• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১১:৫৯ অপরাহ্ন |
  • English Version

ভৈরবে বাদীই খুনী, আদালতে স্বীকারোক্তি

নিহত স্বপন।

# আফসার হোসেন তূর্জা :-

ভৈরব উপজেলার শিমুলকান্দি ইউনিয়নের চাঁনপুরে স্বপন হত্যাকাণ্ডের ৫২ দিন পর রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কিশোরগঞ্জ। পিবিআই তদন্তের মাধ্যমে স্বপন হত্যা মামলার বাদী সহোদর ভাই রিপন মিয়া’কে ১৭ সেপ্টেম্বর শুক্রবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কিশোরগঞ্জ নিয়ে যাওয়া হয়। পরে রিপনকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে পিবিআই এর নিকট হত্যার কথা স্বীকার করে সে। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এর মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. সাকুরুল হক খাঁন।
আজ শনিবার দুপুরে কিশোরগঞ্জ আদালতে জবানবন্দিতে রিপন মিয়া খুনের কথা স্বীকার করে। আদালতের বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্যাট মো. শহীদুল হক তার জবানবন্দি গ্রহণ করেন।
রিপন তার জবানবন্দিতে জানায়, বড় ভাই স্বপন তার স্ত্রীর সাথে পরিকিয়ায় জড়িত ছিল। এছাড়া পারিবারিক সম্পত্তি নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে স্বপনকে গত ২৬ জুলাই রাতে হত্যা করে। ঘটনার দিন রাতে রিপন মিয়া তার বড় ভাই স্বপনকে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে বাড়ির পার্শ্ববর্তী একটি খালে প্রথমে মুখে এসিড ঢেলে দেয় পরে মৃত্যু নিশ্চিত করতে পানিতে চুবিয়ে হত্যা করে। এ সময় রিপনকে সহায়তা করে এলাকার কয়েকজন। দু’দিন পর খবর পেয়ে ভৈরব থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে।
ঘটনার পরদিন তার ছোট ভাই রিপন বাদী হয়ে ভৈরব থানায় তিনজনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। এদিনই পুলিশ তিনজনকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠায়।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআইয়ের পুলিশ পরিদর্শক মো. সাকুরুল হক খাঁন এই প্রতিনিধিকে জানান, মামলাটি তদন্ত করতে গিয়ে দেখা গেছে মামলার বাদী রিপন মিয়া নিজেই তার ভাই স্বপনকে হত্যা করেছে। শুক্রবার কৌশলে রিপনকে তার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়।
উল্লেখ্য, স্বপন শিমুলকান্দি ইউনিয়নের চাঁনপুর মধ্যেপাড়া গ্রামের মৃত দেওয়ান আলীর ছেলে। গত ২৬ জুলাই রাতের বেলা থেকে তাকে খুজে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরের দিন স্বপনের ভাই রিপন ভৈরব থানায় একটি নিখোঁজ সাধারণ ডায়েরী করে। তারপরের দিন ২৮ জুলাই বাড়ির পাশেই একটু ডোবা থেকে স্বপনের মরদেহ উদ্ধার করে ভৈরব থানা পুলিশ। স্বপনের মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষে লাশ দাফনের পরদিন ২৯ জুলাই অজ্ঞাত নামা আসামি করে স্বপনের ভাই রিপন বাদী হয়ে ভৈরব থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!