• বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৮:০৪ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে নতুন করোনা রোগি ১৩, সুস্থ হলেন ১৯ জন লকডাউন প্রাকৃতিক বিধান কিশোরগঞ্জে করোনা সঙ্কটে বিপর্যস্তদের সঙ্গে অভিনব ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি ভৈরবে এতিম ও পথশিশুদের মাঝে জামা কাপড় ও খাবার বিতরণ করলেন ছাত্রলীগ সভাপতি প্রভা হোসেনপুরে ঝড়ে বিধ্বস্ত কুঁড়ে ঘরটি সংষ্কারের জন্য ঢেউটিন প্রদান কিশোরগঞ্জ ৩৫ জন স্বেচ্ছাসেবী স্বাস্থ্যকর্মীকে আর্থিক ঈদ উপহার পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষ্যে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানার ঈদ শুভেচ্ছা হোসেনপুরে আলোকিত সামাজিক সংঘের উদ্যোগে দরিদ্রদের মধ্যে ঈদ সামগ্রী বিতরণ কুলিয়ারচরে রাবেয়া-হামিদ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের ঈদ উপহার পেলো ১৫০টি পরিবার কিশোরগঞ্জে সুস্থ হলেন ৪০ জন নতুন করোনায় আক্রান্ত ২ জন

কিশোরগঞ্জে নির্মিত হয়েছে দৃষ্টিনন্দন সিজেএম কোর্ট

কিশোরগঞ্জে নবনির্মিত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ভবন। - পূর্বকণ্ঠ

কিশোরগঞ্জে নির্মিত হয়েছে
দৃষ্টিনন্দন সিজেএম কোর্ট

# মোস্তফা কামাল :-

কিশোরগঞ্জে আদালতের স্থান সঙ্কুলান সঙ্কটে বিচার কাজে ভোগান্তির চিত্র বহু বছরের পুরনো। ভবন সঙ্কটের কারণে এজলাসের সংখ্যা প্রয়োজনের তুলনায় কম। কারণ, বিচার বিভাগ পৃথকীকরণের আগে জেলা প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণাধীন জেলা কালেক্টরেট ভবনের যে কক্ষগুলোতে এক সময় ম্যাজিস্ট্রেট আদালত বসতো, সেগুলিই এখন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত হিসেবে কাজ করছে। একই এজলাসে বিচার কাজ চলে একাধিক উপজেলার। যে কারণে মামলা কার্যক্রমের গতিতেও মন্থরতা পরিলক্ষিত হয়। এছাড়া স্বল্প পরিসর জায়গায় শত শত বিচার প্রার্থী ও আইনজীবীদের সমাগমে তাদেরও চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়। শুধু তাই নয়, কালেক্টরেট ভবনের নীচতলার একটি বিরাট অংশে আদালতের এজলাস, বিচারকদের খাসকামরা, কোর্ট হাজত এবং দোতলায় কোর্ট ইন্সপেক্টর ও জিআরও অফিস থাকায় জেলা প্রশাসনের অনেক দপ্তর তাদের অফিস সঙ্কটে ভুগছে।
ফলে এসব ভোগান্তির অবসানের লক্ষ্যে ২০১৩ সালের ২০ জুন সুপ্রীম কোর্টের তৎকালীন প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেন বর্তমান জেলা ও দায়রা জজ আদালত ভবনের লাগোয়া পশ্চিম পাশে পাট গবেষণা ইনস্টিটিউটের জায়গায় প্রধান অতিথি হিসেবে চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন। জায়গাটি আন্তঃমন্ত্রণালয় সভার মাধ্যমে কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়কে হস্তান্তর করা হয়েছে। সেখানেই গণপূর্ত বিভাগের তত্ত্বাবধানে নির্মিত হয়েছে দৃষ্টিনন্দন ৭ তলা চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ভবন। এতে থাকছে লিফটের ব্যবস্থাও। ভবনটি হস্তান্তর হবার পর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতগুলো স্থানান্তর হলে আদালতের কার্যক্রমে যেমন স্বস্তি এবং গতি আসবে, অন্যদিকে জেলা প্রশাসনও কালেক্টরেট ভবনের খালি হয়ে যাওয়া অনেকগুলো কক্ষ বিভিন্ন দপ্তরের কাজে ব্যবহারের সুযোগ পাবে।
জেলা গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. বাহাদুর আলী জানিয়েছেন, মোট ৫৮ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটির মূল কাজ সম্পন্ন হয়ে গেছে। এখন কেবল লিফট স্থাপনের কাজটি বাকি আছে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!