• শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ০৩:৩০ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

কিশোরগঞ্জ ৩৫ জন স্বেচ্ছাসেবী স্বাস্থ্যকর্মীকে আর্থিক ঈদ উপহার

একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্টকে ঈদ উপহারের অর্থ প্রদান করা হচ্ছে। - পূর্বকণ্ঠ

কিশোরগঞ্জ ৩৫ জন স্বেচ্ছাসেবী
স্বাস্থ্যকর্মীকে আর্থিক ঈদ উপহার

# মোস্তফা কামাল :-

এক বছরেরও বেশি সময় ধরে কিশোরগঞ্জে বিনা পারিশ্রমিকে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে করোনাকালীন সেবা দিয়ে যাচ্ছেন ২৭ জন মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট, ৫ জন ভ্যাকসিন বাহক এবং ৩ জন পরিচ্ছন্নতা ও নিরাপত্তা কর্মী। নমুনা সংগ্রহ থেকে শুরু করে নমুনা পরীক্ষা পর্যন্ত বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ কাজে তারা নিয়োজিত রয়েছেন। সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে করোনার কাজ করতে গিয়ে মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট মোবারক হোসেন তার স্ত্রী শেখ মৌরি তানিয়াসহ করোনায় আক্রান্ত হয়ে সৈয়দ নজরুল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। মৌরি তানিয়াকে অক্সিজেন পর্যন্ত দিতে হয়। ফলে ঈদকে সামনে রেখে শহরের ঐতিহ্যবাহী পাগলা মসজিদ তহবিল থেকে এই স্বোচ্ছাসেবীদের ঈদ উপহার হিসেবে নগদ অর্থ প্রদান করা হয়েছে। প্রত্যেক মেডিক্যাল টেকনোলজিস্টকে সাড়ে ৬ হাজার টাকা, প্রত্যেক পরিচ্ছন্নতা ও নিরাপত্তা কর্মীকে সাড়ে ৩ হাজার টাকা এবং প্রত্যেক ভ্যাকসিন বাহককে আড়াই হাজার টাকা করে প্রদান করা হয়েছে।
আজ ১২ মে বুধবার দুপুরে জেনারেল হাসপাতাল সম্মেলন কক্ষে সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে ঈদ উপহার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম, বিশেষ অতিথি পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), জেনারেল হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. মো. হেলাল উদ্দিন ও পৌর মেয়র মাহমুদ পারভেজ বক্তব্য রাখেন। এসময় তারা ঈদ উপহার পাওয়া কর্মীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, তাদের নিঃস্বার্থ ও ঝুঁকিপূর্ণ পরিশ্রমের ফলে জেলায় এখনও করোনা সংক্রমণ অনেকটা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। সরকারি নিয়োগ প্রক্রিয়ায় তারা যেন সুযোগ পান, সে ব্যাপারে আগামী দিনে উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে বলেও বক্তাগণ আশ্বাস প্রদান করেন। তারা আরও বলেন, আমাদের সবাইকে মাস্ক পরিধান ও শারীরিক দূরত্বসহ সকল প্রকার স্বাস্থ্যবিধি সঠিকভাবে পালন করতে হবে। তা না হলে প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী দিকনির্দেশনায় করোনার প্রথম ঢেউ এবং দ্বিতীয় ঢেউ মোটামুটি ভালভাবে সামাল দেয়া সম্ভব হলেও তৃতীয় ঢেউ আমাদের ভয়াবহ বিপর্যয়ের মুখে ঠেলে দিতে পারে। পাশের দেশ ভারতে চিকিৎসা ব্যবস্থা অত্যন্ত উন্নত হবার পরও আজ তারা অসহায় হয়ে পড়েছে। অক্সিজেনের অভাব তাদের সবচেয়ে বেশী ভোগাচ্ছে। তাদের সংক্রমণ বাংলাদেশে শুরু হয়ে গেলে দ্রুত সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়বে। স্বাস্থ্যকর্মী আর স্বাস্থ্যকেন্দ্র চাইলেই দ্রুততার সঙ্গে তৈরি করা যায় না। কাজেই এরকম পরিস্থিতিতে যেন আমাদের পড়তে না হয়, তার জন্য সবাইকে সতর্ক এবং সচেতন হবার জন্য বক্তাগণ আহবান জানিয়েছেন। এরপর স্বেচ্ছাসেবীদের হাতে ঈদ উপহার হিসেবে নগদ অর্থ তুলে দেয়া হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!