• বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:২১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
ভিক্ষা জীবন ছেড়ে কাজ ও বাসস্থান চান কুলিয়ারচরের হিজড়ারা ভৈরবের নির্ভীক নারী শারমিন আক্তার জুঁই স্বেচ্ছাশ্রমের অদম্য কোভিডযোদ্ধা সবাইকে সঙ্গে নিয়ে আরও শক্তিশালীভাবে এগিয়ে যাবে যায়যায়দিন …… এমডি কিশোরগঞ্জে ১২ থেকে ১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম শুরু হলো হোসেনপুরে ইউপি নির্বাচনে সরে দাঁড়ালেন ১০ জন প্রার্থী রূপগঞ্জের হাসেম ফুডস লি. অগ্নিকাণ্ডে মারা যাওয়া ১৯ জনের পরিবারকে অনুদান কিশোরগঞ্জে ৪৫০ পিস ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে উদ্যোক্তাদের নিয়ে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যোৎপাদন প্রশিক্ষণ র‍্যাবের হাতে ভারতীয় মালামালসহ এক চোরাচালানকারী আটক কিশোরগঞ্জে যানজট নিরসন সংক্রান্ত সভা ৬শ’ অটোর ৯টি রুট

চেয়ারম্যান প্রার্থীরা এক টেবিলে চা খেলে সমর্থকরাও শিখতো ……… রাষ্ট্রপতি

১৮ নভেম্বর বৃহস্পতিবার কিশোরগঞ্জ সার্কিট হাউজে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ নির্মিতব্য শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টারের উপর পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন প্রত্যক্ষ করছেন। -পিআইডি

চেয়ারম্যান প্রার্থীরা এক টেবিলে
চা খেলে সমর্থকরাও শিখতো
                                     ……… রাষ্ট্রপতি

# মোস্তফা কামাল :-

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ইউপি নির্বাচনে হানাহানির প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেছেন, জনপ্রতিনিধি হবেন জনসেবা করার জন্য। মানুষ যাকে ভোট দেবে, তিনিই জনপ্রতিনিধি হবেন। মানুষ মারামারি করে জোর করে জনপ্রতিনিধি কেন হতে চায়। জোর করে কেন জনসেবার দায়িত্ব নিতে চায়। এভাবে জনসেবা হয় না। তিনি প্রশ্ন রেখে বলেছেন, নির্বাচনে দাঁড়ালেই প্রার্থীদের মধ্যে শত্রুতা তৈরি হবে কেন। সকল চেয়ারম্যান প্রার্থী যদি এক সঙ্গে এক টেবিলে বসে চা খেতেন, তাহলে তাদের কর্মী সমর্থকরাও এগুলি শিখতে পারতো। সমাজকে এভাবে গড়ে তুলতে হবে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে বলে তিনি মন্তব্য করেছেন।
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ কিশোরগঞ্জে তার এক সপ্তাহের সফরের ষষ্ঠ দিন ১৭ নভেম্বর বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকে জেলা শহরের শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে বীরমুক্তিযোদ্ধা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, সরকারি কর্মকর্তা ও বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সাথে দীর্ঘ চার ঘণ্টার মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেছেন। তিনি কিশোরগঞ্জ শহরে যানজট নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, এটা অটোরিকশার শহর হয়ে গেছে। দেশের অনেক জেলার তুলনায় এখানে যানজট বেশি। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও পৌর কর্তৃপক্ষসহ নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের ভূমিকা নেয়ার জন্য আহবান জানিয়েছেন। শহরের রাস্তাগুলো অপ্রশস্ত উল্লেখ করে তিনি বলেন, অধিকাংশ বহুতল বাসাবাড়ি এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নির্মাণের সময় নিয়মমাফিক জায়াগা তো ছাড়েইনি, বরং ড্রেনের ওপর থেকে নির্মাণ কাজ করেছে। এ ব্যাপারে পৌরসভার সঠিক তদারকি দরকার ছিল বলে তিনি মন্তব্য করেছেন। কেউ যেন সরকারি বা প্রাইভেট পুকুর পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতি ছাড়া ভরাট করতে না পারে, সে ব্যাপারেও সতর্ক থাকার জন্য জেলা প্রশাসন ও পুলিশ বিভাগসহ জনপ্রতিনিধিদের প্রতি রাষ্ট্রপতি আহবান জানিয়েছেন। তিনি কিশোরগঞ্জে শিল্পকারখানা নেই উল্লেখ করে বলেন, অনেকে স্থানীয়ভাবে ছোট ছোট উৎপাদনমুখি উদ্যোগ নিতে পারেন। কিন্তু তারা বহুতল বাসা বানিয়ে ভাড়া ওঠাচ্ছেন। এগুলি আসলে ‘বোবা শিল্প’। কারণ, বাসা ভাড়া দিয়ে টাকা আসে, কিন্তু এখানে কোন উৎপাদন হয় না। তিনি জেলার যোগাযোগ অবকাঠামো এবং স্বাস্থ্যসেবার বিষয়ে আগামীতে আরও উন্নতি হবে বলে মন্তব্য করেছেন।
তিনি হাওরের জলাশয়সহ সর্বত্র পলিথিন আর প্লাস্টিকের বোতলসহ অপচনশীল দ্রব্য দিয়ে পরিবেশ দূষণ হচ্ছে উল্লেখ করে এ ব্যাপারে সচেতনতা গড়ে তোলার ওপরও গুরুত্বারোপ করেছেন। সেই সাথে হাওরের মৎস্য সম্পদ রক্ষায় বর্ষাকালের শুরুতে ডিম পারার মৌসুমে দুই মাস মাছ ধরা বন্ধ রাখা উচিত বলেও মন্তব্য করেছেন। তিনি হাওরে পর্যটকদের কাছে কয়েক গুণ বেশি নৌকা ভাড়া ও খাবারের মূল্য রাখায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এরকম চলতে থাকলে একবার আসলে আর কেউ দ্বিতীয়বার এখানে আসবে না। করিমগঞ্জে একটি হাওর ইনস্টিটিউট হচ্ছে বলেও তিনি সভায় জানিয়েছেন। কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বৌলাই ইউনিয়নে ১০৮ একর জায়গার ওপর বঙ্গবন্ধুর নামে একটি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, এখানে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিসহ সাধারণ শিক্ষারও সুযোগ থাকবে। উপাচার্যও নিয়োগ হয়ে গেছে। এবার যারা এইচএসসি পরীক্ষায় পাশ করবেন, তাদের ভর্তি দিয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু হবে বলে সভায় জানানো হয়েছে।
সভায় উপস্থিত আমন্ত্রিত ব্যক্তিদের মধ্যে জেলা পরিষদের চেয়াম্যান অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এমএ আফজল, জেলা গণতন্ত্রী পার্টির সভাপতি অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন, জিপি অ্যাডভোকেট বিজয় শংকর রায়, রাষ্ট্রপতির সহপাঠী অ্যাডভোকেট এমএ মালেক ভূঁইয়া ও অ্যাডভোকেট ওমর ফারুক, জেলা বারের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট এমএ রশিদ, জেলা বিএমএ সভাপতি ডা. মাহবুব ইকবাল, জেলা স্বচিপ সভাপতি ডা. দীন মোহাম্মদ, জেলা বারের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আমিনুল ইসলাম রতন, জেলা সিপিবির সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, জেলা মহিলা লীগ সভাপতি দিলারা বেগম আসমা, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার বাসির উদ্দিন ফারুকী, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আতাউর রহমান, জেলা চেম্বারের সভাপতি মুজিবুর রহমান বেলাল, জেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোস্তফা কামাল, জেলা যুবলীগ সভাপতি আমিনুল ইসলাম বকুল, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটু, সদস্য আনোয়ার কামাল, জেলা উইমেন চেম্বারের সভাপতি ফতেমা জহুরা, জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বাচ্চু, জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আনোয়ার হোসেন মোল্লা সুমন, সাধারণ সম্পাদক ফয়েজ উমান খানসহ অনেকেই জেলার বিভিন্ন সমস্যা ও দাবির কথা তুলে ধরেছেন। সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কিশোরগঞ্জ-৫ আসনের এমপি আফজাল হোসেন, রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়ুয়া, জেলা ও দায়রা জজ মো. সায়েদুর রহমান খান, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম, পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক মো. হাবিবুর রহমানসহ বিভিন্ন পর্যায়ের সামরিক বেসামরিক কর্মকর্তা। আমন্ত্রিত অতিথিদের সবাইকেই দু’বার করে করোনার পরীক্ষা করিয়ে শিল্পকলায় ঢোকার অনুমতি দেয়া হয়েছে।
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ গত ১২ নভেম্বর বিকালে রাজধানী থেকে হেলিকপ্টারযোগে নিজ উপজেলা মিঠামইনে আসেন। সেখানে কামালপুর গ্রামের পৈত্রিক বাড়িতে অবস্থান করে মিঠামইন, অষ্টগ্রাম ও ইটনায় বিভিন্ন কর্মসূচীতে অংশ নিয়ে ১৬ নভেম্বর বিকালে হেলিকপ্টারযোগে কিশোরগঞ্জ শহরে আসেন। শহরের বাসভবনে অবস্থান করে এখানকার কর্মসূচী সম্পন্ন করে ১৮ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বিকালে হেলিকপ্টারযোগে রাষ্ট্রপতি রাজধানীতে ফিরে যান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!