• রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ০৩:৪৫ অপরাহ্ন |
  • English Version

পাপ কাজের দুনিয়াবী ক্ষতি : সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

পাপ কাজের দুনিয়াবী ক্ষতি

সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

পূর্বে প্রকাশিতের পর…
গত পর্বগুলোতে আমরা এমন কিছু পাপ কাজের কথা জেনেছিলাম যেগুলো কেউ করলে এই দুনিয়াতেই তাকে বিভিন্ন ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। আর সেগুলো হলো- ১। শিরক করলে।২। ছালাত ছেড়ে দিলে। ৩। দুনিয়ার চিন্তায় বিভোর হয়ে পড়লে। ৪। ইবাদতে নিজেকে নিয়োজিত না রাখলে।৫। সূদের সাথে জড়িত হলে। ৬। মদ ও জুয়ার সাথে জড়িত হলে। ৭। আল্লাহর স্মরণ থেকে বিমুখ থাকলে। ৮। ঘরে ছবি থাকলে। ৯। হারাম খেলে। ১০। নিজ পিতা ব্যতীত অন্যকে পিতা দাবী করলে। ১১। প্রবৃত্তির অনুসারী হলে, লোভ-লালসার গোলাম হলে এবং অহংকার করলে। ১২। অধিক হাসলে। ১৩। আল্লাহর স্মরণ থেকে গাফেল থাকলে। ১৪। অশ্লীলতা ছড়িয়ে পড়লে। ১৫। ওজন ও পরিমাপে কারচুপি করলে। ১৬। যাকাত আদায় না করলে। ১৭। আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের অঙ্গীকার ভঙ্গ করলে। ১৮। আল্লাহর কিতাব মোতাবেক বিচার-ফায়সালা না করলে। আর এই পর্বেও আমরা এ জাতীয় আরো কতগুলো পাপ কাজের কথা জানব ইন্শাআল্লাহ। আর তা হলো:
১৯। গায়িকাদের নিয়ে নাচ-গানে মত্ত হলে। ২০। বাদ্য যন্ত্রের প্রতি আগ্রহী হলে।
আনাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত, নবী করীম (সা.) বলেছেন, যখন আমার উম্মত নেশাদার দ্রব্য পান করবে, গায়িকাদের নিয়ে নাচ-গানে মত্ত হবে এবং বাদ্যযন্ত্র নিয়ে ব্যস্ত হবে তখন অবশ্যই তিনটি ভয়াবহ বিপদ নেমে আসবে- (১) বিভিন্ন এলাকায় ভূমি ধ্বসে যাবে (২) উপর থেকে অথবা কোন জাতির পক্ষ থেকে যুলুম অত্যাচার চাপিয়ে দেওয়া হবে (৩) অনেকের পাপের দরুণ আকার-আকৃতি বিকৃত করা হবে। (সিলসিলা ছহীহাহ: ১৬০৪)
অন্যত্র এসেছে, আবু মালিক আল-আশআরী (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, আমার উম্মতের কতক লোক মদের ভিন্নতর নামকরণ করে তা পান করবে। তাদের সামনে বাদ্যবাজনা চলবে এবং গায়িকা নারীরা গীত পরিবেশন করবে। আল্লাহ তা’আলা এদেরকে মাটির নিচে ধ্বসিয়ে দিবেন এবং তাদের কতককে বানর ও শুকরে রূপান্তরিত করবেন (অর্থাৎ এদের চরিত্র হবে নোংরা, এদের প্রিয় কাজ হবে অশ্লীলতা। তাদের স্বভাব ও কৃষ্টি-কালচার হবে শুকর ও বানরের ন্যায়। এরা খুব সহজেই পাশ্চাত্যদের স্বভাব-চরিত্র গ্রহণ করে নিবে)। (ইবনে মাজাহ: ৪০২০)
২১। সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও খারাপ কাজ থেকে নিষেধ না করলে।
হুযাইফা ইবনুল ইয়ামান (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী (সা.) বলেছেন, সেই সত্তার শপথ, যার হাতে আমার প্রাণ! নিশ্চয়ই তোমরা সৎকাজের জন্য আদেশ করবে এবং অন্যায় কাজের প্রতিরোধ করবে। তা না হলে আল্লাহ্ তা’আলা শীঘ্রই তোমাদের উপর তাঁর শাস্তি অবতীর্ণ করবেন। তোমরা তখন তাঁর নিকট দু’আ করলেও তিনি তোমাদের সেই দু’আ গ্রহন করবেন না। (তিরমিজি: ২১৬৯)
অন্যত্র এসেছে, জারীর (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি নবী (সা.) কে বলতে শুনেছি, কোন ব্যক্তি কোন জাতির মধ্যে বাস করছে যাদের মাঝে পাপাচার হচ্ছে, তারা এ পাপাচার প্রতিরোধে সক্ষম হওয়া সত্ত্বেও প্রতিরোধ করছে না, তাহলে মৃত্যুর পূর্বেই আল্লাহ্ তাদের চরম শাস্তি দিবেন। (আবু দাউদ: ৪৩৩৯)
২২। আল্লাহ ও তাঁর রাসূলকে কষ্ট দিলে।
আল্লাহ তা‘আলাকে কষ্ট দেয়ার অর্থ হল আল্লাহ তা‘আলার সাথে কুফরী করা, তাঁর স্ত্রী-সন্তান রয়েছে বলে বিশ্বাস করা, তাঁর সাথে শরীক করা এবং তাঁর ব্যাপারে এমন কথা বলা যা থেকে তিনি পবিত্র। যেমন মুশরিকরা আল্লাহ তা‘আলার শরীক সাব্যস্থ করে, ইয়াহূদীরা বলে, উযাইর আল্লাহ তা‘আলার ছেলে ও খ্রিস্টান সম্প্রদায় বলে ঈসা আল্লাহ তা‘আলার সন্তান । হাদীসে এসেছে, আবূ হুরাইরাহ (রা.) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, আল্লাহ তা‘আলা বলেছেন, আদম সন্তান আমাকে কষ্ট দেয়। তারা যুগকে গালি দেয়, অথচ আমিই যুগ। রাত-দিনের আবর্তন আমিই করে থাকি। (সহীহ বুখারী হা: ৪৮২৬) সুতরাং যুগকে গালি দেয়া, প্রকৃতিকে দোষারোপ করা ঠিক নয়। কারণ প্রাকৃতিক কর্ম আল্লাহ তা‘আলার হাতে, কোন যুগ বা রাশিচক্রের নয়। আর রাসূলুল্লাহ (সা.) কে কষ্ট দেয়ার অর্থ হল, তাঁকে মিথ্যাবাদী বলা, তাঁর নামে মিথ্যা হাদীস রচনা করা, তাকে শারীরিকভাবে আঘাত করা, তাঁকে নিয়ে ব্যঙ্গ করা, তাকে কবি, জাদুকর ইত্যাদি বলা ও তাঁকে গালিগালাজ করা। কা‘ব বিন আশরাফ রাসূলুল্লাহ (সা.) কে গালিগালাজ করত, রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন, কে আছো যে কা‘ব বিন আশরাফকে হত্যা করবে? সে আল্লাহ তা‘আলা ও তাঁর রাসূলকে কষ্ট দিচ্ছে। তখন সাহাবী মুহাম্মাদ বিন মাসলামাহ তাকে হত্যা করেন। (সহীহ বুখারী: ২৫১০) এমনকি সাহাবীদেরকে গালিগালাজ করলেও নবী (সা.) কষ্ট পান। আর মহান আল্লাহ বলেন, যারা আল্লাহ ও তাঁর রাসূলকে কষ্ট দেয়, আল্লাহ তাদেরকে দুনিয়া ও আখিরাতে অভিশপ্ত করেছেন আর তাদের জন্য প্রস্তুত রেখেছেন অপমানজনক শাস্তি। (সূরা আহযাব: ৫৭)
উল্লেখিত আলোচনা থেকে দুনিয়াতেও ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয় এমন কিছু পাপের কথা আমরা জানতে পারলাম। আমাদের সকলেরই উচিত উল্লেখিত অন্যায়গুলো থেকে বেঁচে থাকা। আল্লাহ আমাদের তাওফীক দিন। আমীন
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!