার উপন্যাস ‘কলকাতায় নমিতা’ ১৯৯৪ সালে প্রকাশ হয় এবং তিনি বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। তিনি সাংবাদিকতা পেশায় এসে পরিচিত হন সাংবাদিক প্রাবন্ধিক কামাল লোহানী, ইকবাল সোবহান চৌধুরী নাঈমুল ইসলাম খান, গিয়াস কামাল চৌধুরী, শফিক রেহমান, কল্যাণ সাহা, দীপংকর গৌতম, সৈয়দ বোরহান কবির, সমর সরকার, মতিউর রহমান চৌধুরী, আবু বকর চৌধুরী, মোশতাক হোসেন, মারুফ চিনু, মাহবুবুর রহমান, কাজী শাহেদ আহমেদ, মতিউর রহমান, লুৎফর রহমান রিটন প্রমুখের সাথে কারাগারে থাকা অবস্থায় তিনি নরসিংদী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর পরিচালক ও সচিব পদে নির্বাচিত হয়েছেন।
‘কলকাতায় নমিতা’ উপন্যাসটি লিখতে গিয়ে ১৯৮৫ সালের ৭ জুন কলকাতায় যান এবং কফি হাউজের আড্ডায় যোগ দেন। সেখানে অনেক কবি সাহিত্যিকের সাথে তার পরিচয় হয়েছে, বন্ধুত্ব হয়েছে এদের মধ্যে সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়, ড. রাম কুমার মুখোপাধ্যায়, ড. রমেন্দ্র নারায়ন নাগ, আফিফ ফুয়াদ, শুক্কুর মাহমুদ, উৎপল ঝা, অজিত বাইরী, গৌতম রায় ও প্রকাশক গৌরদাস সাহা, কবি চিত্রা লাহিড়ি, প্রশান্ত লাহিড়ি, দীপক রায়, অরুণাভ গুপ্ত, বিদ্যুৎ চ্যাটার্জীসহ আরও অনেকের সাথে।
তিনি নিজ দেশের বিভিন্ন দর্শনীয় ঐতিহাসিক স্থানগুলোতে ভ্রমণ করেছেন। এছাড়াও ভারতের বিভিন্ন রাজ্য, নেপাল ও সৌদি আরবেও ভ্রমণ করেছেন। তার নিজ দেশের ন্যাশনাল আর্কাইভ, ন্যাশনাল লাইব্রেরী। পাবলিক লাইব্রেরী, বাংলা একাডেমি, কিছু জেলা ও বিভাগীয় লাইব্রেরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার ও কয়েকটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরীতে তার রচিত বই জমা দেয়া আছে।
ভারতের কলকাতায় বাংলা অ্যাকাদেমি, সাহিত্য অ্যাকাদেমি, রবীন্দ্র ভারতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, শান্তি নিকেতনের বিশ্ব ভারতী বিশ্ববিদ্যালয় এবং ত্রিপুরার রাষ্ট্রীয় গ্রন্থাগার বীরচন্দ্র স্টেট লাইব্রেরী ও তাপসগুহ লাইব্রেরীসহ আরও অনেক ব্যক্তিগত লাইব্রেরীতে তার রচিত অনেক বই রয়েছে।
তার লেখা গল্প, প্রবন্ধ ভারতের কলকাতা, আসাম ও ত্রিপুরার দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে এবং তার বই দেশ ও দেশের বাইরে কলকাতা ও আগরতলার লাইব্রেরীতে বিক্রি হচ্ছে এবং এগুলো পাঠক প্রিয়তা অর্জন করেছে।
আসামে রয়েছেন তার বিশিষ্ট বন্ধু ড. মুজিব স্বদেশি। আগর তলায় রয়েছেন তার বন্ধু ড. দেবব্রত দেব রায়। ড. আশীশ বৈদ্য, ড. মুকুল কুমার ঘোষ, ড. উমাশংকর চক্রবর্তী, ড. শ্যামাপদ চক্রবর্তী, অনুকুল সিনহা, বিভু ভট্টাচার্য, রতন আচার্য, স্বপন কুমার মজুমদার, সুমিতা ধর বসু ঠাকুর, দীপক দেব, স্নিমাদাস, মল্লিকা দাস, সোমা গুহ, তাপসগুহ কবি প্রতুষ দেব ও বিমলেন্দুসহ আরও অনেকে।
লেখা লেখির সুবাদে তিনি দেশ ও দেশের বাইরে বিভিন্ন সাহিত্য সংগঠন, সংস্থা কর্তৃক সংবর্ধিতও হয়েছেন। তিনি ঢাকাতে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক লেখক সমাবেশে একাধিকবার অংশ গ্রহণ করেন।
২০০৮ সালে মুন্সীগঞ্জে এস এ ডি সি এস কর্তৃক শীর্ষদশ সম্মাননা, গৃহকোণ সম্মাননা ২০০৮, সম্প্রীতি সাহিত্য পুরষ্কার-২০০৯, গাঙ সমিতি সম্মাননা-২০১১, থিয়েটার সংলাপ সম্মাননা ২০১১, কটিয়াদি রেনু স্টার অ্যাওয়ার্ড-২০১৪, আশুগঞ্জ প্রেসক্লাব অ্যাওয়ার্ড-২০১৫, পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন সম্মাননা-২০১৯, বিশ্ব মুক্তগণমাধ্যম দিবস ভৈরব সম্মাননা-২০১৯, ভৈরব প্রেসক্লাব সম্মাননা-২০২০ খ্রি. এবং ২০১৩ সালে ভারতের আগরতলা দৈনিক আরোহণ ও প্রান্তর পাবলিকেশন কর্তৃক সংবর্ধনা, ভারতের আসামের ড. মুজিব স্বদেশি কলেজ কর্তৃক সংবর্ধনা ২০১৮ খ্রি. পেয়েছেন ও সম্মানে ভূষিত হয়েছেন।
মুহ. শহীদুল্লাহ ভৈরবসহ কিশোরগঞ্জ, নরসিংদী ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার গ্রামে গঞ্জে বাস করা খ্যাত অখ্যাত নবীণ প্রবীণ এবং ঝরে পড়া লেখকদের সাহিত্য সংস্কৃতি চর্চার উদ্দেশ্যে ২০০৬ সালে ভৈরবকে কেন্দ্র করে ‘সম্প্রীতি সাহিত্য পরিষদ’ নামে একটি সাহিত্য সংগঠন গড়ে তুলেছেন এবং ২০১৪ সালে তিনি ভৈরবের ছনছাড়া পল্লীতে নিজস্ব অর্থায়নে সাহিত্য সংস্কৃতি চর্চার লক্ষে ‘শহীদুল্লাহ অ্যাকাডেমি’ স্থাপন করেছেন। যার মধ্যে বর্তমানে একটি পাঠাগার ও একটি সংগ্রহশালা চালু আছে। এতে স্থানীয় স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা বই পড়ার সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে। অ্যাকাডেমি প্রাঙ্গণে প্রতিবছরই একাধিকবার কবি সাহিত্যিক ও সংস্কৃতিবানদের বড় ধরনের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
তিনি বিভিন্ন ধরনের সংগীত রচনা করেছেন। তাই ২০১০ সালে বাংলাদেশ টেলিভিশনে গীতিকার হিসাবে নিবন্ধিত হয়েছেন। তার রচিত সংগীত শিল্পী বিপ্লব বর্মন বলাই, স্মৃতি ভৌমিক, প্রদীপ তালুকদার, সীমা জামান ও চন্দন দেবনাথ সিনেমায় ও ইউটিউব চ্যানেলে রেকর্ড করে গেয়েছেন।
তার রচিত উপন্যাস ‘নষ্টদীপের আলো’ ২০১১ সালে পরিচালক রজতকান্তি দেবনাথের পরিচালনায় টেলিছবি নির্মিত হয়েছে। এটি বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে প্রদশিত হয়েছে এবং আরও একটি উপন্যাসের চলচ্চিত্রায়নের কাজ চলছে।
মুহ. শহীদুল্লাহর প্রকাশিত গ্রন্থসমুহের মধ্যে কয়েকটি বইয়ে আলোচনা জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিকে প্রকাশিত হয়েছে। তার প্রকাশিত গ্রন্থসমূহ হচ্ছে- কলকাতায় নমিতা-১৯৯৪, নষ্ট দীপের আলো-২০০৩, রূপাঞ্জনার খোঁজে-২০০৫, অপরাজিতা রূপাঞ্জনা-২০০৭, রূপাঞ্জনার স্বপ্ন-২০১৫, জোছনায় নীল তরঙ্গ-২০০৬, মেঘে মেঘে সন্ধ্যা-২০০৮, সভ্যতায় আরতির প্রত্যাবর্তন-২০১০, নীলার কালবেলা-২০১১, কাঁটাতারের যন্ত্রণা-২০১২, নিশিবালা-২০১৪, বীরাঙ্গণার উত্তরাধিকার-২০১৫, উপন্যাসসমুহ।
শিমুল ডাঙ্গার সেতু-২০০২, শেষ প্রহরের সংলাপ-২০০৭, সিদ্ধান্তের সীমানায়-২০১৮, ছলনাময়ী-২০১৮, হারিয়ে পাওয়া-২০১৩, পেয়ে হারানোর শঙ্কা ২০২০ গল্পগ্রন্থসমূহ। পতিত বন্দর-২০১৫, কাব্যগ্রন্থ। দূরদেশের নগরে প্রান্তরে-২০১১, ভ্রমণকাহিনী। ভৈরব জনপদের ইতিকথা-২০১৫, ইতিহাস গ্রন্থ। চন্দ্রালোকে অবগাহন-২০১০, তারকালোকে বিচরণ-২০১০, সম্পাদিত কাব্যগ্রন্থ। সম্প্রীতি-২০১১, সম্পাদিত সাহিত্য সংকলন। তাছাড়া আরও ১টি ট্রিলজিসহ ১৭টি পান্ডুলিপি প্রকাশনার কাজ চলমান আছে।
সাংবাদিক সাহিত্যিক মুহ. শহীদুল্লাহ জানিয়েছেন যে, তিনি মহান স্রষ্টার কৃপায় যতদিন সুস্থ সবলভাবে বেঁচে থাকবেন, ততদিন শিল্প সাহিত্য চর্চায় নিজেকে নিয়োজিত রাখবেন এবং তার সৃষ্ট স্লোগান ‘আলোকিত হও, আলো ছড়াও, সমাজ থেকে আধার তাড়াও। বাস্তবায়নই তার প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।
সূত্র: মোস্তাফিজ আমিন সম্পাদিত গুণিজন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!