• বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৯:০১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে নতুন করোনা রোগি ১৩, সুস্থ হলেন ১৯ জন লকডাউন প্রাকৃতিক বিধান কিশোরগঞ্জে করোনা সঙ্কটে বিপর্যস্তদের সঙ্গে অভিনব ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি ভৈরবে এতিম ও পথশিশুদের মাঝে জামা কাপড় ও খাবার বিতরণ করলেন ছাত্রলীগ সভাপতি প্রভা হোসেনপুরে ঝড়ে বিধ্বস্ত কুঁড়ে ঘরটি সংষ্কারের জন্য ঢেউটিন প্রদান কিশোরগঞ্জ ৩৫ জন স্বেচ্ছাসেবী স্বাস্থ্যকর্মীকে আর্থিক ঈদ উপহার পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষ্যে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানার ঈদ শুভেচ্ছা হোসেনপুরে আলোকিত সামাজিক সংঘের উদ্যোগে দরিদ্রদের মধ্যে ঈদ সামগ্রী বিতরণ কুলিয়ারচরে রাবেয়া-হামিদ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের ঈদ উপহার পেলো ১৫০টি পরিবার কিশোরগঞ্জে সুস্থ হলেন ৪০ জন নতুন করোনায় আক্রান্ত ২ জন

বৈশাখী মেলা, কৃষকের মেলা : মো. জালাল উদ্দিন

বৈশাখী মেলা, কৃষকের মেলা

মো. জালাল উদ্দিন

স্বাগতম ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। প্রতিটি বঙ্গাব্দের আগমন বাঙালি জাতিকে প্রাণের স্পন্দনে অনুপ্রাণিত করে। অনাবিল আনন্দ উৎসরের মধ্য দিয়ে নতুন বছরকে বরণ করে জাতি। এই বঙ্গাব্দকে বরণ করার জন্য জাতির অন্যতম অনুষজ্ঞ বৈশাখী মেলা। নবাগত বঙ্গাব্দের এক অনন্য জাতীয় উৎসব এই বৈশাখী মেলা। জাতি, ধর্ম-বর্ণ, নির্বিশেষে সর্বস্তরের মানুষের মিলন মেলা এই বৈশাখী মেলা। প্রাকৃতিক দুর্যোগ করোনা সংক্রমণের কারণে গত বছরও এই আনন্দ উৎসবে অংশ নিতে পারেনি জাতি। এবারও হয়তো পারবে না। কিছুও করার নেই, এটিই নিয়তি। তাই বলে সময়তো আর বসে নেই। বর্ষপঞ্জিকার পাতা উল্টেই চলেছে। সেই রকম করে আমরাও লেখে যাবো বর্ষ বরণের কথা। পৃথিবীতে প্রচলিত অধিকাংশ বর্ষপঞ্জিকাই কোন না কোন ধর্মের সংশ্লিষ্টতায় প্রবর্তিত হয়েছে। বাংলা বর্ষপঞ্জি বা বঙ্গাব্দের উৎপত্তির সাথে কোন ধর্মীয় অনুষজ্ঞের সংশ্লিষ্টতা নেই। সম্রাট আকবরের শাসনামলে বাঙলার কৃষকদের খাজনা প্রদানের সহজলভ্যতার কারণে ফসল তোলার মৌসমে খাজনা প্রদানের রীতিকে কেন্দ্র করে ১ বৈশাখ বঙ্গাব্দের প্রথম দিন ধরে বাঙলা বর্ষপঞ্জিকা প্রবর্তন করা হয়েছে। সেই থেকে ১ বৈশাখ বাঙলা নববর্ষ হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। এই দিনে কৃষকরা খাজনা পরিশোধ করতো। পরে এর সাথে ব্যবসা বাণিজ্যের দেনা পাওনার হিসেব যুক্ত হয়েছে। চৈত্রের শেষ দিনে ব্যবসায়ীরা বছরের দেনা পাওনার হিসাব নিকাশ শেষ করে। ১ বৈশাখ থেকে নতুন বছরের খাতা খোলে নতুন করে দেনা-পাওনা ও ব্যবসা-বাণিজ্যের হিসাব আরম্ভ করে। এভাবে দিনে দিনে কালের পরিক্রমায় এই দিনটি বাঙালি জাতির জাতীয় ও সাংস্কৃতিক আনন্দ উৎসবে পরিণত হয়। বাঙালি জাতীয়তাবোধে উদ্বুদ্ধ মানুষের প্রাণের উৎসব বাঙলা নববর্ষ উৎসব বৈশাখী মেলা। এই মেলায় কোন ধর্মের সংযোজন নেই। ধর্ম, বর্ণ, গোত্র নির্বিশেষে নিতান্তই বাঙালি জাতির কৃষকদের জন্য আনন্দ উৎসবের মিলনমেলা এই বৈশাখী মেলা। বাঙালি কৃষকরাই এই আনন্দ উৎসবের চূড়ান্ত দাবিদার। অতীতের দিনগুলোতে দেখা যায়। বাঙলা বর্ষবরণ অর্থাৎ বৈশাখের প্রথম দিনে নতুন বছরের আগমনে কৃষকদের ঘরে ঘরে বয়ে যেতো আনন্দ উৎসবের ফোরারা। ওইদিন কৃষকদের ঘরে আয়োজন করে ভালো মানের খাবার খাওয়া, আত্মীয়-অনাত্মীয়, পাড়া প্রতিবেশিদের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করা, বৈশাখী মেলা থেকে মুড়ি মন্ডা মুড়কি কিনে আনা, নতুন পুরাতন আত্মীয়দের দাওয়াত করা, স্নেহভাজন কিংবা নতুন জামাইদের পুরবী দেয়া, জামাইদেরকে দাওয়াত করা। এসব পরম আতিথেয়তার ভেতরে কৃষাণ কৃষাণীদের ব্যস্ততায় কেটে যেতো সারাটি দিন। ওইদিন কৃষকেরা সাধারণত মাঠে কোন কাজ করতো না। বছরে একদিন ছুটির মতো করে কাটিয়ে দিতো পুরোটা দিন। মাঠ জুড়ে ঘোড়া দৌঁড়, গরু দৌঁড় প্রতিযোগিতা হতো, আকাশ ছেয়ে যেতো রং বে-রংয়ের ঘুড়ির উড়া উড়িতে, মেলা মাঠের পাশের কোন এক জায়গায় হতো লাঠি খেলা, অন্যদিকে ভাটিয়ালি জারি সারি গানের আসর বসতো। বাউল গানের প্রচলনও ছিলো। মূলতঃ এই দিনটি গ্রাম ভিত্তিক কৃষক, কৃষি শ্রমিকদেরও আনন্দ উৎসবের একটি দিন ছিলো। ওইদিন কৃষি শ্রমিকদেরও আনন্দ উৎসবের আতিথেয়তা কম হতো না। সেই সময়ের নববর্ষ উদযাপন এখন আর তেমন করে দেখা যায় না। গ্রামীণ কৃষিজীবি মানুষের আনন্দ উৎসবে অনুষজ্ঞ বৈশাখী মেলা কেড়ে নিয়েছে শহরের মানুষেরা। এখন শুধু চোখে পড়ে রমনা বটমূলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আর গ্রামের সহজ সরল কৃষিজীবি মানুষদের উপহাস করার আয়োজন কথিত পান্তা ইলিশ খাওয়া। অথচ কৃষকেরা সারা বছর পান্তা খেলেও নববর্ষের এই দিনটিকে বছরের প্রথম দিন হিসেবে ভালো কিছু আয়োজন করে খেয়েই হাসি আনন্দের মধ্য দিয়ে উদযাপন করেছে। সেই স্থলে পান্তা ইলিশের বিলাসীতা নিছকই রুচিহীনতা।
গ্রাম বাঙলার বাউলগান কেড়ে নিয়েছে নগর বাউলেরা, এটির এখন অন্যরূপ দিয়ে নামকরণ করেছেন নগর বাউল। এই বাউল গান ছিল গ্রাম ভিত্তিক কৃষক শ্রমিকদের আনন্দ উৎসবের একটি অনুষজ্ঞ। বৈশাখী মেলাকে এখন এমনি একটি অবস্থায় নিয়ে গেছে-দেখে মনে হয়, এটি যেন নগরেই কোন একটি আনন্দ উৎসবের অনুষজ্ঞ। নগর জীবনের সব উপাত্তে সয়লাব মেলা। কৃষকদের যেন এখানে কোন জায়গাই নেই। কৃষক শ্রেণি উপেক্ষিত এই মেলায়। কৃষক শ্রেণির সুবিধার্থে প্রবর্তিত বঙ্গাব্দের নববর্ষ উৎসব এখন সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অধীন। রাষ্ট্রের শক্তিমান একটি কৃষি মন্ত্রণালয় থাকতে কৃষকদের জন্য প্রবর্তিত বঙ্গাব্দের নববর্ষ উদযাপনকারি মন্ত্রণালয় যদি হয়-সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়, তো কৃষকরা অবহেলিত হবে এটা অভাবনীয় নয়। বাঙলা নববর্ষের দিনে কৃষকদের কোন অনুষজ্ঞ নিয়ে কৃষক শোভা যাত্রা হয় না। রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় অনেক বড় করে একটা বিশেষ জাতি গোষ্ঠির অনুষজ্ঞ নিয়ে শোভা যাত্রা হয়। যেখানে কৃষকদের কথা কেউ মনেও করে না। যে কৃষকদের জন্য এই বঙ্গাব্দের বর্ষপঞ্জি প্রবর্তন হয়েছে। সেই বঙ্গাব্দের নববর্ষের দিনে মিডিয়াগুলোও সেই রকম করে কৃষকদের কভার করে না। টিভি চ্যানেলগুলোয় রাজনৈতিক টকশোতে মুখরোচক কিছু আলোচনা করেই তাদের কথা শেষ করে। রাজনীতির প্রধান উপাত্ত ভোটার সংখ্যায়ও যে তারা বেশি এই গুরুত্বটাও পায় না কৃষকেরা। তাদের রোদে পোড়া বৃষ্টিতে ভেজা অসুন্দর শরীর, অসুন্দর মুখের ভাষা বলে। এই দিনেও তারা মিডিয়ার কোন প্রোগ্রামে তেমন করে অংশ গ্রহণ করার সুযোগ পায় না। মাটির সাথে মিশে থাকা এই মানুষদের কেউ ডাক দেয় না।
কৃষকদের জন্য প্রবর্তিত বাঙলা বর্ষপঞ্জির নববর্ষ উৎসব বৈশাখি মেলায় কৃষকদের উৎপাদিত পন্য সামগ্রিগুলো তেমন করে প্রধান্য পায় না। যে কৃষক কুলের উৎপাদিত খাদ্য সামগ্রী খেয়ে সুন্দর নগর জীবন বেঁচে থাকে। এই নগর জীবনের মানুষের কাছে তেমন করে মূল্যায়িত হয় না তারা। এই কৃষকের উপর নির্ভর করে নাগরিক কিংবা গ্রামীণ জীবনের জীবনমান। আন্তর্জাতিক কিংবা জাতীয় জীবনে কোন দুর্যোগ দুর্বিপাকে কিংবা শিল্প বিপ্লব বা প্রযুক্তির উন্নয়ন যখন মানুষকে নির্ভরতার জায়গাটা দিতে পারে না। তখন কৃষক কুলই ভরসার জায়গা হয়ে দাঁড়ায়। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধে কিংবা ২০২০ সালে করোনাকালে নগর জীবনের আশ্রয়ের বা ভরসার জায়গা হয়ে দাঁড়িয়ে ছিলো এই কৃষক কুল। লকডাউনে সবকিছু বন্ধ হয়ে যাবার পর নগরের খেটে খাওয়া মানুষদের অনেকেই গ্রামে এসে কৃষকদের কাছে আশ্রয় পেয়েছিলো। স্বল্প পারিকশ্রমিকে কাজ পেয়ে হলেও আত্মরক্ষা করার সুযোগ পেয়েছিলো। করোনায় দীর্ঘ মেয়াদী দুর্যোগের সম্ভাবনায় যখন বিশ^বাসী উদ্বিগ্ন। তখনতো আমাদের দূরদর্শী বিচক্ষণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেই দিয়েছিলেন-এই দুর্যোগে মিলকারখানা সব বন্ধ। এখন সম্মুখ দুর্যোগ মোকাবেলায় কৃষির উপর নির্ভর করতে হবে। দেশের চাষ উপযোগি এক ইঞ্চি জমিও অনাবাদী রাখা যাবে না।
কবির ভাষায় বলতে গেলে একই কথা দাঁড়ায়। ভরসার জায়গা আমাদের একটাই

সব সাধকের বড় সাধক
আমার দেশের চাষা
দেশ মাতারি মুক্তিকামী
দেশের সে যে আশা।

করোনাকালে নগরজীবনে মৃত্যুভয়ে আতংকিত, শংকিত ঘর বন্দী অনেক খেটে খাওয়া মানুষেরা অনাহারে, অর্ধাহারে থাকলেও গ্রামের কৃষিজীবি মানুষেরা নির্বিকার ছিলো। তাদের মৃত্যুভয়, শংকা কিংবা আতংক ছিলো না। অর্ধাহারে কিংবা অনাহারীও ছিলো না। তারা খেটে খাওয়া, রোদে-পোড়া, বৃষ্টিতে ভেজা, পরিশ্রমি শক্ত-পোক্ত শরীরের মানুষ। করোনাও তেমন করে সংক্রমণ করতে পারেনি। তাদের জাতীয় কোন দিবস নেই। নির্দিষ্ট কোন উৎসব আয়োজনের ব্যবস্থা নেই। তাদের এই একটি মাত্র উৎসব বঙ্গাব্দের বর্ষপঞ্জি সূত্রে পাওয়া-বাঙলা নববর্ষের উৎসব বৈশাখী মেলা। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অধীনে হোক আর কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীনে নেওয়া হোক। এই বৈশাখী মেলার জাতীয় উৎসবটা যেন কৃষকদের জন্য উৎসর্গ করা হয়। এই মেলাকে তাদের জন্য “বৈশাখী মেলা, কৃষকের মেলা” নামে আখ্যায়িত করা হোক। বাঙলা নববর্ষের দিনটাকে কৃষকদের জন্য কৃষক দিবস ঘোষণা করে- জাতীয় পর্যায় থেকে স্থানীয় পর্যায়ে কৃষিসম্প্রসাণ অধিদপ্তরের তথ্য উপাত্তের হিসেবে এদিনে দেশব্যাপী এক যোগে সফল কৃষকদের মাঝে পুরস্কার বিতরণের ব্যবস্থা করা এবং বৈশাখী মেলায় কৃষি সরঞ্জামসহ কৃষকদের উৎপাদিত পণ্য সামগ্রী প্রদর্শন করার প্রাধান্য দেয়া হোক। অন্যকোন শোভাযাত্রা নয়-মাঠ পর্যায়ের কৃষকদের জমায়েত করে কৃষি উপকরণসহ কৃষক শোভাযাত্রার আয়োজন করে কৃষিকাজে উৎসাহিত করা হোক। তারা গায়ে গতরে কুৎসিত বা শ্রীহীন যে চেহারাই হোক, মুখের ভাষা শুদ্ধ, অশুদ্ধ, আঞ্চলিক যাই হোক- বছরের অন্তÍত এই একটি দিনে জাতীয় তথা স্থানীয় টিভি চ্যানেলগুলোয় উপস্থিত করে তাদের নাগরিক জীবনের সামনে স্টুডিওতে বসে কথা বলার সুযোগ করে দেয়া হোক। তারা হয়তো অনেক জ্ঞানের কথা বলতে পারবে না। কৃষি কাজের অভিজ্ঞতা, সফলতা, বিফলতা, দুঃখ কষ্টের কথাগুলোতো নিজের ভাষায় নিশ্চয় বলে যেতে পারবে। এতে করে উৎসাহিত হয়ে কৃষি কাজে আরো মনোযোগি হবে। কৃষিতে উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। জাতীয় উন্নয়নও বৃদ্ধি পাবে। নাগরিক জীবন তথা জাতীয় জীবনে নির্ভরতার জায়গাটা আরো বড় পরিসরে তৈরি হবে।
লেখক- কবি, গল্পকার ও ঔপন্যাসিক।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!