• শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ০২:৪১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

বেনামাযী বা সালাত পরিত্যাগকারীর পরিচয় ও বিধান : সংকলনে- ডা: এ.বি. সিদ্দিক

বেনামাযী বা সালাত
পরিত্যাগকারীর পরিচয় ও বিধান

সংকলনে : ডা: এ.বি. সিদ্দিক

পরিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা ইসলামের প্রধান পাঁচটি রুকন বা স্তম্ভের মধ্য থেকে অন্যতম একটি রুকন হল সালাত। আর সালাতকে বর্তমান মুসলিম সমাজের অনেকেই ছেড়ে দিয়েছে। ইচ্ছে হলে পড়ে, আবার ইচ্ছে হলে ছেড়ে দেয়। আবার নিজেদেরকে তারা মুসলিমও দাবী করে। তাই বিষয়টি কুরআন ও সুন্নাহর আলোকে জানা প্রয়োজন। মহান আল্লাহ বলেন,
“অত:পর দুর্ভোগ ঐ সব মুছল্লীর জন্য” যারা তাদের সালাত থেকে উদাসীন।’’ (সূরাহ মা’উন: ৪,৫)
অন্যত্র আল্লাহ বলেন, ‘‘নিশ্চয়ই মুনাফিকরা প্রতারণা করে আল্লাহর সাথে। অথচ তিনি তাদেরকেই ধোঁকায় নিক্ষেপ করেন। তারা যখন সালাতে দাঁড়ায়, তখন অলসভাবে দাঁড়ায় লোক দেখানোর জন্য। আর তারা আল্লাহকে অল্পই স্মরণ করে।’’ (সূরাহ নিসা: ১৪২)
রাসূল (সা.) বলেন, ‘‘যে ব্যক্তি সালাতের হেফাযত করল না (অর্থাৎ রুকু, সেজদাসহ সালাতের ফরয ও ওয়াজিব সমূহ সঠিকভাবে ও গভীর মনোযোগ সহকারে আদায় করল না) সে ব্যক্তি ক্বিয়ামতের দিন ক্বারূণ, ফেরাউন, হামান ও উবাই বিন খালাফের সঙ্গে থাকবে (অর্থাৎ জাহান্নামবাসী হবে।)’’ (মুসনাদে আহমদ: ৬৫৭৬)
উল্লেখিত আয়াত সমূহ এবং হাদীসের মাধ্যমে বুঝা যায় যে, যারা সঠিকভাবে সালাত আদায় করে না তারা জাহান্নামী। দুঃখজনক হলেও সত্য যে, বর্তমান মুসলিম সমাজের এমন অনেক মানুষ আছেন যারা শুধু বৎসরে কিছুদিন (যেমন- দুই ঈদ, শবে ক্বদর, শবে বরাত ইত্যাদি দিনগুলোতে) সালাত আদায় করে থাকেন। আবার অনেকে শুধু জুমুআর সালাত আদায় করেন। আবার অনেকে দৈনিক দুই ওয়াক্ত বা তিন ওয়াক্ত সালাত আদায় করেন। আবার অনেকে পাঁচ ওয়াক্ত সালাতই আদায় করেন তবে মাঝে মাঝে ইচ্ছাকৃতভাবে কোন ওয়াক্তের সালাত ছেড়ে দেন, পরে তা ক্বাযা আদায় করেন। কুরআন ও হাদীস অনুযায়ী এদের কেউই সঠিকভাবে সালাত আদায়কারী না। বরং বেনামাযী ও সালাত পরিত্যাগকারী। কেননা ইসলামে প্রয়োজনবশত: অবস্থার আলোকে (জমা বাইনাস সালাতাইন) তথা দুই নামাযকে একত্রে পড়া যায় তবে দুইয়ের অধিক তথা তিন ওয়াক্ত বা তার বেশি সালাত একত্রে পড়ার কোন বিধান নেই। আবার ইচ্ছাকৃতভাবে এক ওয়াক্ত সালাত ছেড়ে দিলেও সে সালাত পরিত্যাগকারীর অন্তর্ভূক্ত হবে।
বেনামাযী বা সালাত পরিত্যাগ কারীর হুকুম বা বিধান:
রাসূল (সা.) বলেন,‘‘(মুমিন) বান্দা ও কুফরীর মাঝখানে পার্থক্য হল সালাত পরিত্যাগ করা।’’ (মুসলিম, মিশকাত বঙ্গানুবাদ: ৫২৩)
অন্যত্র রাসূল (সা.) বলেন, ‘‘আমাদের ও তাদের (কাফের, মুশরিক ও মুনাফিকদের) মধ্যে যে অঙ্গিকার রয়েছে, তা হল সালাত।’’ সুতরাং যে সালাত পরিত্যাগ করল সে কুফরী করল। (আহমদ, তিরমিযি, নাসাঈ, ইবনে মাজাহ, বঙ্গানুবাদ, মিশকাত: ৫২৭)
আব্দুল্লাহ বিন শাকীক বলেন, রাসূল (সা.) এর সাহাবীগণ সালাত ব্যতীত অন্য কোন আমল ত্যাগ করাকে কুফরী বলে মনে করতেন না। (তিরমিযি, বঙ্গানুবাদ মিশকাত: ৫৩২)
উল্লেখিত হাদীস সমূহের কারণে ইমাম আহমদ (র.) সহ অনেক বিদ্বান বলেন, সালাত পরিত্যাগকারী কাফের। (মিরকাত: ২/১১৩-১৪পৃ:)
ইমাম শাফেঈ (র.) ও ইমাম মালেক (র.) এর মতে বেনামাযী ব্যক্তি ফাসেক। বেনামাযী ব্যক্তি তওবা করে সালাত আদায় শুরু না করলে ইসলামী সরকার তাকে হত্যা করে দিবে। আবার ইমাম আবু হানীফা (রহ.) বলেন, বেনামাযী ফাসেক তবে সালাত শুরু করার আগ পর্যন্ত তাকে জেলখানায় আবদ্ধ রাখতে হবে। (ফিকহুস সুন্নাহ: ১/৭৩পৃ:) শায়খ সালেহ আল উছায়মিন (রহ.) উল্লেখিত হাদীসের আলোকে বলেন, বেনামাযী কাফের। সে মারা গেলে তার জানাযা পড়া এবং তার জন্য দোআ করা জায়েজ নেই।
সম্মানিত ভাই ও বোনেরা! উল্লেখিত আলোচনায় স্পষ্ট হয়ে গেল যে, সালাত পরিত্যাগ কারী বা বেনামাযীর পরিণতি অনেক ভয়াবহ। অতএব আমাদের সকলকেই সালাতের ব্যাপারে যত্নশীল হতে হবে। আল্লাহ আমাদের তাওফীক দিন। আমীন।
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!