• রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৭:০৭ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জে মানববন্ধন আজ ভৈরব পৌরসভা নির্বাচন, কে হচ্ছেন পৌর পিতা কিশোরগঞ্জে ইয়াবাসহ র‌্যাবের হাতে মাদক ব্যবসায়ী আটক স্যাটেলাইট যুগে প্রতিটি ঘরই এখন প্রেক্ষাগৃহ, কিশোরগঞ্জের ১৯টি হলই বন্ধ ৭টি চালু বন্ধ থাকার মতই ভৈরবে অটোচালক খুনের ৫ মাস পর খুনি গ্রেফতার, স্বীকারোক্তি লাগামহীন অপরাধীরা, ভৈরবে দুই মাসে তিন হত্যাকাণ্ড জ্ঞান ফেরেনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নারীর ভৈরবে সাবেক রাষ্ট্রপতির এপিএস শাখাওয়াত উল্লাহ করোনায় আক্রান্ত ৩৫ কেন্দ্রের মধ্যে ৩০ কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ, আগামীকাল ভৈরব পৌরসভা নির্বাচন কিশোরগঞ্জে প্রথমবার জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস উদযাপন কিশোরগঞ্জে করোনামুক্ত হলো বাজিতপুর উপজেলা নতুন রোগি শনাক্ত ৩ জন

কুলিয়ারচরে মিশ্র ফলের বাগানে সফল তিন যুবক, তাদের সফলতায় অনুপ্রাণিত হচ্ছে অনেক বেকার

কুলিয়ারচরে মিশ্র ফলের বাগানে
সফল তিন যুবক, তাদের সফলতায়
অনুপ্রাণিত হচ্ছে অনেক বেকার

# মোস্তাফিজ আমিন :-

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে মিশ্র ফলের বাগান করে অভাবনীয় সাফল্য পেয়েছেন স্থানীয় তিন যুবক। আর তাদের এই সাফল্যে অনুপ্রাণিত হচ্ছে বহু বেকার। আশে পাশের বিভিন্ন গ্রাম থেকে সেইসব বেকার যুবকরা প্রতিদিন ছুটে আসছে ওই বাগানে। অভিজ্ঞতা আর পরামর্শ নিয়ে অনেকেই এমন বাগান করার পরিকল্পনা করছে বলেও জানায়। এই উদ্যোগ ছড়িয়ে পড়লে এলাকার কৃষি অর্থনীতির চিত্র পাল্টে যাবে বলে ধারণা সংশ্লিষ্টদের।
কুলিয়ারচর উপজেলার গোবরিয়া আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়নের উত্তর লক্ষ্মীপুর কাচারিপাড়া গ্রামের এই তিন যুবক বাল্যবন্ধু। এদের মধ্যে মোস্তফা একটি প্রাইভেট অফিসের গাড়ি চালক। এইচএসসি পাশ করা আশরাফুল বেকার। আর মোবারক কৃষক। তারা আর্থিকভাবে সাবলম্বী হতে ইউটিউবে দেখা নানান উদ্যোগ নিয়ে আলোচনা করে। কিন্তু কোনো কিছুই তাদের মনপুত হচ্ছিলো না।
অবশেষে গতবছর ইউটিউবে মিশ্র ফলের বাগান করে দেশের বিভিন্ন এলাকায় সফল হওয়া যুবকদের বিষয়ে জেনে উদ্যোগী হয়। গ্রামের এক কৃষকের কাছ থেকে বছরে ১৫ হাজার টাকা করে দেওয়ার শর্তে ৪৩ শতাংশ ভূমি লীজ নিয়ে বাগানের কাজ শুরু করে।
সেই জমিটি উত্তমরূপে প্রস্তুত করে সেখানে রোপন করে ৪০০টি থাই পেয়ারা, ১০০টি মালটা, ৫০টি পেঁপে, ১০টি কাশমেরী আপেলকুল, ১০টি করে বারোমাসি সিডলি লেবু, চায়না ও দার্জিলিংয়ের কমলার চারা। জমি লীজের টাকা, বাগানের পরিচর্যা, চারা কেনা, বাগানের চারপাশে ও উপরে গুনা আর সূতার জালের বেষ্টুনি দেওয়াসহ সর্বমোট তাদের পুঁজি বিনিয়োগ হয় আড়াই লাখ টাকা।
তাদের শ্রম আর যত্নে এক বছরের মাথায় ব্যাপকভাবে ফলন আসে থাই পেয়ারা, পেঁপে আর আপেলকুলের। পাশাপাশি কিছু ফলন এসেছে লেবুতে। ফলনের অপেক্ষায় মালটা, চায়না আর দার্জিলিংয়ের কমলার। ইতোমধ্যে তারা বাগানের পেয়ারা, পেঁপে আর আপেলকুল বিক্রি করেছে লাখ টাকার উপরে। প্রায় বিচিবিহীন আর সুমিষ্ট থাইপেয়ারার ব্যাপক চাহিদা থাকায় বর্তমানে বাগান থেকেই প্রতি কেজি পেয়ারা পাইকারি বিক্রি হচ্ছে ৭০/৮০ টাকা কেজি দরে।
নিজেদের সফল বলে উল্লেখ করে তারা জানান, এটি একটি লাভজনক চাষ। ধানসহ অন্যান্য ফসল বাদ দিয়ে এই পেয়ারার চাষ করলে কৃষকরা আর্থিকভাবে বেশ লাভবান হবেন।
এই সফল তিন বন্ধুর মিশ্র ফলের বাগানের সাফল্যের খবর চারদিকে ছড়িয়ে পড়ায় আশে পাশের বিভিন্ন গ্রাম থেকে প্রতিদিন আসছে আগ্রহী বেকাররা। তারা বাগানে এসে মুগ্ধ হচ্ছে। পাশাপাশি এমন বাগান করার খুঁটিনাটি প্রশ্ন জেনে নিচ্ছে তাদের কাছ থেকে।
পাশের গ্রামের রাকিব, কবির আর আলম মেম্বার নামের তিন জানান, এদের সাফল্যে উৎসাহিত হয়ে তারাও এমন বাগান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এই আগ্রহী উদ্যোক্তাদের অভিমত, যে কেউ এমন উদ্যোগ গ্রহণ করে লাভবান হতে পারবেন। এতে করে বেকারত্ব দূরসহ এলাকা হবে আর্থিকভাবে স্বচ্ছল। পাল্টে যাবে এই এলাকার কৃষি অর্থনীতির চিত্র।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!