• শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ০৩:৩৪ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

ছিয়ামের দাবী : সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

ছিয়ামের দাবী

সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

ছিয়ামের পরিচয়: ছিয়াম এর শাব্দিক অর্থ হল, কোন কিছু থেকে বিরত থাকা, দূরে থাকা, কোন কিছুকে পরিত্যাগ করা, সংযত হওয়া ইত্যাদি। ইসলামী শরীয়তের পরিভাষায়, আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের সন্তুষ্টি অর্জনের উদ্দেশ্যে ছুবহে ছাদিক হতে সূর্যাস্ত পর্যন্ত ছিয়াম রাখার নিয়তে সব ধরণের পানাহার, যৌন সম্ভোগ এবং অপ্রয়োজনীয়, অবাঞ্ছিত ও অশালীন কার্যকলাপসহ ছিয়াম ভঙ্গের সকল কারণ সমূহ হতে বিরত থাকাকে ছিয়াম বলে। পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা ইসলামের মূল ভিত্তি সমূহের মধ্য থেকে অন্যতম একটি ভিত্তি হল সিয়াম। মানব জীবনের গুরুত্বপূর্ণ গুণাবলী অর্জন করতে এবং সেগুলোকে দৃঢ়মূল করতে যথেষ্ট ভূমিকা পালন করে ছিয়াম। তাক্বওয়া অর্জন, আত্মসংযম ও আত্মসংশোধনের দূর্লভ গুণ তৈরী করার জন্যই ছিয়ামের বিধান। অতএব ছিয়ামের গুরুত্ব অপরিসীম।
ছিয়ামের দাবী: তাক্বওয়া (আল্লাহ তা’আলার ভয়ে ভীত হয়ে তাঁর নির্দেশিত ও রাসূল (সা.) প্রদর্শিত পথে জীবন পরিচালনা করা, জীবনের কোন ক্ষেত্রে আল্লাহ তা’আলার হুকুম যেন লংঘিত না হয়, এরকম সতর্কতার সাথে চলার নাম) অর্জনে ছিয়াম সাধনার ভূমিকা অনন্য। ছিয়াম পালনের উদ্দেশ্য শুধু না খেয়ে কষ্ট পাওয়া নয়, বরং এর আসল উদ্দেশ্য হচ্ছে, মানুষের ভেতরে তাক্বওয়ার গুণ সৃষ্টি করা। আর এই জন্য ছিয়ামের দাবীগুলো জানা এবং তা মানা খুবই অপরিহার্য।
সে গুলো হলো-
১। ঈমান ঠিক রাখা :-
শিরকসহ ঈমান ভঙ্গের যত কারণ আছে সে গুলো থেকে বেঁচে থেকে ঈমানের শর্ত ও রুকনগুলো পূরণ করা। কেননা সূরাহ বাকারার ১৮৩নং আয়াতের মাধ্যমে আল্লাহ তা’আলা জানিয়ে দিয়েছেন ছিয়াম কেবলমাত্র ঈমানদারদের জন্য।
২। ইখলাছ বা একনিষ্ঠতা :-
ছিয়ামের অন্যতম একটি দাবী হল ইখলাছ বা একনিষ্ঠতা (অর্থাৎ সকল ইবাদত একমাত্র মহান আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য করা)। কেননা অন্যান্য ইবাদত অনেকে লৌকিকতা রক্ষার খাতিরেও পালন করে থাকেন। কিন্তু ছিয়াম সাধনার বেলায় শুধুমাত্র আল্লাহর ভয়েই একজন মুমিন ছুবহে ছাদিক হতে সূর্যাস্ত পর্যন্ত নিষিদ্ধ কাজ সমূহ থেকে বিরত থাকেন। আর ছিয়ামের এই দাবী একজন মুমিনকে সারা জীবন দৃঢ়ভাবে আঁকড়ে ধরে রাখতে হবে।
৩। হারাম উপার্জন ও হারাম খাদ্য থেকে বিরত থাকা :-
ছিয়ামের অন্যতম আরেকটি দাবী হল সকল ধরণের হারাম উপার্জন ও হারাম খাদ্যকে বর্জন করা। কেননা ছিয়াম সাধনার ফলে একজন মানুষের উপর তার দেহের নিয়ন্ত্রণের স্থলে তার আত্মার নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠিত হয়। আর দেহের নিয়ন্ত্রণাধীন থেকে বের হতে পারলেই ভোগ-বিলাস ও পাশবিক ইচ্ছার পরিবর্তে মহৎ ইচ্ছার উদ্রেক হয়। আর অদম্য ভোগ-বিলাস ও পাশবিক ইচ্ছাকে মানুষ যখন পরিহার করে তখনই হারামকে বর্জন করে হালাল গ্রহণ করা সম্ভব হয়।
৪। সকল ধরণের পাপ থেকে বিরত থাকা :-
পাপ প্রবণতা বা নিষিদ্ধ কাজের প্রতি মানুষের আসক্তি একটি সহজাত ব্যাপার। আর ছিয়াম সাধনার দাবী হল এ পাপ থেকে বিরত থাকা। কেননা ছিয়াম পালনরত অবস্থায় অন্যায় করলে সে ছিয়াম পালনের মূল্য থাকেনা। রাসূল (সা.) বলেছেন,
যে ব্যক্তি ছিয়াম পালন অবস্থায় মিথ্যা কথা ও বর্জনীয় কাজ থেকে নিজেকে বিরত রাখতে পারল না, তার পানাহার ত্যাগ করার আল্লাহর নিকট কোন প্রয়োজন নেই। (বুখারী : ১৯০৩)
অতএব সকল প্রকার ঝগড়া-বিবাদ, গালি-গালাজ পরিত্যাগ করা, অন্যকে না ঠকানো, ওজনে কম না দেওয়া ও বেশী গ্রহণ না করা, একে অপরের হক্ব নষ্ট না করা, স্ব-স্ব কর্মে ফাঁকি না দেওয়া, মিথ্যাচার ত্যাগ করা, পরচর্চা না করা, সুদ এবং ঘুষসহ যাবতীয় পাপ বর্জন করা ছিয়ামের অন্যতম দাবী।
দাবী না মানার কুফল :- ছিয়ামের দাবী না মানলে ছিয়ামের ফজিলত পাওয়া যাবে না। পরকালে মুক্তির জন্য ছিয়াম সুপারিশও করবে না। কেননা রাসূল (সা.) বলেছেন,
কেবল পানাহার পরিহারের নাম ছিয়াম নয়, বরং (সকল প্রকার) অনর্থক ও অশ্লীলতা পরিহারের নাম ছিয়াম। (ইবনে খুযাইমা : ১৯৯৬)
অন্যত্র এসেছে, রাসূল (সা.) বলেছেন, অনেক ছায়েম (রোযাদার) আছে, যাদের ছিয়ামের বিনিময়ে ক্ষুধা ছাড়া আর কিছুই জোটে না। (ইবনু মাজাহ : ১৬৯০)
অতএব, আমাদের সবাইকে ছিয়ামের সকল দাবীগুলো মেনে যথাযথভাবে ছিয়াম পালন করতে হবে। আল্লাহ আমাদেরকে ছিয়ামের হক্ব যথাযথভাবে আদায় করার তাওফীক দিন। আমীন

প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!