• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১১:১১ অপরাহ্ন |
  • English Version

ভৈরবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নতুন প্রাণের উচ্ছ্বাস নেওয়া হয়েছে স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত বিভিন্ন পদক্ষেপ

# আফসার হোসেন তূর্জা :-

করোনা মহামারির কারণে দীর্ঘ ১৮ মাস বন্ধ থাকার পর সারাদেশে একযোগে খুলেছে দেশের প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। আজ ১২ সেপ্টেম্বর রোববার প্রথম দিন ভৈরব উপজেলার প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই যেন ছিল নতুন প্রাণের উচ্ছ্বাস। শুরু হয়েছে পাঠদান। আগে থেকেই উপজেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ে ঝোলানো হয়েছে স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত সচেতনতামূলক ব্যানার, ফেস্টুন ও দেওয়ালিকা। এছাড়া শিক্ষার্থীদের থারমাল স্ক্যানারের মাধ্যমে তাপমাত্রা পরীক্ষা করে বিদ্যালয়ে প্রবেশ করানো হচ্ছে। এর সাথে হ্যান্ড স্যানিটাইজার, সাবান পানি দিয়ে হাত দোয়ার ব্যবস্থা রেখেছে বিদ্যালয়গুলো।
এদিকে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা সকাল থেকেই বিভিন্ন বিদ্যালয় পরিদর্শন করেন এবং শিক্ষক শিক্ষার্থীদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেন।
টানা ১৮ মাস গৃহবন্দী অবস্থায় থাকতে থাকতে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের মাঝে নেমে এসেছিল হতাশা আর একঘেয়ে ভাব। প্রাতিষ্ঠানিক কর্মতৎপরতা ব্যতিরেকে শিক্ষার্থীরা পড়াশোনায় মনোনিবেশ করতে পারছিল না। অনলাইন পাঠদানেও সবাই সমানভাবে উপকৃত হতে পারছিল না। অবশেষে করোনা সংক্রমণের নিম্নগতির সুবাদে ভৈরবের ৯২টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৪১টি নিম্নমাধ্যমিক, মাধ্যমিক, কলেজ ও মাদ্রাসা খুলে দেওয়ায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকেও সাজানো হয়েছে নতুন সাজে, নতুন আঙ্গিকে।
ভৈরবের প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ভৈরব সরকারি কে.বি পাইলট মডেল হাই স্কুল। সারা বাংলাদেশের মত আজ থেকে এই বিদ্যালয়েও সরকারি নিয়মনীতি মেনে শুরু হয়েছে পাঠদান। সকালে বিদ্যালয় গিয়ে দেখা গেছে, প্রত্যেক শিক্ষার্থীর মুখের ছিল মাস্ক। শিক্ষার্থীরা সাবান পানি দিয়ে হাত ধুয়ে বিদ্যালয়ে প্রবেশ করছে। এই সময় শিক্ষক থারমাল স্ক্যানার দিয়ে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর তাপমাত্রা পরখ করে তাদের ক্লাশে ঢুকতে দিচ্ছেন। প্রতিটি বেঞ্চে আগে পাঁচজন শিক্ষার্থী গাদাগাদি করে বসতো। আর এখন প্রত্যেক বেঞ্চের দুই মাথায় দু’জনকে বসানো হচ্ছে। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই প্রায় একই চিত্র দেখা গেছে।
এছাড়া যারা ষষ্ঠ শ্রেণিতে নতুন ভর্তি হয়েছে, তাদের জন্য আজই হবে ক্লাসের প্রথম দিন। এজন্য বিদ্যায়ের প্রধান শিক্ষক মো. নুরুল ইসলাম প্রত্যেক শিক্ষার্থীদের নিজ হাতে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন। তাছাড়া সচেতনতার বৃদ্ধির জন্য শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে লিফলেটও বিতরণ করেন তিনি।
এই বিষয়ে ভৈরব সরকারি কে.বি পাইলট মডেল হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. নুরুল ইসলাম বলেন, বিদ্যালয় খুলে ক্লাস শুরু করতে সরকার থেকে সতর্কতা ও সচেতনতামূলক নির্দেশনা জারি করেছে। আপাতত এসব নির্দেশনা ও নিয়মের আলোকে চলবে শিক্ষা কার্যক্রম। আজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুললেও সব শিক্ষার্থী একসঙ্গে বিদ্যালয়ে আসবে না। আসতে হবে পর্যায়ক্রমে। এছাড়া তিনি বিদ্যায়ের ছাত্র-ছাত্রীদের মাস্ক ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিদ্যালয়ে আসতে বলেন।
করোনা মহামারির কারণে দীর্ঘদিন বিদ্যালয় বন্ধ থাকার পর আজ থেকে বিদ্যালয় খুলায় শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি বিদ্যালয়ের প্রত্যেক শিক্ষক ,কর্মচারীদের মাঝেও যেন চলছে উৎসবের আমেজ। তবে শিক্ষার্থীদের মধ্যে উচ্ছ্বাস থাকলেও অভিভাবকদের মধ্যে এখনো কিছুটা আতঙ্কও রয়ে গিয়েছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা একাডেমিক সুপার ভাইজার স্বপ্না বেগম জানান, আজ থেকে ভৈরবে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের ৪১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রতিটি বিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে হবে। সরকারের নীতিমালা অনুযায়ী শ্রেণিকক্ষে শিক্ষক পাঠদান দিবেন বলে আশা করছি।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!