• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:০৯ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

করোনাকালীন প্রাথমিক শিক্ষা ও বাস্তবতা, সোহেল সাশ্রু

করোনাকালীন প্রাথমিক
শিক্ষা ও বাস্তবতা
সোহেল সাশ্রু

কোভিড-১৯ আর সাধারণ মানুষ এই দুটোই মোকাবেলা করা বড়ই কঠিন। কখন যে তারা জিন পাল্টে ফেলবে তা বোঝা খুবই দূরূহ। সাধারণ মানুষ একদিকে লাফাচ্ছে করোনা প্রতিরোধে জরুরী অবস্থা ঘোষণা করার জন্য, কারফিও জারি করার জন্য। অন্য দিকে লক ডাউন দিলে শুরু হয়ে যাচ্ছে প্রতিবাদের ঝড়। সরকার ও প্রশাসনকে গালাগাল দেয়া। গরীব মারার ষড়যন্ত্র বলে গালবাজি করা। একদিকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার জন্য তুমুল আন্দোলন। অন্যদিকে বিদ্যালয় থেকে শিক্ষার্থীর সাথে যোগাযোগ করা হলে বলবে এক বছর পড়া শুনা না করলে তেমন ক্ষতি হবেনা। অনলাইনে যুক্ত করে শিশুর ভবিষ্যৎ ধ্বংস করা নাকি? যারা এমন বলে তাদের সন্তানেরই দেখা যায় একটা দুটো নয় বরং চার পাঁচটি করে আইডি থাকে বিচিত্র সব নামে। তারা এতটাই এক্সপার্ট যা কল্পনাও করা যাবে না। শুধু অনলাইনে পাঠদানে যুক্ত হতেই যত সমস্যা।
গুগল মিটের লিংক-এ ক্লিক করে ক্লাসে জয়েন করতে পারে না। কিন্তু দিব্যি গ্রুপে ভয়েজে মেসেজ পাঠাচ্ছে, চেটিং করছে, ইমেজ দিচ্ছে, স্টিকার কমেন্ট করছে। অভিভাবকরা বলছেন অনলাইনে ক্লাস করে নাকি তাদের সন্তানরা অসুস্থ হয়ে পড়ছে কিন্তু তারা যখন পাপজি আর ফ্রি ফায়ার গেমস খেলছে তখন তাদের চোখেরও ক্ষতি হচ্ছে না আর এমবিও খরচ হচ্ছে না।
একদিকে এই সাধারণ মানুষ চিৎকার করছে কেউ লক ডাউন মানছে না বলে। অথচ নিজেই মাস্ক ছাড়া দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছে। নিজেও পজিটিভ জেনেও হাটে-বাজারে, চায়ের আড্ডায় ঘুরে আরও ১০ জনকে আক্রান্ত করছে। তাই সাধারণ মানুষকে বিশ্বাস করাই বড় বিপদ। লক ডাউন শোনার আগেই তারা শুরু করে মজুদদারী। বাজারে শুরু হয়ে যাবে দ্রব্যের কৃত্রিম ক্রাইসিস। অন্য দিকে চিৎকার করবে বাজার নিয়ন্ত্রণ করার। আরে মশাই আমরা আগে নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করি। তাহলেই সমাজ ও দেশ দুটোই নিয়ন্ত্রণ হবে। আগে আমরা ঘর সংশোধন করি। তাহলেই পুরো সমাজ সংশোধন হবে। যদিও সঠিকভাবে দেশের প্রতিটি মানুষ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করত তাহলে আজকের এই লক ডাউনের কোন প্রয়োজন ছিল না। দেশ কি তাহলে ভারতের পদদ্ধি অনুসরণ করছে? আমরা ভারতের সেই বিভীষিকা আমাদের দেশে দেখতে চাই না।
সম্প্রতি দেশে করোনা প্রাদুর্ভাব ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে সংক্রমনের হার আশঙ্কাজনক বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রতিদিন মৃত্যুর মিছিলে যোগ হয়ে রেকর্ড পরিমাণ। দেশের বিভিন্ন জেলাগুলোতে করোনার ভারতীয় ভ্যরিয়েন্ট ধরা পড়েছে। সনাক্ত বিবেচনায় বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ৩১তম। আর আমাদের কিশোরগঞ্জ জেলায় এ প্রাদুর্ভাব আরো বেশী। যেখানে সারাদেশে সনাক্তের গড় হার ২২%। ভৈরবে সেই হার ৫৭%। সংক্রমণের এই বাস্তবতা থেকে জনগণকে নিরাপত্তা দিতে নতুন করে শুরু হচ্ছে অঞ্চল ভিত্তিক লক ডাউন। সচেতনতা ও সুরক্ষা ও ধর্মীয় নির্দেশনার অংশ। সরকারকে প্রতিপক্ষ ভেবে সরকারি নির্দেশনা ও স্বাস্থ্যবিধি লংঘন করা উচিত হবে না।
আসুন বদলে যাই। নিজের এবং দেশের প্রতি মনোযোগী হই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *