• বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৯:২১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
ভিক্ষা জীবন ছেড়ে কাজ ও বাসস্থান চান কুলিয়ারচরের হিজড়ারা ভৈরবের নির্ভীক নারী শারমিন আক্তার জুঁই স্বেচ্ছাশ্রমের অদম্য কোভিডযোদ্ধা সবাইকে সঙ্গে নিয়ে আরও শক্তিশালীভাবে এগিয়ে যাবে যায়যায়দিন …… এমডি কিশোরগঞ্জে ১২ থেকে ১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম শুরু হলো হোসেনপুরে ইউপি নির্বাচনে সরে দাঁড়ালেন ১০ জন প্রার্থী রূপগঞ্জের হাসেম ফুডস লি. অগ্নিকাণ্ডে মারা যাওয়া ১৯ জনের পরিবারকে অনুদান কিশোরগঞ্জে ৪৫০ পিস ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে উদ্যোক্তাদের নিয়ে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যোৎপাদন প্রশিক্ষণ র‍্যাবের হাতে ভারতীয় মালামালসহ এক চোরাচালানকারী আটক কিশোরগঞ্জে যানজট নিরসন সংক্রান্ত সভা ৬শ’ অটোর ৯টি রুট

কুলিয়ারচরে মেলায় নিয়ে যাবার নামে ধর্ষণ-হত্যা আসামীর স্বীকারোক্তি

গ্রেফতারকৃত আসামী হাছান। (ইনসেটে) ভিকটিম সাদিয়া আক্তার রাস্না। -পূর্বকণ্ঠ

কুলিয়ারচরে মেলায় নিয়ে
যাবার নামে ধর্ষণ-হত্যা
আসামীর স্বীকারোক্তি

# মোস্তফা কামাল :-

কুলিয়ারচরে এক কিশোরিকে তারই দুলাভাই মেলায় নিয়ে যাবার টোপ দিয়ে অপহরণ করে ধর্ষণশেষে হত্যা করার মত লোমহর্ষক ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় পিবিআই ধর্ষক মো. হাছানকে (৪৮) গতকাল ১৮ নভেম্বর বৃহস্পতিাবার বিকালে সন্দিগ্ধ আসামী হিসেবে গ্রেফতার করেছে। পরে সন্ধ্যায় কিশোরগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. রফিকুল বারীর আদালতে ১৬৪ ধারায় নিজের অপরাধের বিস্তারিত বিবরণ দিয়ে হাছান স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে পিবিআই সূত্র জানিয়েছে।
স্বীকারোক্তি সূত্রে পিবিআই জানিয়েছে, কুলিয়ারচরের চরকামালপুর গ্রামের মো. লাল চানের (৬৫) মেয়ে ভিকটিম সাদিয়া আক্তার রাস্না (১৪) গত ১৭ মার্চ বিকালে পার্শ্ববর্তী চাচাত বোনের স্বামী হাছানের বাড়িতে লাউ শাক আনতে যায়। শাক তোলার পর হাছানকে রাস্না তার বাড়িতে এগিয়ে দিতে বলে। বাড়িতে এগিয়ে দেয়ার সময় রাস্নাকে হাছান মেলায় যাবার টোপ দিলে রাস্না রাজি হয়। তখন রস্নাকে রাত ১২টার সময় তৈরি হয়ে থাকতে বলেন। এরপর হাছান এলাকার মাসকান্দা বাজার থেকে কনডম ও যৌন উদ্দীপক ওষুধ কিনে রাত ১২টায় রাস্নাদের বাড়িতে গিয়ে টিনের ঘরে আঙ্গুলের টোকা দিলে রাস্না বেরিয়ে আসে। পরে মেলায় যাবার নাম করে এলাকার রসু মিয়ার কলা বাগানে নিয়ে রাস্নাকে ওড়না দিয়ে দু’হাত বেঁধে জোরপূর্বক ধর্ষণ ও বলাৎকার করেন। রাস্না চিৎকার করতে চাইলে হাছান তার মুখ চেপে ধরেন। পরে অচেতন অবস্থায় পাশেই শাহীনের পুকুরের পানির ধারে রাস্নাকে ফেলে রেখে হাছান গোসল করে রাত ২টা থেকে আড়াইটার মধ্যে বাড়ি চলে যান। পরদিন সকাল ৮টায় রাস্নার মৃতদেহ পাওয়া গেলে তার বাবা লাল চান কুলিয়ারচর থানায় যাবার পর একটি অপমৃত্যু মামলা (নং ৩) রেকর্ড করা হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই এমদাদুল হোসাইন সুরতহাল করে লাশটি জেলা শহরের জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠালে গত ২৬ জুন ধর্ষণ ও শ্বাসরোধে হত্যার প্রতিবেদন পাওয়া যায়। এদিনই নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের সংশোধনী/০৩ এর ৭/৯(২) ধারায় মামলা (নং ২৩) রেকর্ড করা হয় এবং পরিদর্শক মিজানুর রহমানকে তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়।
পরে পুলিশ হেডকোয়ার্টারের নির্দেশে পিবিআই গত ১ নভেম্বর মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করলে পরিদর্শক মোহাম্মদ শাখরুল হক খানকে তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়। তিনি গতকাল বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে আবু তাহেরের ছেলে আসামী মো. হাছানকে মাসকান্দা বাজার এলাকা থেকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হন। এদিনই সন্ধ্যায় আদালতে পুরো ঘটনার বিবরণ দিয়ে হাছান স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে পরিদর্শক শাখরুল হক খান জানিয়েছেন ।
শাখরুল হক খান আরও জানান, আসামী হাছানের বিরুদ্ধে এর আগেও বলাৎকার মামলায় ১০ বছরের সাজা হয়েছিল। দুই বছর সাজা খাটার পর আপীলে জামিনে আসেন। তবে সাজা এখনও বহাল আছে। হাছান একসময় অটোরিক্সা চালাতেন। পরে ভ্যানগাড়ি কিনে বিভিন্ন মুরগির খামারে মুরগির খাবার পরিবহন করতেন। নিজেরও একটি মুরগির খামার রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!