• শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ০২:৫৭ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

লকডাউন প্রাকৃতিক বিধান

লকডাউন প্রাকৃতিক বিধান

মো. জালাল উদ্দিন

সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সময়ের মাঝে দিনের আলোতে মানুষের জীবনে দৈনন্দিন পেশাগত কাজ শেষ করে ঘরে ফেরা মানবজাতির জন্য প্রাকৃতিক বিধান। মানুষ প্রকৃতির প্রাণী বলে তাকে এই বিধান মেনে চলাই শ্রেয়। এর জন্য মানুষের জীবন সুন্দর ও সুখময় হয়ে থাকে। স্বাভাবিক রীতির ব্যতিক্রম ঘটলে মনুষ্য সমাজ তথা প্রাকৃতিক পরিবেশে নানা ধরণের অপ্রাসঙ্গিক অপ্রত্যাশিত প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়ে থাকে। যা মানব জীবন তথা সমাজ জীবনে অনেক ক্ষতিও সাধান করে যেতে পারে। যেমন- কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ। কোভিড উৎপত্তির কোন কৃত্রিম কারণ খোঁজে পাওয়া যায়নি। তাহলে ধরে নিতে পারি- এটি প্রকৃতির কোন বিরূপ প্রতিক্রিয়ার ফলাফল হতে পারে। কোভিড বা করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ ২০২১ খ্রিস্টাব্দের মার্চ-এপ্রিল মাসে যে মারাত্মকভাবে আক্রমন করেছে। এই দফায় তার তাণ্ডব দেখে স্বাভাবিকভাবে চিন্তাশীল মনে একটা প্রশ্নের উদয় হয়। করোনা ভাইরাস আমাদের থেকে কি নেবে আর কি দিয়ে যাবে। এই নেয়া দেয়ার বিষয়টা চিন্তা করলে অনুমান করা যায়। নেয়ার চেয়ে দিয়েই যাবে বেশি। পৃথিবী জুড়ে ৭০০ কোটি মানুষ থেকে কিছু সংখ্যক মানুষকে মৃত্যুর মাধ্যমে উঠিয়ে নিয়ে যাবে। অবশিষ্ট মানুষগুলোর জন্য পৃথিবীতে প্রচলিত অনিয়মতান্ত্রিকতার বেড়াজাল ভেঙ্গে নিয়মতান্ত্রিক বাস উপযোগী একটি পরিবেশ তৈরি করে দিয়ে যাবে। এই রকমটা অনুমান করা যায় এজন্য যে, পৃথিবীজুড়ে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের ভ্যাকসিন আবিস্কার হরার পরও তেমন কোন কার্যকারিতা দৃশ্যমান নয়। এটা কি তবে একেবারে শেষ হয়ে যাবে না? মানুষকে ভয় দেখাবার জন্য মৌসুমী রোগ হয়ে থেকে যাবে? কেননা- সভ্যতার গোড়া থেকে দেখা যায়- সভ্যতা প্রতিষ্ঠায় শুধু পড়াশুনা করে জ্ঞান অর্জনই শেষ কথা নয়। মানুষকে ভালো এবং মানবিক মানুষ হবার জন্য ভয় নামের অদৃশ্যতাটাও থাকতে হয়। সহজ কথায় বললে বুঝতে পারা যায়- শুধু বোঝের কারণে মানুষ সব সময় মানবিক থাকতে পারে না। একজন মানুষকে মানবিক মানুষ হরার জন্য ভয়টাও একটা উপাদান হিসেবে কাজ করে। এটা যদি অপ্রতিরোধযোগ্য হয়- এই ভয়টা যদি মৃত্যুর কারণ হয়- তাহলে এই ভয়ে মানুষের পাশবিকতা; লোভ, হিংসা, বিদ্বেষ থেকে মানুষকে দূরে সরাতে অনেক সহজভাবে কাজ করে। মানুষ নিজের মৃত্যুটাকে যত ভয় পায়- বোধ হয়- আর কিছুতে এতটা ভয় পায় না। এজন্যই হয়তো ধর্মগ্রন্থগুলো মানুষকে পরকালের সুখ শান্তির পাশাপাশি শাস্তির বিপদজনক কথাগুলোও বলে ভয় দেখিয়ে থাকে।
বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তির উৎকর্ষতার যুগে যে মানুষটি ভূমিতে পা রাখা ছাড়া নিজের ডানায় ভর করে আকাশে একটি মিনিটের জন্য উড়তে পারে না। সে মানুষটি যখন বিজ্ঞানের কল্যাণে চাঁদের পৃষ্ঠে অবতরণ করে। মঙ্গলগ্রহে যাবার স্বপ্ন দেখে- হাজার হাজার কিলোমিটার দূরে থেকে ভিডিও কল করে ব্যক্তির ছবি দেখে কথা বলতে পারে। নিজেদের বুদ্ধিমত্তায় তৈরি করা পারমানবিক বোমা মেরে লাখ লাখ মানুষকে হত্যা করার কিংবা পৃথিবীর বড় বড় শহর নগর বন্দর ধ্বংস করে দেবার ক্ষমতা অর্জন করে। পৃথিবীজুড়ে প্রযুক্তির মাধ্যমে দাপিয়ে বেড়াতে পারে। নিজেদের এই সক্ষমতার কথাগুলো চিন্তা করে তখন এই মানুষগুলোর মাঝে অহমিকার জন্ম নেয়। নিজের সক্ষমতার উপর নির্ভর করে। নিজের সক্ষমতার বলে নিয়মতান্ত্রিক জীবন ব্যবস্থা ছেড়ে ভোগবাদী অনিয়মতান্ত্রিক জীবন ব্যবস্থায় অভ্যস্থ হয়ে পড়ে। এত এত উন্নতি আর উৎকর্ষতার কারণে কোন কিছুও মানতে চায় না। ক্রমাগত রাতকে দিনে পরিণত করে ব্যক্তিগত, পারিবারিক, জাতীয় এবং বৈশ্বিক উন্নতির জন্য- যন্ত্রের মতো কাজ করে। মানুষ স্রষ্টাকর্তৃক প্রদত্ত বিধি বিধানের কিছুও তোয়াক্কা না করে নিয়ম যা করে চলেছে। তা কেবলি অনিয়মতান্ত্রিক হয়ে পড়েছে। প্রকৃতির উপর অবাধে খুড়াখুড়ি করা, প্রকৃতির গতিপথ ধ্বংস করা, নদীর গতিপথ বদলে দেয়া, পাহাড় কেটে সমভূমি করা, গাছ কেটে বন উজাড় করা, খাল-বিল নদী ভরাট করে শহর বন্দর নগর প্রতিষ্ঠা করা। অপরিকল্পিত নগর জীবন গড়ে তোলা। প্রাকৃতিক জীবন ছেড়ে অপরিকল্পিত নগরের জীবনে বসবাস করা। ভূমিদস্যুতা, ভূমির দখলদারিত্বের জন্য মানুষ হয়ে স্বপ্রজাতির মানুষকেই মেরে নিজের জন্মভূমি থেকে উচ্ছেদ করা, শিল্প উন্নতির নামে অপরিকল্পিত কার্বন নিঃসরন করে ভূ-প্রকৃতি তথা প্রাকৃতিক পরিবেশের ভারসাম্যতা নষ্ট করে দিয়ে পুরো প্রাকৃতিক পরিবেশকে স্বাস্থ্য বিমুখ করে তোলা। এই ভারসাম্যহীন প্রকৃতিরই কুফল হতে পারে আজকের কোভিড বা করোনা ভাইরাস। যার দরুণ ভ্যাকসিন আবিস্কার হবার পরও রোধ করা যাচ্ছে না এই ভাইরাসের সংক্রমণ। চোখের সামনে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে- স্বাস্থ্যবিধি পালনে শুধুমাত্র মাস্কটা ব্যবহার করলেই সংক্রমণের ঝুঁকি অনেকটা কমে যায়। এছাড়া শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখাও করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি কমায়। এতে করেও বুঝতে পারায় যায়- মনুষ্য তৈরি প্রাকৃতিক পরিবেশ বিনষ্ট করার কুফলই হতে পারে করোনার সংক্রমণ।
করোনাক্রান্ত পৃথিবীজুড়ে লকডাউন কোয়ারেন্টিন মানুষের এই বিপদ সংকুল সময়ে মেনে নিতে যত কষ্টই হোক- মানুষের জন্য এটাই এখন করণীয় উপায়। প্রকৃতি থেকে উৎপত্তিগত ভাইরাসকে প্রাকৃতিকভাবে রোধ করার চেষ্টা করতে হবে। এর জন্য দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনার প্রয়োজন রয়েছে। ভূ-প্রাকৃতিক পরিবেশকে মানুষের জন্য সুস্বাস্থ্য নিয়ে বসবাস করার উপযোগী কিভাবে করা যায়, এ বিষয়ে ভাবতে হবে। ভূ-প্রাকৃতিক পরিবেশ মানুষের জন্য বসবাস উপযোগী সুন্দর পরিবেশ গড়ে তোলা ছাড়া আর বিকল্প কোন পথ নেই। এর জন্য কাজ করতে হবে। সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দোকান-পাট, হাট-বাজার, অফিস আদালত চলার সময় মানুষকে স্বতস্ফুর্তভাবে মেনে নিতে হবে এবং উল্লেখিত সময়ে দিনের আলোতে মানুষের পেশাগত কাজ শেষ করে ঘরে ফিরে যেতে হবে। এটাই বর্তমান সময় দাবী করে।
প্রকৃতির প্রাণী পশুপাখির দিকে তাকালে দেখতে পাওয়া যায়। তারা সকালে নিজেদের জীবিকা সংগ্রহের জন্য বেরিয়ে যায়। আবার সন্ধ্যার পূর্বেই বাসায় ফিরে আসে। বাংলাদেশের কৃষিজীবী মানুষদের দিকে তাকালে একই চিত্র দেখতে পাওয়া যায়। তারাও সকালের সুর্যোদয়ের পর কাজে বেরোয়। সারাদিন ক্ষেত খামারে কাজ করে সন্ধ্যা নাগাদ বাড়ি ফিরে আসে। রাতের খাবার পর্ব শেষ করে বউ ছেলে মেয়ে বাবা মা ভাই বোনদের নিয়ে একত্রে বসে কিছুক্ষণ গল্প করে রাতের বিছানায় ঘুমিয়ে পড়ে। আবার ভোরে ঘুম থেকে উঠে নিজ নিজ কাজে চলে যায়। পশু-পাখির শারীরিক স্বাস্থ্য সম্পর্কে আমরা এতটা সচেতন না থাকলেও কৃষকদের দেখে বুঝতে পারি। প্রাকৃতিক নিয়ম দিনের আলোতে জীবিকা নির্বাহের কাজ শেষ করার কারণে তারা সাধারণত অসুখ বিসুখে কম ভোগে থাকে। করোনার মতো এত মারাত্মক ছোঁয়াচে একটি ভাইরাসও তাদেরকে সেই রকম করে সংক্রমণ করেনি বা করতে পারেনি।
আমাদের দেশে এমন অনেক গৃহকর্তা আছেন। যারা খুব ভোরে বিছানা ছেড়ে নিজ নিজ কর্মস্থলে চলে যায়। তখন তার শিশু সন্তানেরা ঘুমিয়ে থাকে। দিনের খাবার দাবার এবং বিশ্রামের কাজটা কর্মস্থলেই করে নেয়। আবার রাত ১১/১২টায় বাসায় ফিরে আসেন। তখনো তার সন্তানেরা ঘুমিয়ে থাকে। বাবা বেশি অর্থ কামানোর মোহে মত্ত থাকার কারণে নিজের আদরের সন্তানগুলোর সুখ মুখটা যেমন দেখতে পায় না। অপরদিকে সন্তানেরাও বাবার কামানো অঢেল টাকা পয়সা খরচ করার সুযোগ পেলেও বাবার আদর স্নেহ পায় না। বাবার সান্নিধ্য পায় না। মা কিংবা দাদা দাদীর আদরে বড় হয়ে এক সময় এই সন্তানেরা বাবাকে চিনতে চায় না। বাবার সাথে মিশতে চায় না। বাবার আদেশ উপদেশের কথাগুলোও মেনে নিতে চায় না। বাপ ছেলের মাঝে সম্পর্কের একটা দূরত্ব তৈরি হয়ে থাকে। বাবার অবাধ্য হবার কারণে সন্তান অনেক সময় মাকে টপকিয়ে বিপদগামী পথেও চলে যায়। এই অবস্থায় বিপদগামী সন্তানের দায়টা কার? মা’র? সমাজের? না, এই দায় বাবার। বাবার কাছে সন্তানেরা শুধু টাকা চায় না। বাবার ভালোবাসাও চায়। বাবার আদর স্নেহ ভালোবাসা না পাবার কারণে একটা অতৃপ্ত মনোকষ্ট নিয়ে যে সন্তান বড় হয়। সে সাধারণত কিছুটা হলেও অসামাজিক অমানবিক হয়ে থাকে। প্রত্যেক বাবারই সন্তানদের ভবিষ্যৎ কল্যাণের জন্য রোজ অন্তত দুতিন ঘণ্টা সময় দেয়া দরকার। এটাও প্রাকৃতিক নিয়মের আওতায় পড়ে। সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে পেশাগত কাজ করে শেষ করে নিজের পরিবার, বউ ছেলে মেয়ে বাবা মাকে দেবার মতো ঘুমোতে যাবার আগে দুই তিন ঘণ্টা সময় থাকে। এই সময়টা নিজ পরিবারের জন্য বরাদ্ধ করা প্রতিটি গৃহকর্তার উচিৎ।
সৃষ্টিগতভাবে স্রষ্টা মানুষকে দিন দিয়েছেন- কাজ করে নিজের তথা পরিবারের সদস্যদের জীবিকা নির্বাহের জন্য। আর রাত দিয়েছেন ঘুমিয়ে দিনের কর্মক্লান্ত শরীরটা বিশ্রাম দেয়া এবং পরবর্তী দিনে পরিশ্রম করার মতো শারীরিক মানসিক শক্তি সংগ্রহের জন্য। অথচ বিজ্ঞানের উৎকর্ষতার যুগে উচ্চ শক্তি সম্পন্ন বৈদ্যুতিক বাল্ব জ্বেলে রাতকে দিনের মতো আলোকিত করে রাত জেগে কাজ করে থাকেন। এতে সংসারের অর্থনৈতিক স্বচ্ছলতা আসলেও নিদ্রাহীনতার কারণে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ে মানুষ। নানা ধরণের জটিল রোগে ভোগে থাকেন। অনিয়মতান্ত্রিকভাবে যদি নিয়মতান্ত্রিক কাজটিও করা হয়। সুদূর প্রসারি এর ফল ভালো হয় না। অনিদ্রা মানুষের স্বাস্থ্যহানির অন্যতম কারণ। জাতীয় পর্যায়ের টিভি চ্যানেলগুলোয় রাত ১১/১২টার সময়ে রাজনৈতিক টকশোগুলো আরম্ভ করা হয়। এই অনুষ্ঠানগুলোতে দেশের অভিভাবক খ্যাত বুদ্ধিজীবীগণ আসেন। রাষ্ট্র ও জনসাধারণের কল্যাণে কথা বলে থাকেন। জাতির কল্যাণে অনেক জ্ঞানের কথা বলে থাকেন তারা। যা জাতীয় জীবনে অতিব প্রয়োজনীয় কথা। কিন্তু এসব বুদ্ধিজীবী জ্ঞানীগুণী মানুষেরা কি কখনো ভেবেছেন? তাদের কথাগুলো রাত জেগে কতভাগ মানুষ শুনতে পারে? আর যারা রাত জেগে দেখছেন বা শুনছেন তারাও অনিদ্রা জনিত কারণে কতটা স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ছেন? প্রথমত অধিক রাত জাগার কারণে নিয়মিত ঘুমের ব্যাঘাত তৈরি হয়। মানুষের রোগ উৎপত্তির যতগুলো কারণ- তার মাঝে অন্যতম কারণ হলো অনিদ্রা। বুদ্ধিজীবী জ্ঞানীগুণী মানুষদের মূল্যবান কথাগুলো শুনে দৃশ্যত যতটা পরিমাণ লাভ হয়- এতে করে মনে হয়- জাতীয়ভাবে অনিদ্রাজনিত রোগে ভোগে লোকসানের পাল্লাটা তার চেয়ে ভারিই হয়। এছাড়া তাদের কথাগুলো যেসব মানুষদের জীবনে অতীব প্রয়োজনীয়। অনেক রাতে অনুষ্ঠানগুলো হবার কারণে রাত জেগে তারা শুনতে পারে না। এসব সুবিধা ভোগি মানুষদের জন্য অনুষ্ঠানগুলো সন্ধ্যা ৬টার পর থেকে রাত ১০টার মধ্যে হওয়া দরকার এবং পেশাজীবী মানুষদেরও সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে পেশাগত কাজ শেষ করে টিভি সেটের সামনে বসে দেশে বিদেশের খোঁজ খবর রাখা সচেতন নাগরিক দায়িত্ব। পরিবারের লোকদের মুক্তভাবে সময় দেয়া এবং নিজেদের শরীর মনের জন্য একটু বিনোদনের অপরিহার্যতা চিন্তা করেই জীবনের জন্য একটু সময় দেয়া প্রতিটি মানুষের জন্য অতীব প্রয়োজনীয়।
মানুষ যেমন কর্মক্লান্ত দিন শেষে রাতে বিশ্রামে থেকে রাতভর ঘুমিয়ে পরের দিন কাজ বা পরিশ্রম করার জন্য শারীরিক মানসিকভাবে শক্তি সঞ্চয় করে। প্রকৃতিও তেমনি সারাদিন মানুষ কিংবা অন্যান্য জীবপ্রাণীদের ধকল নেবার কারণে দিন শেষে ক্লান্ত হয়ে পড়ে। রাতে যখন ভূ-প্রকৃতির উপর মানুষের বা অন্যান্য জীবপ্রাণীর পদচারনা তেমন করে থাকে না। তখন ভূ-প্রকৃতি স্বস্থির নিঃশ্বাস নিয়ে প্রয়োজনীয় শক্তি সঞ্চয় করে পরের দিন ধকল নেবার জন্য নিজেকে তৈরি করতে পারে। প্রকৃতি যখন এই সুযোগ পায় না। তখন ভীষণভাবে ক্লান্ত হয়ে পড়ে। এভাবে দীর্ঘদিন ধরে টানা ধকল নেবার পর আর কোন ধকল নেবার সক্ষমতা হয়তো থাকে না। নিজেই অসুস্থ হয়ে পড়ে। তার থেকে শারীরিক মানসিকভাবে সুস্থ থাকার জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ না পেয়ে মানুষ তথা জীবপ্রাণী জগৎও অসুস্থ হয়ে পড়ে। এই করোনাকালের অবস্থাটাও ঠিক এমনি একটা অবস্থায় এসে পড়েছে। এই অবস্থায় মানুষের সুস্থতার জন্য লকডাউন কোয়রেন্টিনের মতো পদক্ষেপগুলো গ্রহণ করে প্রকৃতিকে সুস্থ থাকার সুযোগ করে দিতে হবে। এজন্য সন্ধ্যা ৬টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত মানুষকে পেশাগত কর্ম বিরতিতে থাকাটা অবাঞ্চিত কিছু নয়।
মানুষও অন্যান্য জীবপ্রাণীর মতো প্রাকৃতিক প্রাণী। তাই প্রকৃতির বিধান তাকে মানতে হবে। দিনের আলোতে পেশাগত সব কাজ শেষ করে ঘরে ফিরে যেতে হবে। তবেই নিজের কোমলমতি শিশু সন্তানের মুখের মিষ্টি হাসিটা দেখতে পাবে। প্রিয়তমা স্ত্রী জীবন সঙ্গিনীর সাথে ঘুমোবার আগেই কয় ঘণ্টা সময় অন্তরঙ্গ পরিবেশে কাটানো যাবে। বেঁচে থাকলে বৃদ্ধ মা বাবার সাথেও কিছুটা সময় ব্যয় করা যাবে। এতে করে নিজের মানসিক ও শারীরিক স্বাস্থ্য দুই-ই ভালো থাকবে। পরের দিনের কাজের জন্য শারীরিক মানসিকভাবে ভালো শক্তি পাবে। শিশু সন্তানেরাও দিনের একটা সময় বাবার সান্নিধ্যে থেকে আদর স্নেহ পেয়ে বড় হবে। বাবার অভাবটা আর মনের মাধ্যে দাগ কাটবে না।
আমাদের দেশে মানুষের মাঝে দু’ধরণের জীবন মান দেখতে পাই। এক. প্রামীণ জীবন, অপরটি শহুরে বা নাগরিক জীবন। গ্রামীণ জীবনে যখন দিনের প্রায় অর্ধেক কর্মঘণ্টা শেষ হয়ে যায়। নাগরিক জীবনে তখন সকাল ১০/১১টা বাজে দিনের কর্মব্যস্ততা আরম্ভ হয়। গ্রামীণ জীবনে যেখানে সন্ধ্যার প্রাক্কালে দিনের কর্মব্যস্ততা শেষ করে মানুষেরা ঘরে ফিরে যায়। শহুরে জীবনে সে সময়ে পুরো মাত্রায় কর্মদিবসের ব্যস্ততা চলতে থাকে। রাত ১০/১১টা কিংবা ১২/১টায় এই ব্যস্ততা শেষ হয়। অনেক রাত করে ঘুমোয়, সকালে অনেকটা সময় ধরে দিনের আলোতে ঘুমিয়ে সময় পার করে। এটা স্বাস্থ্য বিধি মতে সঙ্গত নয়। এর একটা কু-প্রভাব মানুষের মনের উপর পড়ে। তারপরে শরীরে গড়ায়। মানুষেরা অসুস্থ হয়ে পড়ে। প্রামীণ জীবনে সাধারণত এই রকমটা দেখা যায় না। স্বাস্থ্যগতভাবে অনেকটা অবহেলিত জীবন যাপন করেও তারা যত্রতত্র অসুস্থ হয়ে পড়ে না। শহুরে জীবনে যথেষ্ট পরিমান স্বাস্থ্য সচেতন থাকার পরও গ্রামীণ জীবনে কৃষক শ্রমিকদের মতো শারীরিক মানসিকভাবে এতটা সুস্থ থাকতে পারে না। এর প্রধান কারণ- প্রকৃতির সাথে সামঞ্জস্যতা রেখে তারা জীবন যাপন করে না। তাদের শরীর মনের উপর কোন চাপ নেয় না। রোদের তাপ, গরমের কষ্ট কিংবা বৃষ্টিতে ভেজার কষ্টগুলোও নাগরিক জীবনের শরীরগুলো নেয় না। বিধায় শরীরগুলো অতি আরামে থাকতে থাকতে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে। অতিক্ষুদ্র একটা করোনা ভাইরাসের আক্রমনও সয়ে নিতে পারে না। এর থেকে পরিত্রাণ পাবার সুযোগ হতে পারে- মানুষ যে প্রকৃতির প্রাণী সেই প্রকৃতির সাথে সামঞ্জস্য রেখে জীবনমান পরিচালনা করা। দিনের আলোতে যদি মানুষ তার দৈনন্দিন কাজ শেষ করে। পরিবার পরিজনদের সাথে একটা বাড়তি সময় দিয়ে মানসিক স্বাস্থ্যে ভালো থাকতে পারে। তেমনি দিনের আলোতে কাজ করে সকালের সাঝ বেলার সুমিষ্ট বাতাস এবং দুপুর রোদের কড়াঘাত সহ্য করে শরীরকেও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন করে রাখতে পারে। তখন আর যেন তেন রোগাক্রান্ত হবার সম্ভাবনা থাকে না।
দীর্ঘদিন ধরে মানুষেরা প্রকৃতির বিরুদ্ধাচারণ করে, প্রকৃতির উপর অযাচিত অত্যাচার নির্যাতন করে- প্রকৃতিকে অসুস্থ করে ফেলেছে। এই অসুস্থ প্রকৃতিকে তার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসার জন্য সুযোগ করে দিতে হবে। প্রকৃতিকে তার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসার জন্য তার উপর অতিমাত্রায় ধকল দেয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। এর জন্য সর্বাত্মক সন্ধ্যা ৬টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত মানুষকে পেশাগত কাজ থেকে বিরত থাকতে হবে। গণপরিবহন, হাট-বাজার, দোকা-পাট, পর্যটন কেন্দ্র, জন সমাগমপূর্ণ স্থান, উপাসনালয় ইত্যাদিতে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে প্রকৃতিকে স্বস্তির নিঃশ্বাস নেবার সুযোগ করে দিতে হবে। প্রকৃতিকে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে সুযোগ করে দেয়ার মাধ্যম যদি হয় লকডাউন তবে লকডাউনও প্রাকৃতিক বিধান। এই বিধান বাস্তাবায়নে মানুষ যতবেশি পারঙ্গম হবে। ততবেশি করে প্রকৃতির আক্রমন থেকে রক্ষা পাবে। প্রকৃতি থেকে তৈরি হওয়া রোগ-ব্যাধির সংক্রমণ থেকেও ততটাই রক্ষা পাবে। প্রাকৃতিক বিধান লকডাউন মানলেই আমরা মনুষ্য জাতি এই রকমটা আশা করতে পারি।
লেখক:-
মো. জালাল উদ্দিন
কবি, সাহিত্যিক ও গল্পকার।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!