• বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:৪০ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
ভিক্ষা জীবন ছেড়ে কাজ ও বাসস্থান চান কুলিয়ারচরের হিজড়ারা ভৈরবের নির্ভীক নারী শারমিন আক্তার জুঁই স্বেচ্ছাশ্রমের অদম্য কোভিডযোদ্ধা সবাইকে সঙ্গে নিয়ে আরও শক্তিশালীভাবে এগিয়ে যাবে যায়যায়দিন …… এমডি কিশোরগঞ্জে ১২ থেকে ১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম শুরু হলো হোসেনপুরে ইউপি নির্বাচনে সরে দাঁড়ালেন ১০ জন প্রার্থী রূপগঞ্জের হাসেম ফুডস লি. অগ্নিকাণ্ডে মারা যাওয়া ১৯ জনের পরিবারকে অনুদান কিশোরগঞ্জে ৪৫০ পিস ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে উদ্যোক্তাদের নিয়ে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যোৎপাদন প্রশিক্ষণ র‍্যাবের হাতে ভারতীয় মালামালসহ এক চোরাচালানকারী আটক কিশোরগঞ্জে যানজট নিরসন সংক্রান্ত সভা ৬শ’ অটোর ৯টি রুট

নিজ জেলা কিশোরগঞ্জে রাষ্ট্রপতির সপ্তাহব্যাপী এক কর্মময় সফর

নিজ জেলা কিশোরগঞ্জে রাষ্ট্রপতির
সপ্তাহব্যাপী এক কর্মময় সফর

# মোস্তফা কামাল :-

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবার তার নিজ জেলা কিশোরগঞ্জে সপ্তাহব্যাপী এক ব্যস্ততম কর্মময় সফর সম্পন্ন করে গেলেন। ১২ নভেম্বর সফর শুরু করেছিলেন তার জন্মমাটি হাওরের গর্বিত উপজেলা মিঠামইন দিয়ে। এদিন দুপুরের পর তিনি রাজধানী থেকে হেলিকপ্টারযোগে মিঠামইন হেলিপ্যাডে অবতরণ করেন। গার্ড অব অনার গ্রহণ করে তিনি বিকালেই যান শৈশবের স্মৃতি বিজড়িত বাড়ি সংলগ্ন ঘোড়াউত্রা নদীর তীরে। শৈশবের একটি বড় সময় কেটেছে এই নদীর স্বচ্ছ টলমলে পানিতে সাঁতার কেটে। এই স্রোস্বিনী নদীর পানিতে দুষ্টুমি করে সাঁতরে তাড়িয়ে বেড়িয়েছেন হাঁসের পাল। তারই প্রচেষ্টায় হাওরাঞ্চলের ব্যাপক উন্নয়নের অংশ হিসেবে এখন এই ঘোড়াউত্রা নদীর ওপর নির্মাণ হচ্ছে একটি সেতু। সফরের প্রথম দিন সেই সেতুর নির্মাণকাজ পরিদর্শন করেছেন। হাওরে তিনি ১৬ নভেম্বর বিকাল পর্যন্ত অবস্থান করেছেন। রাত্রিযাপন করেছেন মিঠামইনের কামালপুর গ্রামের পৈত্রিক বাড়িতে। ১৬ নভেম্বর বিকালে তিনি হেলিকপ্টারযোগে জেলা শহরের বাসভবনে গিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি ১২ থেকে ১৬ নভেম্বর ৫ দিন তার সাবেক নির্বাচনী এলাকা মিঠামইন, অষ্টগ্রাম এবং ইটনা সফর করেছেন। ১৯৭০ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত তিনি হাওরাঞ্চল থেকে মোট ৭ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি ১৯৭০ সালে তৎকালীন পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে বিজয় দিয়ে সংসদে জায়গা করে নেন। এরপর তিনি স্বাধীন দেশে ১৯৭৩, ১৯৮৬, ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১ এবং ২০০৮ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরবর্তী জাতীয় নির্বাচনের আগেই তিনি রাষ্ট্রপতির পদ অলঙ্কৃত করেন। ফলে উপ-নির্বাচন দিয়ে যাত্রা শুরু করে বর্তমানে তার আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হচ্ছেন তারই বড় সন্তান রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক।
রাষ্ট্রপতি ১৩ নভেম্বর মিঠামইনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ফাউন্ডেশনের নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করে বিকালে সড়ক পথে অষ্টগ্রামে বিভিন্ন অবকাঠামোগত উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করেন। তিনি পূর্ব অষ্টগ্রামে তার নামে তৈরি করা রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ চত্বর, নবনির্মিত পূর্ব অষ্টগ্রাম ইউপি ভবন এবং কাস্তুল এলাকার জিরো পয়েন্টে সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য স্থাপিত যুদ্ধ জাহাজ পরিদর্শন করেন। এদিন সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতি অষ্টগ্রামের রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মিলনায়তনে বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের প্রতিনিধি এবং কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা করেন। করোনা পরিস্থিতির কারণে সভায় কেউ সভাপতিত্ব করার মত আনুষ্ঠানিকতা ছিল না। রাষ্ট্রপতি একাই বক্তব্য রেখেছেন। তিনি স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা জানান। তিনি অষ্টগ্রামে সুষ্ঠুভাবে ইউপি নির্বাচন সুসম্পন্ন করার জন্য সংশ্লিদের তাগিদ দিয়েছেন। কোন হানাহানি বা গোলমাল যেন না হয়, সেদিকে সবাইকে সজাগ থাকতে বলেছেন। তিনি উপস্থিত ব্যক্তিবর্গের কাছ থেকে দাবিদাওয়া এবং মতামতও শুনেছেন। রাতেই তিনি মিঠামইনে নিজ বাড়িতে ফিরে গেছেন।
সফরসূচীর তৃতীয় দিন ১৪ নভেম্বর রাষ্ট্রপতি নিজ এলাকা মিঠামইনে অবস্থান করেন। এদিন দুপুরে তিনি মিঠামইনে ২৭৫ একর জায়গা নিয়ে নির্মাণাধীন নতুন সেনানিবাসের কাজ পরিদর্শন করেছেন। তিনি সেনা প্রধান জেনারেল এসএম শফিউদ্দিন আহমেদকে নিয়ে সেনানিবাসের নির্মাণ কাজের অগ্রগতির খোঁজখবর নেন। এসময় তাকে কাজের অগ্রগতি সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ ধারণা দেন। এরপর বাদ আসর রাষ্ট্রপতি তার বাবা হাজী মো. তায়েব উদ্দিনের ৫০তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত মিলাদ মাহফিলে অংশ নেন।
সফরের চতুর্থ দিন ১৫ নভেম্বর রাষ্ট্রপতি মিঠামইন থেকে সড়ক পথে ইটনা সফর করেন। সেখানে তিনি আবদুল হামিদ সরকারি কলেজে রাষ্ট্রপতির সহধর্মিনীর নামে নির্মিত রাশিদা খানম মহিলা হোস্টেল, উপজেলা পরিষদের নবনির্মিত বর্ধিত ভবন, নির্মাণাধীন বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র এবং সড়ক যোগাযেগ অবকাঠামো ও সড়কের সৌন্দর্য বর্ধনে গৃহীত বিভিন্ন কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। সন্ধ্যায় তিনি রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মিলনায়তনে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি ও সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা করেছেন। সভায় রাষ্ট্রপতি বিভিন্ন জনের দাবিদাওয়াসহ মতামতও শুনেছেন। এরপর রাতেই তিনি মিঠামইনের বাড়িতে ফিরে যান।
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ হাওরে তার ৫ দিনের সফরের শেষ দিন ১৬ নভেম্বর সকালের দিকে মিঠামইনে বাবা হাজী মো. তায়েব উদ্দিন ও মা তমিজা খাতুনের কবর জিয়ারত করেন এবং তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন দোয়া করেন। এরপর মিঠামইন সদরে রাষ্ট্রপতি তার মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত তমিজা খাতুন সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে এক কোটি ৫৫ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত ৪তলা একাডেমিক ভবনের উদ্বোধন করেন। একই বিদ্যালয়ে ৫ কোটি ৯৩ লাখ টাকা ব্যয়ে ৫তলা মাল্টিপারপাস ভবনের নির্মাণ কাজের ভিত্তি ফলকও উন্মোচন করেছেন। এদিন বিকালে তিনি হেলিকপ্টারযোগে জেলা শহরে যান এবং তার খরমপট্টি এলাকার বাসায় অবস্থান করেন।
সফরের ষষ্ঠ দিন ১৭ নভেম্বর বুধবার সন্ধ্যায় তিনি শহরের জেলা শিল্পকলা মিলনায়তনে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার প্রতিনিধি ও বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা করেছেন। এবার ১২ নভেম্বর বিকালে মিঠামইনে আগমন, আর ১৮ নভেম্বর বিকালে জেলা শহর থেকে বঙ্গভবনে প্রত্যাবর্তনের কর্মসূচী দিয়ে রাষ্ট্রপতির সফরসূচী সাজানো হয়েছে।
এসব কর্মসূচীতে কিশোরগঞ্জ-৫ আসনের এমপি আফজাল হোসেন, কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের এমপি রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়ুয়া, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম, পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এমএ আফজল, মিঠামইন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আছিয়া আলম, অষ্টগ্রাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম জেমস, ইটনা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসানসহ বিভিন্ন পর্যায়ের সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!