• বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:৪৯ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
১০১ কেজি গাঁজাসহ ১০ জন মাদক ব্যবসায়ী র‌্যাবের হাতে আটক ভৈরবের ৭ ইউপিতে মার্কা প্রচারের লড়াইয়ে প্রার্থীরা ভৈরবে বিশ্বব্যাংকের প্রতিনিধিদের সু’ক্রাফট কমন সার্ভিস সেন্টার পরিদর্শন করিমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার কর্তৃক ব্র্যাক কর্মসূচি পরিদর্শন ওএমএস’র দোকানে নারী-পুরুষের ভিড় কিশোরগঞ্জে করোনার তৃতীয় ঢেউ মোকাবেলায় সুজনের আলোচনা সভা কিশোরগঞ্জে ডিজিটাল সেন্টারের ১১ বছর পূর্তির আলোচনা এবং পুরস্কার কিশোরগঞ্জে প্রায় ৫ লাখ শিশু খাবে ভিটামিন-এ ভিক্ষা জীবন ছেড়ে কাজ ও বাসস্থান চান কুলিয়ারচরের হিজড়ারা ভৈরবের নির্ভীক নারী শারমিন আক্তার জুঁই স্বেচ্ছাশ্রমের অদম্য কোভিডযোদ্ধা

ইসলাহুন নফস বা আত্মশুদ্ধি (৪র্থ পর্ব) ; সংকলনে- ডা. এ.বি সিদ্দিক

অন্তরের রোগ সমূহ থেকে নিজেকে মুক্ত করার নামই হল ইসলাহুন নফস বা আত্মশুদ্ধি। আর অন্তরের রোগ সমূহ থেকে কয়েকটি রোগ সম্পর্কে আমরা গত পর্বে জেনেছিলাম। সেগুলো হলো, ১। সত্যকে অপছন্দ করা ২। ইবাদতের বেলায় মনের অবাস্তব আকাঙ্খা ৩। কুপ্রবৃত্তির অনুসরণ করা ৪। অন্তরে মন্দ চিন্তা-ভাবনাকে প্রশ্রয় দেওয়া ৫। দ্বীনি ইলম বা জ্ঞানের মাধ্যমে দুনিয়া তালাশ করা ৬। অন্যের দোষ তালাশ করা ৭। নিজেকে নিরাপদ মনে করা ইত্যাদি। আর এ পর্বেও আমরা আরো কয়েকটি রোগ সম্পর্কে জানব ইনশাআল্লাহ। আর তা হলো:
৮। হিংসা-বিদ্বেষ পোষণ করা। হিংসা হলো কারো কোন কিছুর ধ্বংস কামনা করা। আর কারো প্রতি অসন্তুষ্ট হলে মনের মাঝে যে মন্দ প্রভাব বাকি থেকে যায় তাকে বলে বিদ্বেষ। হিংসা-বিদ্বেষ পোষণ করা মনের মারাত্মক একটি রোগ। হিংসার কারণে ঘুম আসে না। খেতে ইচ্ছা করে না। মেজাজ খিটখিটে হয়ে যায়। হতাশা বিরাজ করে। এমনকি অনেক সময় চেহারা পর্যন্ত বিবর্ণ হয়ে যায়। কেননা অন্যের চেয়ে একটু আলাদা হওয়ার চেষ্টা বা কাউকে নিজের সমকক্ষ হতে না দেওয়ার মানসিকতা থেকেই হিংসা জন্ম নেয়। যখন অন্য দশ জনের চেয়ে কারো আলাদা কোন মর্যাদা অর্জিত হয়, তখনই সেই হিংসুকের মনে আগুন লাগে-তার আলাদা মর্যাদার কারণে অথবা উভয়ে সমান হয়ে যাওয়ার ভয়ে। যতদিন পর্যন্ত সেই ব্যক্তি সেই মর্যাদায় অভিষিক্ত থাকে, ততদিন পর্যন্ত হিংসুকের হৃদয়ে আগুন জ্বলতেই থাকে। তাই এ রোগ যাদের আছে তাদেরকে অবশ্যই এ ব্যাধি থেকে মুক্ত হওয়ার চেষ্টা করতে হবে। মহান আল্লাহ রব্বুল আলামীনের লিখিত তাক্বদীর বা ভাগ্যের উপর বিশ্বাস রাখতে হবে। যে বিষয়টির জন্য হিংসা হচ্ছে সেটার ধ্বংস কামনা না করে হিংসুক ব্যক্তিটিকে সেটা অর্জনের জন্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা করতে হবে। পাশাপাশি হিংসার নিন্দার ব্যপারে কুরআন-হাদীসে যা এসেছে তা সর্বদা মাথায় রেখে চলতে হবে। যেমন একটি হাদীসে রাসূল (সা.) বলেছেন, তোমাদের আগেকার উম্মতদের রোগ তোমাদের মধ্যেও সংক্রমিত হয়েছে। তা হলো পরস্পর হিংসা-বিদ্বেষ ও ঘৃণা। আর এই রোগ মুন্ডন করে দেয়। আমি বলছি না যে, চুল মুন্ডন করে দেয়, বরং এটা দ্বীনকে মুন্ডন (বিনাশ) করে দেয়। সেই মহান সত্তার শপথ, যাঁর হাতে আমার জীবন! তোমরা ঈমানদার না হওয়া পর্যন্ত জান্নাতে প্রবেশ করবে না। তোমরা যদি পরস্পরকে না ভালবাস তাহলে ঈমানদার হতে পারবে না। আমি কি তোমাদেরকে বলব না যে, পারস্পরিক ভালবাসা কোন কাজের মাধ্যমে মজবুত হয়? তোমরা পরস্পর সালামের বিস্তার ঘটাও। (তিরমিযি: ২৫১০)
৯। কৃপণতা করা। প্রয়োজনীয় কিংবা আবশ্যকীয় কাজে খরচ না করাকে কৃপণতা বলে। তবে টাকা-পয়সা সঞ্চয় করলেই যে কৃপণ, বিষয়টি এরকম নয়। কেননা মানুষ কখনো নিজের প্রয়োজনে, কখনো বিপদাপদের আশঙ্কায় আবার কখনো পরিবার-পরিজন ও আত্মীয়-স্বজনের জন্য প্রয়োজনের অতিরিক্ত টাকা সঞ্চয় করে রাখে, যেটা নিন্দনীয় নয়। আব্দুল্লাহ ইবনে উমর (রা.) বলেন, যে ব্যক্তি যাকাত দেয় সে কৃপণ নয়। আবার জনকল্যাণমূলক কাজ, যাতে দান করলে কোন ক্ষতি নেই; কিংবা ক্ষতি হওয়ার কোন আশঙ্কাও নেই তাতে যে দান করে না, সেও কৃপণ। আর কৃপণতা মারাত্মক একটি ব্যাধি। কেননা রাসূল (সা.) বলেছেন, কৃপণতার চেয়ে মারাত্মক রোগ আর কী হতে পারে? (মুসনাদে আহমদ: ৩/৩০৭, ৩০৮) তাছাড়া কৃপণতা এত মারাত্মক একটি বিষয় যে, এখানে কৃপণ ব্যক্তি অর্থের কাছে পরাধীন হয়ে পড়ে, টাকা-পয়সাই কৃপণ ব্যক্তির মালিক হয়ে পড়ে। তাই কৃপণ হওয়া থেকে বাঁচতে হবে। রাসূল (সা.) বলেন, তোমরা কৃপণতার ব্যাপারে সাবধান হও। কেননা তোমাদের পূর্র্ববর্তীরা কৃপণতার কারণে ধ্বংস হয়েছে। অর্থলোভ তাদেরকে কৃপণতার নির্দেশ দিয়েছে, ফলে তারা কৃপণতা করেছে, তাদেরকে আত্মীয়তা ছিন্ন করার নির্দেশ দিয়েছে, তখন তারা তাই করেছে এবং তাদেরকে পাপাচারে প্ররোচিত করেছে, তখন তারা তাতে লিপ্ত হয়েছে। (আবু দাউদ: ১৬৯৮)
১০। লোভের শিকার হওয়া। লোভ করা মানুষের অন্তরের মারাত্মক একটি রোগ, চাই তা টাকা-পয়সা কিংবা বাড়ি-গাড়ির ব্যাপারে হোক অথবা খাবার-দাবার কিংবা অন্য কোন ক্ষেত্রে হোক। সর্বাবস্থায় লোভের শিকার হওয়া দূষণীয় বিষয়। তাই এ স্বভাব কারো ভেতরে থাকলে একে দূর করতে হবে। আর এই জন্য সব সময় এই বিশ^াস রাখতে হবে যে, আল্লাহ রব্বুল আলামীন আমার জন্য যে রিযিক বরাদ্দ রেখেছেন লোভ করার মাধ্যমে এর থেকে একটুও বৃদ্ধি পাবে না। তবে রিযিকের জন্য যথাযথভাবে চেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে এবং মহান আল্লাহর উপর পূর্ণ আস্থা থাকতে হবে। কেননা আল্লাহ রব্বুল আলামীন বলেছেন, আমার কাছে কথা রদবদল হয় না, আর আমি বান্দার উপর জুলুমও করি না। (সূরা ক্বাফ: ২৯)
১১। সর্বদা অতিমাত্রায় আনন্দিত ও খুশিতে থাকা। মানুষের একটি মন্দ স্বভাব হলো সব সময় খুশি ও আনন্দ অন্বেষণ করা। অনেক মানুষ সব সময় মনকে এমন কাজে নিয়োজিত রাখতে তৎপর থাকে, যা তার জন্য আনন্দ সরবরাহ করে। যা মন্দ একটি বিষয়। কেননা সব সময় আনন্দ-ফূর্তিতে থাকলে মানুষ অহংকারী হয়ে উঠে। আর এই কারণেই মুমিনদের দুনিয়াবী জীবনটাকে কারাগারের সাথে তুলনা করা হয়েছে। কেননা একজন প্রকৃত মুমিন পৃথিবীতে সব সময় আনন্দিত ও খুশিতে থাকতে পারবে না। বরং বিভিন্ন কষ্ট তাকে আঁকড়ে ধরবে, যেমনভাবে নবী-রাসূলদেরকে আঁকড়ে ধরেছিল। কাজেই সর্বদা আনন্দিত থাকার মনোভাব ভেতর থেকে দূর করতে হবে এবং রাসূল (সা.) এর বাণী মনে রাখতে হবে। তিনি বলেছেন, নিশ্চয়ই আল্লাহ তায়ালা সকল ব্যথিত ও চিন্তিত অন্তরকে ভালবাসেন। (শুআবুল ঈমান: ৮৬৬)
আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে অন্তরের রোগ সমূহ থেকে নিজেদেরকে মুক্ত করার তাওফীক দিন। আমীন
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!